বন্যাকবলিত এলাকায় কেমন আছে জবি শিক্ষার্থীরা?


Published: 2020-07-28 18:34:42 BdST, Updated: 2020-08-13 05:31:35 BdST

করোনার সাথে যেন পাল্লা দিয়ে এসেছে বন্যা। করোনা মহামারির মধ্যে দ্বিতীয় দফা বন্যার আশঙ্কার করছে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র। প্রথম দফার বন্যার পানি কিছুটা কমে এলেও আবার বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে। এই বৃষ্টি আরো টাকা তিন দিন হতে পারে। বন্যা এবং করোনার মাঝেই শুরু হয়েছে অনলাইন ক্লাস। এই অবস্থায় জবি শিক্ষার্থীরা কিভাবে এই কঠিন সময় পার করছে সেই গল্প তাদের কাছে শুনেছেন ক্যাম্পাসলাইভের প্রতিনিধি মুজাহিদ বিল্লাহ

জান্নাতুল সাদিয়া রাপ্পি, বাংলা বিভাগ লৌহজং, মুন্সিগঞ্জ, তিনি ক্যাম্পাসলাইভকে জানান: বিভিন্ন জায়গায় পানি চলাচলের রাস্তা বন্ধ থাকার কারণে নদী থেকে পানি সরাসরি লোকালয়ে চলে এসেছে। বিশেষ করে পদ্মা পাড়ের লোকজনের অবস্থা খুবই ভয়াবহ। দরিদ্র দিনমজুর মানুষেরা আধপেটা খেয়ে জীবন যাপন করছে।

জান্নাতুল সাদিয়া রাপ্পি

 

গৃহপালিত পশু প্রাণী নিয়ে অধিকাংশ পরিবারই বিপদের মধ্যে আছে। তাছাড়া প্রধান রাস্তা সহ অন্যান্য রাস্তাঘাট পানিতে ডুবে কিছু জায়গায় যান চলাচলের ব্যাঘাত সৃষ্টি হয়েছে। অনেকেই ইতিমধ্যে নিজ বাড়ি ছেড়ে উচু জায়গায় আশ্রয় নিয়েছে।পানির মধ্যে কোথাও যাওয়া যায় না কাল আমাদের গরে পানি উঠবে মনে হচ্ছে।

লগ্ন, বাংলা বিভাগ, কুড়িগ্রাম, তিনি ক্যাম্পাসলাইভকে জানালেন: তিস্তা নদীর ভাঙ্গন ও বন্যা রোধে নির্মিত বেড়ি বাঁধের পূর্ব দিকে আছি, বলে বন্যা আসলেও যাতায়ত ব্যতিত অন্যান্য সমস্যা হয় না। তবে, বাঁধের পশ্চিমে অবস্থা খুবই মর্মান্তিক।

লগ্ন

 

জীবন ও জীবিকার পথ বন্ধ, আর রাত যাপনের শেষ আশ্রয় হয়ে দাঁড়ায় বাঁধের রাস্তা। গবাদি পশুওকে নিয়ে এখানেই তারা অপেক্ষার প্রহর গুনে দিনানিপাত করে।

সিয়াম উদ্দিন খান, প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগ, সিরাজগঞ্জ, তিনি ক্যাম্পাসলাইভকে বললেন: উত্তরাঞ্চলের প্রবেশদ্বার হিসেবে পরিচিত সিরাজগঞ্জ জেলা দেশের বৃহত্তম নদী যমুনার তীরে অবস্থিত।নদীমাতৃক এই জেলার ওপর দিয়ে ছোট বড় অনেক নদ-নদী বয়ে চলেছে।এছাড়াও অসংখ্য খাল-বিল,হাওড়-বাওড়ে পরিপূর্ণ ২৪৯৮ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এই জেলাটি।

প্রায় প্রতি বছর বর্ষার মৌসুমে এই নদী-নালা,খাল-বিলগুলো কানায় কানায় ভরে ওঠে।অবশেষে এই অবাধ জলরাশির ঢল দুকূল ছাপিয়ে ছড়িয়ে পরে বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে।ফলে অসংখ্য গ্রাম,ফসলী জমি, রাস্তাঘাট হয়ে দেখা দেয় বন্যা।তো প্রতিবছরের ন্যায় এবারো বর্ষার পানিতে নদীগুলো কানায় কানায় ভরে উঠেছে।জেলার বৃহত্তম নদী পানি বিপদসীমার প্রায় ১০০ সে.মি. ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

যার ফলে নদীর তীরবর্তী প্রায় সকল গ্রাম,ফসলী জমি,রাস্তাঘাট প্লাবিত হয়েছে।বিশেষ করে জেলার কাজীপুর,চৌহালী, বেলকুচি, শাহাজাদপুর, কামারখন্দ উপজেলার যমুনা তীরবর্তী অঞ্চলগুলো বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পানি বন্দী হয়ে পড়েছে হাজারো মানুষ।

সিয়াম উদ্দিন খান

 

নদীর প্রবল স্রোতে এইসকল এলাকার নদী তীরবর্তী অঞ্চলগুলোতে ব্যাপক ভাঙনের সৃষ্টি হচ্ছে।ঘরবাড়ি, জায়গা-জমি বিলীন হয়ে গেছে নদীর অতল গভীরে।যার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অনেক পরিবার।রাস্তাঘাটগুলোর ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হওয়ায় শহরের সাথে এইসকল এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়েছে।

এছাড়া বিভিন্ন শাখা নদ-নদীর পানিও অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। যার ফলে নদী তীরবর্তী প্রায় সকল গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। মানুষের চলাচলের রাস্তাঘাট, এমনি অনেক হাট বাজারও পানিতে ডুবে গেছে। এর দরুন মানুষকে অনেক দূর্ভোগ পহাতে হচ্ছে। মোট কথা, বন্যার পানিতে সিরাজগঞ্জের মানুষ অনেক কষ্টের মধ্যে আছে। এ অবস্থা অব্যাহত থাকলে মানুষের দুর্ভোগের সীমা থাকবে না।

সাগর চন্দ্র রায়, বাংলা বিভাগ, লালমনিরহাট, তিনি ক্যাম্পাসলাইভকে জানান: বন্যার কারনে পরিষ্কার খাবার পানির সমস্যা। বাইরে যেতে হয় ভিজে। বন্যার পানির কারনে রান্নায় সমস্যা। বন্যার কারনে কর্মজীবী লোকদের কর্মক্ষেত্রে সমস্যা হয়।

সাগর চন্দ্র রায়

 

তৌফিক এলাহী আকাশ, ভুমি ব্যবস্থাপনা ও আইন বিভাগ, কুড়িগ্রাম, তিনি ক্যাম্পাসলাইভকে বললেন: কুড়িগ্রাম জেলার বেশ কয়েকজন জবি শিক্ষার্থীর বাসায় বন্যার পানি উঠেছে। আশ্রয় নিয়েছে আশ্রয় কেন্দ্র বাধ ও আশেপাশের উচু স্থানে। করোনা মহামারীর এই দূর্যোগের মাঝে বন্যা আসায় জীবিকাহীন হয়ে পড়েছে অনেক পরিবার।

তৌফিক এলাহী আকাশ

 

গিয়াস উদ্দিন, ইংরেজি বিভাগ, জামালপুর, তিনি ক্যাম্পাসলাইভকে জানান: বাড়ীর আশেপাশে বন্যার পানি, এদিকে আবার আবার ভার্সিটির অনলাইন ক্লাস। বাড়ীতে তো নেট পায়না। তাই ১০ মিনিটের মত পানি ভেংগে এই অনলাইন ক্লাস করে আসতে হয় খোলা মাঠ থেকে। এ যেন মড়ার উপর খরার ঘা।

গিয়াস উদ্দিন

 

ঢাকা, ২৮ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।