''ছাত্র ইউনিয়ন সাম্প্রদায়িক-মৌলবাদীদের খোলসে রূপ লাভ করেছে"


Published: 2020-09-29 00:43:28 BdST, Updated: 2020-11-01 06:57:42 BdST

ঢাবি লাইভ: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস ধর্ষণ ও নারী নিপীড়নকে বৈধতা দিয়েছে মন্তব্য করে ছাত্র ইউনিয়ন ঢাবি সংসদের বিবৃতির প্রতিবাদে জানিয়েছেন ঢাবি ছাত্রলীগ। বিবৃতিতে ছাত্র ইউনিয়ন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংসদকে সাম্প্রদায়িক-মৌলবাদী-উগ্র ধর্মীয় গোষ্ঠীর খোলসে রূপ লাভ করেছে বলে মন্তব্য করেছেন তারা।

সম্প্রতি ছাত্র ইউনিয়ন ঢাবি সংসদের এক বিবৃতিতে বলেন, " 'ধর্ষণ ও নারী নিপীড়নকে বৈধতা দেয়ায়’ ঢাবি ছাত্রলীগ সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাসকে শিক্ষার্থীরা আর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে দেখতে চায় না বলে মন্তব্য করেছে ছাত্র ইউনিয়ন।"

আজ সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর) এক বিবৃতিতে ছাত্র ইউনিয়নের বক্তব্যের প্রতিবাদ জানান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ছাত্রলীগ।

ছাত্রলীগ বিবৃতিতে বলেছে, "বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর সংগ্রামী সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাসের একটি ধর্ষণ নিয়ে বক্তব্যকে হীন স্বার্থ চরিতার্থ করার উদ্দেশ্যে কুরুচিপূর্ণ ও সাম্প্রদায়িক-প্রতিক্রিয়াশীল, স্বাধীনতা বিরোধী গোষ্ঠীর কাছে ছাত্র ইউনিয়নের বর্তমান নেতৃত্ব তাদের সংগঠনকে যেভাবে লজ্জাজনক ইজারা ও দখলদারিত্ব প্রদান করেছে।"

বিবৃতিতে বলা হয়, "বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এই মিথ্যাচার ও বানোয়াট যৌথ বিবৃতিকে প্রত্যাখ্যানপূর্বক মনে করে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থী ধর্ষিত হবার ঘটনায় আশ্চর্যজনকভাবে নীরব থেকে ছাত্র ইউনিয়ন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংসদ ধর্ষকদের পক্ষে তাদের সাংগঠনিক অবস্থান প্রমাণ করেছে। পাশাপাশি ধর্ষকদের সাথে নিজেদের রাজনৈতিক মিত্রতাকে তারা ধর্ষিতার আর্তনাদের থেকে অধিক গুরুত্ব দিয়েছে। যা এই সংগঠনের দেউলিয়াত্ব প্রমাণ করে।"

"ছাত্র ইউনিয়ন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংসদ সাম্প্রদায়িক-মৌলবাদী-উগ্র ধর্মীয় গোষ্ঠীর খোলসে রূপ লাভ করেছে তা সাম্প্রতিক অতীতে একাধিকবার প্রমাণিত। যৌথ বিবৃতিটির মাধ্যমে তারা চূড়ান্তভাবে নিজেরাই তা স্বীকার করে নিলো বলে মন্তব্য করেন।"

বিবৃতিতে বলা হয়, "বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সবসময় ধর্ষণ, নারী নিপীড়ন ও নারীর মানবিক মর্যাদা ক্ষুণ্ন হওয়ার বিপক্ষে সোচ্চার। বিপরীতে ছাত্র ইউনিয়ন ধর্ষণকারীদের পক্ষে নীরবতা পালন করে, ধর্ষণকারীদের সাথে রাজনৈতিক সমঝোতা গড়ে, আকারে-ইঙ্গিতে থেকে প্রকাশে ধর্ষণকারীদের বাঁচানোর চেষ্টা করে নিজেদের সাংগঠনিক অবস্থান পরিষ্কার করেছে।

এমনকি নিজ সংগঠনের ভেতরে সংঘটিত নারী নির্যাতনের ঘটনারও কোন প্রতিকার পূর্বে তারা করেনি যার ফলশ্রুতিতে তাদের কেন্দ্রীয় অফিসে নির্যাতিতাকে অবস্থান ধর্মঘট পালন করতে হয়েছে।"

বিবৃতিতে আরো বলেন, "সুষ্ঠু-স্বাভাবিক রাজনৈতিক প্রতিযোগিতা, সহমর্মিতাকে পাশ কাটিয়ে সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংসদ কর্তৃক যে হীন প্রতিহিংসা দৃশ্যমান তা সামগ্রিক ছাত্র রাজনীতির জন্য নেতিবাচক বলে আমরা মনে করি।

স্বাধীনতা বিরোধী, সাম্প্রদায়িক, মৌলবাদী, ধর্মীয় উগ্র গোষ্ঠীর সমার্থক হয়ে পরিচালিত ছাত্র ইউনিয়ন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংসদের এমন কর্মকাণ্ড ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ কোনভাবেই মেনে নিবে না।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ তাই আহ্বান জানায়- নেতৃত্বের দুর্বলতা কাটিয়ে, প্রগতিশীল রাজনৈতিক কৌশল বিনির্মাণের মাধ্যমে, সংগঠন থেকে বিভিন্ন অপশক্তি উৎখাত করে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিয়ন তাদের পূর্বের ঐতিহাসিক ধারায় প্রত্যাবর্তন করবে, সে সুদিনের প্রত্যাশা রইলো। "

ঢাকা, ২৮ সেপ্টেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।