ঢাবিতে শিক্ষার্থীদের উপর নিপীড়নের গণতদন্ত কমিটি গঠনের প্রস্তাব


Published: 2019-10-09 17:44:24 BdST, Updated: 2019-10-22 19:27:17 BdST

ঢাবি লাইভঃ সারা দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষার্থীদের উপর নিপীড়ন ও নির্যাতনের বিচারের জন্য গণ তদন্ত কমিটি গঠনের প্রস্তাব করেছেন নিপীড়নবিরোধী শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকবৃন্দ।

বুধবার বেলা ১১ টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে অয়োজিত সমাবেশে এ দাবি জানান বক্তারা। এতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক, অভিভাবক, ও বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সমাবেশ থেকে নিপীড়নবিরোধী শিক্ষকবৃন্দের পক্ষ থেকে আনু মুহাম্মদ সারা দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের নিপীড়ন তুলে ধরার জন্য গণ তদন্ত কমিটি গঠনের প্রস্তাব তুলে ধরে বলেন , আইন-আদালত বলে বাংলাদেশে কিছু নেই। বাংলাদেশের কোন প্রতিষ্ঠান কাজ করে না।

একজন মন্ত্রী পরিষ্কারভাবে বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছা ছাড়া বাংলাদেশের কিছু হয়না। প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছা ছাড়া যদি কিছু না হয়; ছাত্রলীগের নেতারা তো পরিষ্কারভাবে বলবেন আমাদের এই অধিকার দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। কারণ এই ছাত্রলীগ গঠন করে কে? নেতাদের নির্দেশ দেয় কে, প্রয়োজনে বরখাস্ত করে কে? সব প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে আসে। ছাত্রলীগ-যুবলীগ পুলিশ-র‌্যাব সবার দায়িত্ব, দেশে কোনো ভিন্নমত থাকবে না।

রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের প্রফেসর এম এম আকাশ বলেন, লেজুড়বৃত্তির রাজনীতির কারণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তার মর্যাদা হারিয়েছে। দলকানা রাজনীতিতে চলে গেছে। বিবেক এবং সত্যটাকে অবহেলা করে ব্যক্তিগত লোভ-লালসা সুবিধার নীতিতে চলে গেছে। আমাদের নৈতিকতা নষ্ট হয়ে গেছে। এটা আমাদের সকলের মধ্যে কমবেশি হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, আমরা সবাই জানি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কোথায় কোথায় টর্চার রুম রয়েছে। আমরা সবাই জানি সেখানে কি অত্যাচার হয়। আজকের সমাবেশের পর ওই টর্চার রুমগুলো উঠে যাবে না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলো থেকে গণরুমের অত্যাচার বন্ধ হবে না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউট এর শিক্ষকরা বিন্দুমাত্র বিচলিত হবেন না।

তারা সরকারের সঙ্গে লাইন দিবেন। সরকারকে বলবেন একটু ঠাণ্ডা করো। বেশি গরম হয়ে গেছে একটু ঠাণ্ডা না করলে কিছুই হবে না। এর থেকে মুক্তির পথ কি? এ সময় তিনি বলেন, এর থেকে মুক্তির পথ হলো আত্মশক্তিতে বলিয়ান হয়ে যেখানে প্রতিবাদ করার সেখানে প্রতিবাদ করা। আমরা যেদিন করতে পারব সেদিন আমরা জয়লাভ করবো।

এছাড়া এতে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের প্রফেসর মাহবুবুল মোকাদ্দেম আকাশ, বিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর সায়ীদ ফেরদৌস, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক আল রাজিসহ বিভিন্ন শিক্ষার্থীর অভিভাবক সমাবেশে বক্তব্য রাখেন।

ঢাকা, ০৯ অক্টোবর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।