এ যেন একটি পরিবার


Published: 2020-04-20 18:16:47 BdST, Updated: 2020-06-06 22:43:29 BdST

সাজিদ আহমেদ,নোবিপ্রবিঃ সম্প্রতি করোনাভাইরাসের মহামারিতে বিপর্যস্ত পুরো বিশ্ব। প্রতিদিন বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা এবং আক্রান্তদের সংখ্যা। বাংলাদেশেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। বন্ধ রয়েছে সকল ধরণের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

এতে বিপর্যস্ত দেশের শিক্ষাব্যবস্থা। ভোগান্তিতে পড়েছে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) শিক্ষার্থীরা।এমতাবস্থায় নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের পাশে এগিয়ে এসেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।নিজের পরিবারের মত এগিয়ে আসছে একে অপরের সাহায্যে।এ যেন সবার দ্বিতীয় আরেকটি পরিবার।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে 'করোনা মোকাবিলায় নোবিপ্রবিয়ানের পাশে নোবিপ্রবিয়ান’ নামক একটি ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্ম তৈরি করা হয়। যেখানে সমস্যায় জড়িত শিক্ষার্থীদের জন্য সাহায্য চেয়ে পোস্ট করা হয়। এরপর তা সমাধান করা হয়। গত ১০ এপ্রিল দুপুর থেকে এর কার্যক্রম শুরু হয়।এ পর্যন্ত ৬৭ জন নোবিপ্রবিয়ানকে ১ লক্ষের অধিক টাকা উপহার দিয়েছেন নোবিপ্রবিয়ানরা।

এ বিষয়ে উদ্যোক্তারা বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শিক্ষার্থীরা পড়তে আসেন, যাদের অনেকেই আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল। আবার তাদের একমাত্র অবলম্বন টিউশন। কিন্তু বর্তমানে করোনা পরিস্থিতির কারণে টিউশনসহ বন্ধ আছে সবকিছু।

এসমস্ত শিক্ষার্থীদের একমাত্র উপার্জন ব্যবস্থাটাও আজ বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে, বাসা ভাড়া, খাদ্য সংকটসহ নানা সমস্যায় ভুগছেন তারা। তাই আমরা এই প্ল্যাটফর্ম তৈরি করেছি, যাতে নোবিপ্রবির সব শিক্ষার্থী করোনাকালীন একে-অপরকে সহযোগিতা করতে পারেন।

ফিশারিজ ইন মেরিন সায়েন্স বিভাগের শিক্ষার্থী ও নোবিপ্রবিয়ানের পাশে নোবিপ্রবিয়ান গ্রুপের কো-অর্ডিনেটর মাইনুদ্দীন পাঠান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থী করোনার এই পরিস্থিতিতে ঘরে খাবার খেতে কষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এমনও অনেক শিক্ষার্থী আছে যাদের বাসায় আয়ের কেউ নাই, টিউশন করে নিজে চলতো এবং বাসায় টাকা পাঠাতো কিন্তু এই মুহুর্তে সব বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছে এসব শিক্ষার্থীরা।

এছাড়া এলাকায় চেয়ারম্যান, মেম্বার ত্রাণ দিলেও সে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ে বলে আত্মসম্মানবোধ রক্ষার্থে ত্রাণের জন্য কোথাও যেতে পারছেনা। এসকল শিক্ষার্থীদের আমরা উপহার হিসেবে কিছু সহযোগিতা করে পাশে দাঁড়াতে চাই। এছাড়া শিক্ষকদের সহযোগিতা ও অনুপ্রেরণায় আমাদের কার্যক্রম এতদূর এসেছে। আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্থিকভাবে অসচ্ছল প্রতিটি শিক্ষার্থীকে সহযোগিতা করার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও প্রক্টর ড. নেওয়াজ মোহাম্মদ বাহাদুর বলেন,আমি তাদের এই মহৎ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই। আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ইতিমধ্যে একদিনের বেতন প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে পাঠিয়েছি। পাশাপাশি আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষক সমিতি একটা ফান্ড গঠন করার চেষ্টা করছি।

দেশের এই ক্লান্তিলগ্নে শিক্ষক, শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে সবাইকে নিজ নিজ জায়গা থেকে এগিয়ে আসতে হবে। তা হলেই এই দুর্যোগ মোকাবিলা করা সম্ভব। সবাই বাসায় থাকুক, নিরাপদে থাকুক এটাই কামনা করছি।

ঢাকা, ২০ এপ্রিল (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এসএ//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।