সমন্বিত ভর্তি : একমত ২৮ ভিসি, ঢাবি-বুয়েটের আপত্তি, পিছুটান চবির!


Published: 2020-02-12 20:01:00 BdST, Updated: 2020-04-03 13:01:07 BdST

আরিফুর রহমান : সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় দেশের ২৮টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি একমত হয়েছেন। তবে এবিষয়ে আপত্তি করছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়সহ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি। এর সঙ্গে সুর মিলিয়েছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিও। পাশাপাশি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়সহ আরও কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার ব্যাপার একমত হতে পারেনি। তবে যদি তবে শেষ পর্যন্ত ওইসব বিশ্ববিদ্যালয় না আসে, তাহলে তাদের ছাড়াই বাকি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো এই প্রক্রিয়ায় ভর্তি পরীক্ষা নেবে। মঙ্গলবার এবিষয়ে সভা করে আসন্ন শিক্ষাবর্ষ (২০২০-২১) থেকেই সমন্বিত বা কেন্দ্রীয়ভাবে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে একমত হয়েছেন। তাদের প্রাথমিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী উচ্চমাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশের এক সপ্তাহের মধ্যে অনলাইনে ভর্তির আবেদন নেওয়া হবে। আর ভর্তি পরীক্ষা সম্পন্ন করা হবে নভেম্বরের মধ্যে। এই পরীক্ষার নাম হবে ‘পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়সমূহে কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা’।

জানা গেছে, সংক্ষিপ্ত প্রশ্নে পরীক্ষা হবে। বর্তমানে বেশির ভাগ বিশ্ববিদ্যালয়ে বহুনির্বাচনী প্রশ্নে (এমসিকিউ) পরীক্ষা হয়। ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নগুলো করা হবে উচ্চমাধ্যমিকের পাঠ্যসূচির আলোকে। বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা ও মানবিক শাখার শিক্ষার্থীদের জন্য আলাদা তিনটি পরীক্ষা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষার্থী ভর্তির বিষয়ে প্রাথমিক সিদ্ধান্ত হলেও এই বিষয়টি আরও আলোচনার ভিত্তিতে ঠিক হবে।

রাজধানীর শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিদের সংগঠন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের সভায় উপস্থিত হয়ে ভিসিরা এসব সিদ্ধান্ত নেন। অবশ্য ওই সভায় উপস্থিত ২৮ জন ভিসির মধ্যে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি শিরীণ আখতার একাডেমিক কাউন্সিলের মাধ্যমে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানিয়ে দিয়েছেন। তবে তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ স্বায়ত্তশাসিত চারটি বিশ্ববিদ্যালয় ওই পদ্ধতিতে রাজি না হলে তাদের পক্ষেও ওই প্রক্রিয়ায় যাওয়া কঠিন হবে। মানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ও পিছুটান দিয়েছে।

এদিকে মঙ্গলবারের সভায় সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে আগে থেকেই অনাগ্রহ থাকা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) কোনো প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন না।

উল্লেখ্য, বর্তমানে ৪৬টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম চলছে। যদিও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় ও ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়সহ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় সরাসরি শিক্ষার্থী ভর্তি করে না। ৩৯টি বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক প্রথম বর্ষে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়। এগুলোতে প্রতিবছর প্রায় ৫৫ হাজার শিক্ষার্থী ভর্তি হন। এ জন্য ভর্তি পরীক্ষায় কয়েক লাখ শিক্ষার্থী অংশ নেন। ইউজিসির চেষ্টা হলো দোদুল্যমান থাকা স্বায়ত্তশাসিত চারটি বিশ্ববিদ্যালয় ও বুয়েটকেও এই প্রক্রিয়ায় রাজি করানো। এ জন্য আজ বুধবার ইউজিসিতে একটি সভা অনুষ্ঠিত হবে। চেষ্টার পরেও যদি ‘স্বাতন্ত্র্যের’ কারণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও বুয়েটসহ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় এই প্রক্রিয়ায় না আসে, তাহলে তাদের বাদ দিয়েই আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকেই সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হবে।

ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের দুর্ভোগ কমাতে কয়েক বছর ধরেই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সমন্বিত বা গুচ্ছ ভিত্তিতে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার চেষ্টা চলছে। কিন্তু বেশির ভাগ বিশ্ববিদ্যালয় তাতে রাজি হয় না। অভিযোগ রয়েছে, মূলত ভর্তির ফরম বিক্রি বাবদ বিরাট অঙ্কের টাকার আয় থেকে শিক্ষকেরা বঞ্চিত হওয়ার ভয়েই এই পদ্ধতিতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো রাজি হতে চায় না।

এই প্রক্রিয়ায় ভর্তি পরীক্ষা নিতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আচার্য ও রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ একাধিকবার আহ্বান জানিয়েছেন। সেই চেষ্টার অংশ হিসেবে গত বছর (চলতি শিক্ষাবর্ষ) সাতটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিতভাবে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হয়। এরপর গত ২৩ জানুয়ারি ইউজিসিতে অনুষ্ঠিত এক সভায় অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়েও সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার সিদ্ধান্ত হয়। এরপর থেকে এ নিয়ে আলোচনা শুরু হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েটসহ দু-একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অনাগ্রহ নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রক্রিয়া এসেছে ইউজিসি চেয়ারম্যান প্রফেসর কাজী শহীদুল্লাহর পক্ষ থেকে।

ইউজিসির সূত্রমতে, নতুন পদ্ধতিতে দুই থেকে তিন দিনে এই ভর্তি পরীক্ষা হবে। কেন্দ্রগুলো হবে শুধু বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে। শিক্ষার্থীদের পছন্দ অনুযায়ী কেন্দ্র ঠিক হবে। তবে কোনো কেন্দ্রে (বিশ্ববিদ্যালয়) ধারণক্ষমতার চেয়ে বেশি পছন্দ এলে মেধার ভিত্তিতে (এসএসসি ও এইচএসসির ফল) কেন্দ্র ঠিক করা হবে। মেধার ভিত্তিতে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে তার পছন্দক্রম অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়ে।

ঢাকা, ১২ ফেব্রুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।