ডাকসু নির্বাচনে কুয়েত মৈত্রী হলে সিলমারা ব্যালট, ছাত্রীদের ক্ষোভ


Published: 2019-03-11 09:42:54 BdST, Updated: 2019-09-15 14:27:45 BdST

ঢাবি লাইভ : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচনে ভোট গ্রহণের শুরুতেই কারচুপির অভিযোগ উঠেছে। সকাল ৯টার দিকে বাংলাদেশ কুয়েত-মৈত্রী হলে বেশকিছু সীল মারা ব্যালট পেপার উদ্ধার করা হয়েছে। সাধারণ ছাত্রীদের সহায়তায় প্রশাসন ব্যালট পেপারগুলো উদ্ধার করেন। এসময় ছাত্রীদের গণমাধ্যমকর্মীদের সামনে সিল মারা ব্যালট পেপার প্রদর্শণ করতে দেখা গেছে।

এর আগে ডাকসু নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ করেছেন ছাত্রদল। ডাকসু নির্বাচনে সবকিছু ছাত্রলীগের নিয়ন্ত্রণে চলে গেছে বলে অভিযোগ করেন ছাত্রদলের ভিপি প্রার্থী মোস্তাফিজুর। ছাত্রদলের প্রার্থীদের ভিতরে ঢুকতে বিভিন্নভাবে বাধা দেওয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

ছাত্রদলেরও ওই প্রার্থী বলেন, সায়েন্স ফ্যাকাল্টির হলগুলোতে একটি কৃত্রিম লাইন সৃষ্টি করে সময় ক্ষেপন করছে ছাত্রলীগ; যাতে হলের বাইরের ভোটাররা ভোট দিতে না পারেন। তিনি নির্বাচনকে একটি পাতানো নির্বাচন বলে অভিহিত করেন। আরেক প্রার্থী বলেন, ভোটারদের হাতে ছাত্রলীগ প্যানেলের লিস্ট ধরিয়ে দেয়া হচ্ছে, বলা হচ্ছে অন্য কোথাও ভোট না দিতে।

উল্লেখ্য, ডাকসুতে সোমবার সকাল ৮টায় শুরু হওয়া এই নির্বাচনে ভোট গ্রহণ করা হবে দুপুর ২টা পর্যন্ত। এদিকে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ১৮ হলে প্রস্তুত করা হয়েছে ৫০৮টি বুথ। ৪২ হাজার ৯২৩ ভোটারের জন্য এসব বুথ তৈরি করা হয়েছে।

সলিমুল্লাহ মুসলিম হলে বুথ ৩৫টি, শহীদুল্লাহ হলে ২০টি, ফজলুল হক মুসলিম হলে ৩৫টি, অমর একুশে হলে ২০টি, জগন্নাথ হলে ২৫টি, কবি জসীম উদ্দীন হলে ২০টি, মাস্টারদা সূর্যসেন হলে ৩২টি, হাজী মুহাম্মদ মুহসীন হলে ৩০টি, রোকেয়া হলে ৫০টি, কবি সুফিয়া কামাল হলে ৪৫টি, শামসুন্নাহার হলে ৩৫টি, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হলে ২০টি, বাংলাদেশ-কুয়েত মৈত্রী হলে ১৯টি, শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলে ২১টি, স্যার এ এফ রহমান হলে ১৬টি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে ২৪টি, মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হলে ২০টি এবং বিজয় একাত্তর হলে ৪০টি বুথ রয়েছে।

এবার ডাকসুর কেন্দ্রীয় সংসদে ২৫টি ও হল সংসদের ১৩টিসহ মোট ৩৮টি পদের জন্য ভোট দেবে শিক্ষার্থীরা। কেন্দ্রীয় সংসদে ২৫টি পদের বিপরীতে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন ২২৯ জন। আর প্রতিটি হল সংসদে ১৩টি পদের জন্য ১৮টি হলে ৫০৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ডাকসুর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তালিকায় দেখা যায়, কেন্দ্রীয় সংসদে ভিপি পদে ২১ জন এবং জিএস পদে ১৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেনন। এছাড়া এজিএস পদে ১৩ জন, স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক পদে ১১ জন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক পদে ৯ জন, কমনরুম-ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক পদে ৯ জন, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পদে ১১ জন, সাহিত্য সম্পাদক পদে ৮ জন, সংস্কৃতি সম্পাদক পদে ১২ জন, ক্রীড়া সম্পাদক পদে ১১ জন, ছাত্র পরিবহন সম্পাদক পদে ১০ জন, সমাজসেবা সম্পাদক পদে ১৪ জন এবং ১৩টি সদস্য পদের বিপরীতে ৮৬ জন নির্বাচন করছেন।

অন্যদিকে হল সংসদে ১৮টি হলে ১৩টি করে পদের বিপরীতে প্রার্থী রয়েছেন মোট ৫০৯ জন। এর মধ্যে সলিমুল্লাহ মুসলিম হলে ২৭ জন, জগন্নাথ হলে ২৮ জন, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব বলে ১৭ জন, মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হলে ২৬ জন, অমর একুশে হলে ২৯ জন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে ২৭ জন, বাংলাদেশ কুয়েত মৈত্রী হলে ৩৪ জন, হাজী মুহম্মদ মুহসীন হলে ৩৩ জন, রোকেয়া হরে ৩০ জন, কবি সুফিয়া কামাল হলে ৩০ জন, শামসুন্নাহার হলে ২৫ জন, কবি জসীম উদ্দীন হলে ২৫ জন, ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ হলে ২২ জন, ফজলুল হক মুসলিম হলে ৩৬ জন, বিজয় একাত্তর হলে ৩০ জন, শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলে ২৭ জন, স্যার এ এফ রহমান হলে ৩৭ জন এবং সূর্যসেন হলে ২৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এদিকে দীর্ঘ ২৮ বছর পর ঢাবির শিক্ষার্থীরা ডাকসু নির্বাচনে ভোট দেয়ার সুযোগ পেয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করছেন। সকাল থেকেই ব্যাপক ভোটারের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

ঢাকা, ১১ মার্চ (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।