ধর্ষণে বাধা দেয়ায় ছাত্রীকে ১৪তলা থেকে ফেলে দিল সৎভাই!


Published: 2019-08-17 20:16:19 BdST, Updated: 2019-09-21 08:31:14 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: ধর্ষণে বাধা দেয়ায় এবার কলেজছাত্রীকে ১৪ তলা থেকে ফেলে দেয়ার সত্যাতা পাওয়া গেছে। সৎভাইয়ের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে। রাজধানীর মতিঝিলে সিটি সেন্টার থেকে তানজিনা আকতার রূপা নামে ওই ছাত্রীকে ফেলে দেয়ার আগে তাকে হত্যা করা হয়েছে বলেও স্বীকার করে সৎ ভাই।

এব্যাপারে দালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দিয়েছেন রূপার সৎভাই যুবায়ের আহম্মেদ সম্রাট।

মতিঝিল থানার ওসি ওমর ফারুক বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ জানতে পেরেছে হত্যার আগে রূপাকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন সম্রাট। রূপা বাধা দিলে তাকে গলা টিপে হত্যা করেন। এই ঘটনা থেকে রেহাই পেতে তাকে ১৪ তলা থেকে নিচে ফেলে আত্মহত্যার নাটক সাজান সম্রাট। ঘটনার পরদিন ১১ আগস্ট সম্রাটকে আদালতে পাঠানো হলে তিনি ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন।

রূপা থাকতেন ঢাকার দক্ষিণ গোড়ানে। আলী আহম্মেদ স্কুল অ্যান্ড কলেজে এইচএসসির শিক্ষার্থী ছিলেন তিনি। ঘটনার পর রূপার মা দণ্ডবিধি ৩০২ ধারার হত্যা মামলা করেন। ওই মামলায় আসামি সম্রাটকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

উল্লেখ্য, গত ১০ আগস্ট বিকেল ৪টার সময় সিটি সেন্টারে ঘুরতে এসেছিল রূপা। পরে সম্রাট ও রূপা ৩২ তলার ছাদেও উঠেছিল। সেখানে গিয়ে হেলিপ্যাড দেখেন তারা। তারপর ১৪ তলায় নেমে আসেন দুজন। সেখানেই ধর্ষণচেষ্টার পর রূপাকে নিচে ফেলে দেন সম্রাট। অবশেষে বিষয়টি প্রকাশ হয়েছে।

ঢাকা, ১৭ আগস্ট (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।