স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষায় জট লাগছে


Published: 2020-04-02 18:58:16 BdST, Updated: 2020-06-06 00:06:12 BdST

মৃদুল ব্যানার্জি: করোনাভাইরাসের প্রভাব এখন সব ধরনের পরীক্ষায়। স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা এমনকি বিশ্ববিদ্যালয়েও এর বিরুপ প্রভাব পড়েছে। রেহাই পাচ্ছে না কোন কিছু। একদিকে অজানা মৃত্যুর আতঙ্ক অন্যদিকে পরীক্ষার জটে অনেকটাই দিশেহারা কোমলমতি শিক্ষার্থী ও বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়ারা। তাদের এই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণের তাগিদ অনুভব করছেন শিক্ষক, অভিবাবক ও শিক্ষার্থীরা।

এদিকে কখন যে এই প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের অভিশাপ থেকে জাতি-দেশ ও সমাজ মুক্তি পাবে সেটা কেউ জানে না। এই গাতক রোগের প্রকোপ বাড়তে থাকায় সংক্রমণ ঝুঁকি এড়াতে বন্ধ করা হয়েছে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ঘোষণা করা হয়েছে সাধারণ ছুটি। এ পর্যন্ত দু দফায় ছুটি বাড়ালেও বিশেষজ্ঞরা বলছেন আবারে বাড়াতে হতে পারে আরেক দফা ছুটি। এরই মধ্যে দু'দফায় ছুটি বাড়ানো হলেও করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকায় এ মুহূর্তে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার কোনো চিন্তা সরকারের নেই।

এদিকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়, ইউজিসি এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীলদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে ছুটি প্রয়োজনে ঈদুল ফিতর পর্যন্ত বাড়ানো হতে পারে। দেশের সার্বিক অবস্থা বিবেচনা করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে সংশ্লিস্টরা।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ঘোষিত বর্ষপঞ্জি অনুসারে পবিত্র রমজান, ঈদুল ফিতরসহ বেশ কিছু ছুটি মিলিয়ে আগামী ২৫ এপ্রিল থেকে ৩০ মে পর্যন্ত ছুটি রয়েছে। এ ছাড়া এ মাসেই রয়েছে শবেবরাত, স্টার সানডে ও পহেলা বৈশাখের ছুটি। সাপ্তাহিক ছুটি ও সরকারি ছুটি বাদে ৪ থেকে ২৪ এপ্রিল পর্যন্ত মাত্র ১৪ দিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা রয়েছে। করোনাভাইরাস সমস্যার কারণে এই ১৪ দিনও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে চায় মন্ত্রণালয়। পরিস্থিতির উন্নতি না হলে কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানই আগামী ঈদুল ফিতরের আগে আর খুলছে না বলে জানিয়েছেন সংশ্ষ্টিরা।

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি বিশিষ্ট শিক্ষাবিধ প্রফেসর ড. আতিকুল ইসলাম ক্যাম্পাসলাইভকে জানিয়েছেন গত ১৫ দিনের ছুটিতে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে ব্যাপক পরীক্ষাজটের সৃষ্টি হয়েছে। ছুটি আরও প্রলম্বিত হলে এ জট আরও দীর্ঘ হবে। এই সমস্যা পুষিয়ে নিতে হবে। এজন্য ছাত্রদের প্রস্তুতি রাখতে হবে। মানসিক ভাবে প্রস্তুতি রাখতে হবে শিক্ষকদেরও। জাতির বৃহত্তর স্বার্থে সকলকে এ বিষয়ে সজাগ থাকতে হবে বলেও ভিসি জানিয়েছেন।

প্রফেসর ড. আতিকুল আরো বলেন, এই ছুটির ফলে কেবল জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়েরই শতাধিক পরীক্ষা স্থগিত হয়ে গেছে। অন্যান্য পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়েও সৃষ্টি হয়েছে পরীক্ষাজট। সামগ্রিকভাবে সেশনজটের আশঙ্কা করছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। গত ১ এপ্রিল সারাদেশে ২০২০ সালের এইচএসসি পরীক্ষা শুরুর কথা ছিল। অনেক আগেই তা পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। আবার এইচএসসি পরীক্ষা পিছিয়ে যাওয়ায় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সামার সেমিস্টারের ভর্তিও স্থগিত করা হয়েছে।

এ বিষয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক বলেন, 'করোনার আতঙ্ক কেটে গেলে স্কুল-কলেজ খুলে দিয়ে প্রয়োজনে ডাবল শিফটে ক্লাস নিয়ে পড়াশোনার এই গ্যাপ পূরণ করে নেওয়া হবে।'

চলতি মাসেই দেশের প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোতে প্রথম সাময়িক পরীক্ষা শুরুর পূর্ব ঘোষিত সময়সূচি রয়েছে। তবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় এসব পরীক্ষা অনিশ্চিত হয়ে গেছে। কেবল পরীক্ষা নয়, পরীক্ষার ফল প্রকাশও স্থগিত হয়ে গেছে এই পরিস্থিতির কারণে। গত ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক জানান, সাময়িকভাবে এসএসসির উত্তরপত্রের ওএমআর শিট স্ক্যানিং স্থগিত করা হয়েছে। করোনা আতঙ্ক কেটে গেলে ডাবল শিফটে কাজ করে কাজের এই গ্যাপ পূরণ করে নেওয়া হবে। ফল প্রকাশের বিষয়ে অবস্থার আলোকে যা করা দরকার, করা হবে।

এদিকে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড থকে জানা গেছে, এসএসসির লিখিত পরীক্ষার খাতা দেখা শেষ করলেও করোনো পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় উত্তরপত্রের ওএমআর শিট স্ক্যানিং স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। আর উত্তরপত্র নিয়ে বোর্ডে আসতে নিষেধ করা হয়েছে পরীক্ষকদের। শুধু ঢাকা বোর্ড নয়, সবক'টি শিক্ষা বোর্ড একই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এদিকে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা স্থগিত করার পর এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহেই নতুন রুটিন ঘোষণার কথা ছিল। গত ২২ মার্চ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিতের ঘোষণা দেওয়া হয়। তবে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় নতুন সময়সূচি ঘোষণাও অনিশ্চয়তায় পড়েছে। এই পরীক্ষা আরও পিছিয়ে যেতে পারে বলে বোর্ড চেয়ারম্যানদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে।

ঢাকা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক বলেন, 'বর্তমান পরিস্থিতিতে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা আয়োজন করাটা সম্ভব নয় বিধায় পরীক্ষা স্থগিত করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত এ পরীক্ষা স্থগিতই রাখা হবে।'

অন্যদিকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম সাময়িক পরীক্ষা সময়মতো নেওয়া সম্ভব হবে না বলেও ইতোমধ্যে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে জানানো হয়েছে। তাই পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত সবাইকে অপেক্ষা করতে বলা হয়েছে। কেননা কোনো অবস্থাতেই শিক্ষার্থীদের নূ্যনতম কোনো ঝুঁকির মধ্যে ফেলা যাবে না। পিছিয়ে যাচ্ছে মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোরও প্রথম সাময়িক পরীক্ষা।

অভিভাবকদের সংগঠন 'অভিভাবক ঐক্য ফোরামে'র সভাপতি জিয়াউল কবির দুলু বলেন, 'সিলেবাস শেষ করা এত সহজ ব্যাপার নয়। তাড়াহুড়ো করে ক্লাসে সিলেবাস শেষ করে দেওয়া যেতে পারে বটে, তবে তাতে পরীক্ষার্থীরা কিছুই শিখবে না।'

ঢাকা, ০২ এপ্রিল (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।