নিয়োগ নিয়ে হাইকোর্টে রিট; জ্যেষ্ঠতার নিয়ম লঙ্ঘন রাবি প্রশাসনের


Published: 2020-05-08 21:40:56 BdST, Updated: 2020-06-06 02:02:22 BdST

রাশেদ রাজন, রাবি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রপ সায়েন্স এন্ড টেকনোলজিস বিভাগের সভাপতি নিয়োগে জ্যেষ্ঠতার নিয়ম লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছে। নিয়ম অনুযায়ী সভাপতি হওয়ার কথা ছিল প্রফেসর. ড. মু আলী আসগরের। কিন্তু অপেক্ষাকৃত জুনিয়র প্রফেসর মোঃ আবুল কালাম আজাদকে নিয়োগ দেয়ার অভিযোগ উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে।

সূত্রে জানা যায়, বিভাগটির বর্তমান সভাপতির মেয়াদ আজ ৮ মে তারিখে শেষ হওয়ার কথা। তবে অধ্যাপক আজগরের অভিযোগ, গতকাল (৭ মে) তারচেয়ে জুনিয়র অধ্যাপক মোঃ আবুল কালাম আজাদকে নতুন সভাপতি হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন রেজিস্ট্রার।'' যা উদ্দেশ্যমূলক এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় আইন ১৯৭৩ এর ২৯ ধারার "দ্য ফার্স্ট স্ট্যাটুট অব দ্য ইউনিভার্সিটি" এর ৩ এর ১ ধারা তথা জ্যেষ্ঠতার নিয়ম লঙ্ঘন।''

অধ্যাপক আজগরের দাবি, এর আগে বিভাগটিতে নিয়োগ দুর্নীতি ইস্যুতে হাইকোর্টে রিট আবেদন করার কারণে তাকে নিয়োগ দেয়া হচ্ছে না। যদিও ইতোমধ্যে ঐ পদের জন্য আবেদনও করেছেন তিনি।

বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সালের নভেম্বরে ক্রপ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের তিনটি শূন্য পদের বিপরীতে শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। সেখানে প্ল্যানিং কমিটি প্রভাষক পদে প্ল্যান্ট প্যাথলজি, জেনেটিক্স অ্যান্ড প্ল্যান্ট ব্রিডিং ও এগ্রোনমি/এগ্রিকালচারাল এক্সটেনশন থেকে পাশকৃতরা আবেদন করতে পারবে বলে উল্লেখ করে। কিন্তু ওই বিজ্ঞপ্তিতে পরে আর শিক্ষক নিয়োগ হয়নি। গতবছরের ৩০ জুলাই নতুন করে সে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। কিন্তু প্ল্যানিং কমিটিকে না জানিয়েই উল্লিখিত বিভাগগুলোর সঙ্গে 'এগ্রিকালচারাল কেমিস্ট্রি' বিভাগ যুক্ত করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

‘বিশ্ববিদ্যালয় আইন এর ১ নং স্টাটিউট এর ৩ নং ধারা অনু্যায়ী স্থায়ী পদে শিক্ষক নিয়োগ দিতে হলে সংশ্লিষ্ট বিভাগের প্ল্যানিং কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে সিন্ডিকেট নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে পারেন। কিন্তু প্ল্যানিং কমিটিকে না জানিয়েই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন 'এগ্রিকালচারাল কেমিস্ট্রি' বিভাগটি যুক্ত করেছে বলে অভিযোগ অধ্যাপক আজগরের।

সে নিয়োগ নিয়ে গতবছরের ১৮ আগস্ট নতুন নীতিমালায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে বিভাগের অধ্যাপক ড. আলী আসগরের হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করেন। যার প্রেক্ষিতে উচ্চ আদালত প্রকাশিত নতুন বিজ্ঞপ্তিতে শিক্ষক নিয়োগের বিরুদ্ধে রুল জারি করেছিলেন । একইসঙ্গে নতুন বিজ্ঞপ্তিতে শিক্ষক নিয়োগ কেন অবৈধ হবে না তা জানতে চেয়েছিলেন।

নিয়োগের বিষয়ে জানতে চাইলে রেজিস্ট্রার অধ্যাপক এম এ বারী বলেন, "অধ্যাপক আসগর সহ বিভাগের আরও দু'জন শিক্ষকের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যেমূলক ভাবে অকৃতকার্য করানোর অভিযোগ রয়েছে। অভিযোগটি এখনো তদন্তাধীন থাকায় বিভাগের শিক্ষা কার্যক্রমের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কায় উনাকে সভাপতি পদে নিয়োগ দেয়া হয়নি। পরবর্তীতে তদন্তে নির্দোষ প্রমাণিত হলে তিনি নিয়োগ পাবেন।"

ঢাকা, ০৮ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।