বশেমুরবিপ্রবি ভিসির বহিস্কারের দাবিতে ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম


Published: 2019-09-16 15:15:19 BdST, Updated: 2019-10-19 06:04:26 BdST

ঢাবি লাইভ: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) উপাচার্য খন্দকার নাসির উদ্দীনকে বহিস্কারের দাবিতে সরকারকে ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম দিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

সোমবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে এক মানববন্ধন থেকে এই দাবি জানায় মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য খন্দকার নাসির উদ্দীন কর্তৃক অন্যায়ভাবে বহিস্কার হওয়া শিক্ষার্থী ও ঐ বিশ্ববিদ্যালয়েরই ডেইলি সান পত্রিকার বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক ফাতেমা তুজ জিনিয়ার ছাত্রত্ব ফিরিয়ে দেওয়া ও ভিসির বহিস্কারের দাবিতে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ আয়োজিত মানবন্ধনে সংহতি প্রকাশ করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি।

বশেমুরবিপ্রবি ভিসির বহিস্কারের দাবিতে ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের 

 

এসময় তারা উপাচার্যকে বহিস্কারের জন্য চব্বিশ ঘণ্টার আল্টিমেটাম প্রদান করে। অন্যথায় আগামীকাল বশেমুরপ্রবি উপাচার্যের কুশপুত্তলিকা দাহ করা সহ গোপালগঞ্জ গিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ঘেরাও করবে বলে জানান তারা।

মানববন্ধনে সভাপতির বক্তব্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ও মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের আহ্বায়ক আকম জামাল উদ্দীন বলেন, এই নাসির উদ্দীন নারী কেলেঙ্কারি, শিক্ষা বাণিজ্যসহ অনেক অভিযোগে অভিযুক্ত। বিভিন্ন সময় গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে আমরা এসব দেখেছি। এরপরও তিনি কীভাবে এই পদে বহাল থাকেন, তা আমার বোধগম্য নয়।

খন্দকার নাসির উদ্দীন `স্বাধীনতা বিরোধী রাজনীতি`র সাথে যুক্ত ছিলেন অভিযোগ করে আ ক ম জামাল উদ্দীন বলেন, `জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যেখানে (গোপালগঞ্জ) শুয়ে আছেন, সেখানে এমন স্বাধীনতা বিরোধী উপাচার্য কোনো অবস্থাতেই থাকতে পারে না।`

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ ঢাবি শাখার সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, `নাসির উদ্দীন হলো খন্দকার মুশতাকের প্রতিচ্ছবি। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়কে মিলিটারি ক্যাম্প বানিয়ে রেখেছেন। তিনি মূলত বঙ্গবন্ধু ও দেশনেত্রী শেখ হাসিনাকে অপমান করেছেন`

খন্দকার নাসির উদ্দীনকে `স্বৈরাচারী ভিসি` আখ্যা দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সভাপতি রায়হানুল ইসলাম আবির বলেন, `সাংবাদিক হিসেবে আজ আমাদের কর্মস্থলে থাকবার কথা। কিন্তু তার অন্যায় কাজের দায়ে আজ আমাদের দাঁড়াতে হয়েছে। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে রীতিমতো স্বৈরাচার চালান`

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাহদি আল মুহতাসিম বলেন, `স্বাধীন বাংলাদেশের সংবিধানে নাগরিকদের মত প্রকাশের স্বাধীনতা দেওয়া হয়েছে। মতামতের ভিন্নতা থাকতেই পারে। অথচ নিজের মতামত প্রকাশের দায়ে অন্যায়ভাবে একজন ছাত্রীকে বহিস্কার করেছেন তিনি। এর জন্য প্রশাসনকে অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে।`

প্রসঙ্গত, গত আগস্টের ২২ তারিখে প্রতিবেদন তৈরির কাজে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বক্তব্য নিতে তাঁর কার্যালয়ে যান ‘ডেইলি সান’ পত্রিকার বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধি ফাতেমা তুজ জিনিয়া। এ সময় উপাচার্য তাকে এর আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেওয়া একটি স্ট্যাটাস ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান কাজ কি হওয়া উচিত?’ এর কারণ জানতে চান। পরে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে গত চলতি মাসের ১১ তারিখ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত এক আদেশে ফাতেমা তুজ জিনিয়াকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়।

ঢাকা, ১৬ সেপ্টেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।