‘মুজিব শতবর্ষে বস্তিবাসীদেরকে গৃহ বরাদ্ধে পরামর্শ’


Published: 2020-03-12 22:58:57 BdST, Updated: 2020-04-03 12:59:02 BdST

এম.এ. হাসেমঃ "মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে প্রত্যেক গৃহহীনকে গৃহ বরাদ্দের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব গৃহহীন মানুষকে ঘর নির্মান করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়ে বলেন, মুজিব বর্ষে দেশের কোন মানুষ গৃহহীন থাকবে, এটা হতে পারে না। ৭মার্চ তিনি এ কথা বলেন। মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে প্রত্যেক গৃহহীনদেরকে গৃহ বরাদ্দের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ প্রতিশ্রুতিকে দেশবাসীসহ আপাময় জনগণ স্বাগত জানিয়েছে।"

মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে প্রত্যেক গৃহহীনদেরকে গৃহ বরাদ্ধের আপনার প্রতিশ্রুতিকে দেশবাসীসহ অপামর জনগণ স্বাগত জানিয়েছে। পাশাপাশি মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে আপনার এই উদ্যোগটি গৃহহীনদের মাঝে একটি গৃহের স্বপ্ন বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে। এক জরীপে প্রতিয়মান হয় যে, ঢাকা শহরে যতগুলো বস্তি রয়েছে তাতে প্রায় ১০,০০০/১২,০০০ পরিবার অতি মানবতার সহিত জীবন যাপন করছে। প্রতিনিয়তই কোন না কোন বস্তিতে আগুন লেগে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে ঐ দরিদ্র ও অসহায় পরিবারগুলো। এদের একটি স্থায়ী ব্যবস্থা হলে তাদের সারা জীবনের বাসস্থানের একটি ব্যবস্থা হবে।

প্রত্যেক পরিবারকে ৫০০ বর্গফুট এর একটি করে ফ্ল্যাট করে দিলে প্রতি ফ্ল্যাটে ৮,০০,০০০ (আট লক্ষ) টাকা খরচ হবে। আমার পরামর্শ রইল, ঢাকার অদুরে ২৫ বিঘা জমির মধ্যে কয়েকটি ২৫ তলা বিল্ডিং করতে হবে যাতে করে প্রায় ১০ হাজার পরিবারের বাসস্থানের ব্যবস্থা হয়।

প্রতি ফ্ল্যাট ৮ লক্ষ টাকা হিসাবে ১০ হাজার ফ্ল্যাটের সম্ভাব্য ব্যয় ৮০০ কোটি টাকা হতে পারে। ঢাকা শহরে করাইল বস্তি, মিরপুর বস্তি, কমলাপুর বস্তিসহ আনাচে কানাচে ছোটখাটো সকল বস্তির সবার একটি স্থায়ী আবাসনের ব্যবস্থা করা যাবে। এতেকরে আপনার প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়নও হবে।

ঢাকা সিটিতে যে যানযট, মাদকদ্রব্য সেবী সহ অসামাজিক কার্যকলাপ যে হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে তাহা ঐ সমস্ত বস্তিবাসীদের একটি প্রভাব রয়েছে। একটি স্থায়ী ব্যবস্থা হলে যানযট, মাদকদ্রব্যসেবীদের অবাধ চলাফেরা ও অসামাজিক কার্যকলাপ বন্ধ হবে। এতেকরে ঢাকা শহরের মানুষ নিরাপদ নির্বিঘ্নে বসবাস ও চলাফেরা করতে পারবে। তাতে করে আপনার ও আপনার সরকারের সুনাম অক্ষুন্ন থাকবে। মানবিক কারনে দেশ ও জাতির স্বার্থে এই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করলে আপনি জীবদ্বসায় ও আপনার মৃত্যুর পরও ঢাকা সিটির জনগণ আপনাকে স্বরণ করবে।

বর্তমানে আপনি জনস্বার্থে দেশে অনেক বড় বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন করছেন এবং কিছু কিছু প্রকল্প শেষ হয়েছে। এই গৃহহীনদের গৃহ নির্মানের প্রকল্পটি আপনার জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রকল্প। এই প্রকল্পে টাকার উৎস হিসাবে বিদেশী দাতা সংস্থা দেশগুলোর অনেকেই সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে প্রস্তুত আছে। যেমন সৌদি আরব, জাপান, মালয়েশিয়া, কাতার, দুবাইসহ মুসলিম দেশগুলো। তাছাড়া মানবিক কারনে আরও অনেক দেশই সাহায্য করবে।

আপনি বহুবারই বলেছেন গৃহহীনদেরকে গৃহনির্মাণ করে দিবেন, তবে কিছু কিছু গৃহ নির্মাণ করেছেন যা বিচ্ছিন্নভাবে আছে। একটি সামাজিক ব্যবস্থা উন্নতির জন্য এই প্রকল্পটি একান্ত প্রয়োজন। বিদেশী বহু কোম্পানী আছে যারা মানবতার খাতিরে সাহায্য হিসাবে আর্থিক অনুদান দিবে, তবে আমাদের পরিকল্পনার প্রতি স্বদিচ্ছা থাকতে হবে।

আমি অত্যন্ত বিনয়ের সহিত আপনাকে অনুরোধ করছি, ঢাকা শহরের বস্তির কারণে বহু ছেলে-মেয়ে নষ্ট হচ্ছে এবং বিপদগামী হয়ে যাচ্ছে। এই বিষয়ে আপনার সহযোগিতা ছাড়া অন্য কোন উপায় নাই।

আপনি যদি এই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করতে চান, তাহলে চায়নিজ ও জাপানিজরা ১ বছরের মধ্যে এই ধরনের প্রকল্প বাস্তবায়ন করে দিতে সক্ষম হবে। বাকিটা আপনার সিদ্ধান্ত ও সহযোগিতা একান্ত প্রয়োজন। আপনার প্রতি আমার অনুরোধ রইল, মানবিক কারণে এই প্রকল্পটি বাস্তবায়নের যথাযথ সদয় সিদ্ধান্ত এবং সম্মতি জ্ঞাপন করবেন।

 

লেখকঃ

এম.এ. হাসেম

প্রাক্তন সংসদ সদস্য

ঢাকা, ১২ মার্চ (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)// টিআর

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।