ঢাবি ছাত্রের মৃত্যু, স্কয়ারে ২২ ঘণ্টায় বিল ১ লাখ ৮৬ হাজার টাকা!


Published: 2019-07-27 17:57:08 BdST, Updated: 2019-09-16 22:51:33 BdST

ঢাবি লাইভ: ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে না ফেরার দেশে চলে গেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ফিরোজ কবির স্বাধীন। তিনি রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। মাত্র ২২ ঘন্টায় তার চিকিৎসার খরচ দেখানো হয়েছে ১ লাখ ৮৬ হাজার টাকা। যেখানে ওষুধের খরচ দেখানো হয়েছে ৪০ হাজার টাকা। এতো টাকার বিল দেখে হতবিম্ব হয়ে পড়েন স্বাধীনের কৃষক বাবা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের ৪১৪ নম্বর কক্ষে থাকতেন স্বাধীন। তার রুমমেট লোকপ্রশাসন বিভাগের সুমন রহমান বলেন, স্বাধীন ভাইয়েরা দুই ভাই ও দুই বোন। তিনি সবার ছোট। বড় ভাই ও বাবা কৃষিকাজ করেন। শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে স্বাধীনের উন্নত চিকিৎসার খরচ জোগাতে বাবা হাসপাতাল থেকে গ্রামের বাড়ি ঠাকুরগাঁয়ের উদ্দেশে রওনা হন জমি বিক্রি করতে।

কিন্তু ঠাকুরগাঁও পৌঁছানোর আগে মাঝপথেই ছেলের মৃত্যু সংবাদ পান বাবা। স্কয়ার হাসপাতালে ২২ ঘণ্টা চিকিৎসার জন্য স্বাধীনের চিকিৎসা ব্যয়ের হিসাবে এক লাখ ৮৬ হাজার টাকা দেখিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

যেখানে শুধু ওষুধবাবদই দেখানো হয়েছে ৪০ হাজার টাকা। এরপর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও ডাকসুর নেতারা ২২ ঘণ্টায় এত টাকা কীভাবে বিল হয় তার পুঙ্খানুপুঙ্খ হিসাব চাইলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তা ঠিকমতো দিতে পারেনি। পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কোনো টাকা ছাড়াই রোগী রিলিজ দিয়েছে।

জানা গেছে, ঢাবি ছাত্র স্বাধীন গত ১৮ জুন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হন। পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরই মধ্যে তার পরিবার এসে তাকে দিনাজপুর মেডিকেলে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে ফের ঢামেকে আনা হয়।

সেখানে অবস্থার আরও অবনতি হলে আইসিইউতে নেয়া হয়। কিন্তু চিকিৎসকরা ততক্ষণে জানিয়ে দেন রোগী ক্রিটিক্যাল সিচুয়েশন ওভারকাম করছে। যেকোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। এরপর পরিবার আরও উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে স্কয়ার হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে ২২ ঘণ্টা পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।


ঢাকা, ২৭ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।