বাবার কষ্টের কথা ভুলে বুয়েটে এসে মুর্তিমান আতংক রাসেল!


Published: 2019-10-12 08:03:49 BdST, Updated: 2019-11-18 02:26:47 BdST

ফরিদপুর লাইভ : বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার প্রধান আসামি মেহেদী হাসান রাসেল। তিনি বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক (বহিষ্কৃত) ছিলেন। রাসেলের বাড়ি ফরিদপুরের সালথায়। আবরার হত্যাকাণ্ডের পর রাসেলের বাড়িতে এখন সুনসান নিরবতা। সালথা উপজেলার সোনাপুর ইউনিয়নের রাঙ্গারদিয়া গ্রামে রাসেলের বাড়ি। বাবা কষ্ট করে রাসেলকে পড়াশোনা করিয়েছেন। তবে বুয়েটে ভর্তি হয়ে বাবার কষ্টের প্রতিদান দিতে ভুলে গেলেন রাসেল। ছাত্রলীগের রাজনীতিতে জড়িয়ে বেপরোয়া হয়ে উঠতে থাকেন তিনি। তার কথা না শুনলেই টর্চার সেলে নিয়ে ছাত্রদের নির্যাতন করতেন তিনি। অনুসারীদের পাশাপাশি নিজেও মারধরে অংশ নিতেন। এভাবেই তিনি বুয়েটে মুর্তিমান আতংকে পরিণত হন। সর্বশেষ আবরার ফাহাদ হত্যায় নেতৃত্ব দিয়েছেন এই রাসেল। এবার হত্যা মামলায় প্রধান আসামি হয়ে রিমান্ডে রয়েছেন সাবেক ওই ছাত্রলীগ নেতা।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, রাঙ্গারদিয়া গ্রামের সাবেক সেনা সদস্য রুহুল আমিন ও ঝর্না আমিন দম্পতির বড় ছেলে মেহেদী হাসান। রুহুল আমিনের চার সন্তানের মধ্যে মেহেদী হাসান সবার বড়। ১৯৯৬ সালে জন্ম নেয়া মেহেদী হাসান তার বাবার চাকরির কারণে দেশের বিভিন্ন স্কুল-কলেজে লেখাপড়া করেছেন। রাসেল রংপুরের একটি স্কুল থেকে এসএসসি ও ময়মনসিংহে একটি কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। পরে ২০১৩ সালে বুয়েটে ভর্তি হন। রাসেলের বাবা রুহুল আমিন ২০০৮ সালে ময়মনসিহ থেকে অবসরে যান।

রাসেলের বাবা রুহুল আমিন বলেন, সামান্য বেতনে চাকরি করে ছেলেকে বুয়েটে ভর্তি করিয়েছিলাম। মাঝপথে এসে সব শেষ হয়ে গেছে। ছোটবেলা থেকেই আমার ছেলেকে আমি চিনি, সে এমন পাষণ্ড কাজ করবে ভাবতে পারছি না।

তবে রাসেলের মা ঝর্না বেগম বলেন, আমার ছেলে ষড়যন্ত্রের স্বীকার। আমার ছেলে কাউকে হত্যার সাথে জড়িত থাকতে পারে এটা আমি বিশ্বাস করতে পারি না।

রাসেলের ছোট বোন জান্নাতী মীম গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করেন। আরেক বোন গ্রামের যোগারদিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮ম শ্রেণির ছাত্রী আর ছোট ভাই একই স্কুলের ৭ম শ্রেণির ছাত্র। বাবা রুহুল আমিন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে ওয়ারেন্ট অফিসার ছিলেন।

আরও পড়ুন : স্কুলশিক্ষক বাবার সেই ‘নিরীহ’ ছেলেটি বুয়েটে এসে ভয়ংকর!

উল্লেখ্য, গত ০৬ অক্টোবর রোববার রাতে বুয়েটের শেরেবাংলা হলে আবরার ফাহাদ নামে এক ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। ফেইসবুকে ভারতের সঙ্গে চুক্তি নিয়ে স্ট্যাটাসের জেরে তাকে হত্যা করা হয়। যার নেতৃত্বে মেহেদী হাসান রাসেল ছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে। আবরার হত্যা মামলায় রাসেল এখন রিমান্ডে রয়েছেন।

ঢাকা, ১২ অক্টোবর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।