যে কারণে আইসোলেশন সেন্টারে করোনা রোগীর অনশন


Published: 2020-07-06 00:24:57 BdST, Updated: 2020-08-04 11:30:31 BdST

কক্সবাজার লাইভ: মরণঘাতি করেনাভাইরাসে আক্রান্তের অনশন নিয়ে তোলপাড় চলছে। ওই ব্যক্তিকে নিয়ে চলছে নানান আলোচনা ও সমালোচনা। কক্সবাজারের উখিয়ায় এক এনজিও কর্মীর দুর্ব্যবহারের প্রতিবাদে উখিয়া SARI আইসোলেশন এন্ড ট্রিটমেন্ট সেন্টারে নিজ বেডেই (বেড নম্বর D#2।) অনশন করছেন করোনা আক্রান্ত এড. মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী।

আজ সন্ধ্যা সোয়া ৬ টা থেকে এ ব্যতিক্রমী প্রতিবাদ শুরু করেন কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের এই সিনিয়র আইনজীবী। করোনা ভাইরাস ‘পজেটিভ’ হয়ে গত ২৮ জুন থেকে সেখানে ভর্তি আছেন তিনি। গুরুতর অসুস্থ থাকা সত্বেও অবস্থান ধর্মঘটের কারণে খাওয়া দাওয়া, ওষুধপত্র সেবন করেননি এডভোকেট মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী।

কোটি টাকা ব্যয় করে উখিয়া উপজেলার টিএন্ডটি মাঠের দক্ষিণ প্রান্তে জাতিসংঘের অংগ প্রতিষ্ঠান ইউএনএইচসিআর উখিয়া SARI আইসোলেশন এন্ড ট্রিটমেন্ট সেন্টার টি কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের অনুরোধে দ্রুততম সময়ে নির্মাণ করে। গত ২১ মে হাসপাতালটি জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন উদ্বোধন করেন।

২৭ মে থেকে সেখানে কোভিড-১৯ রোগীদের ভর্তি দেওয়া শুরু হয়। উখিয়া SARI আইসোলেশন এন্ড ট্রিটমেন্ট সেন্টারের পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছে রিলিফ ইন্টারন্যাশনাল নামক এনজিও সংস্থা। চীনের তৈরী মেয়াদোত্তীর্ণ কিছু ওষুধের নাম, কোম্পানি, তারিখ, মেয়াদ কেটে ফেলে জোর করে রোগীদের অন্ধকারে রেখে ওষুধগুলো খাওয়ানো হচ্ছে বলে রোগীদের অভিযোগ।

রোগীরা জানান, চীনে ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসের তৈরি ORS (খাওয়ার স্যালাইন) কৌশলে রোগীদের খাওয়ানো হচ্ছে। RELIEF ইন্টারন্যাশনাল এভাবে চীনের তৈরী মেয়াদোত্তীর্ণ, নিন্মমানের ওষুধ বাণিজ্যিকভাবে ক্রয় করে উখিয়া SARI আইসোলেশন এন্ড ট্রিটমেন্ট সেন্টারে ভর্তি থাকা রোগীদের খাওয়াচ্ছে।

কোন রোগী ওষুধের নাম, কোম্পানির নাম, ওষুধের মেয়াদের বিষয় জানতে চাইলে সেসব রোগীদের উপর ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ করে সংস্থাটির লোকজন। জানা গেছে, আইনজীবী ও গণমাধ্যমকর্মী মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানীকে নিয়মিত প্রদত্ত সেফিরক্সিম ১ গ্রাম নামক ৪ জুন সকাল সাড়ে টার একটি ইনজেকশন চিকিৎসক, নার্সেরা অবহেলা করে তাঁকে দেননি।

ফলে তাঁর রোগ বেড়ে যেতে থাকে। কিন্ত শনিবার সকালের ইনজেকশনটি দিতে কেন বিকেল পর্যন্ত এড. মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানীকে প্রদান করা হয়নি, তা জানতে চাইলে RELIEF এনজিও কর্মী ‘সাজু’র নেতৃত্বে ৫/৬ লোক রোববার (৫ জুন) তাঁর উপর মারমুখী হয়ে উঠে। তার প্রতিবাদে এড. মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী তাৎক্ষণিকভাবে নিজ D # 2 নম্বর বেডে অবস্থান অনশন শুরু করেন।

উখিয়া SARI আইসোলেশন এন্ড ট্রিটমেন্ট সেন্টারটি RELIEF নামক সংস্থাকে ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব থেকে অপসারণের দাবিতে রোববার (৫ জু সন্ধ্যা অবস্থান ধর্মঘট পালনকালে খাওয়া দাওয়া, ওষুধ পত্র সেবন তিনি বন্ধ করে দেন। এ অবস্থায় তাঁর শরীরের অবস্থার যেকোন সময় মারাত্মক অবনতি হতে পারে বলে উখিয়া SARI আইসোলেশন এন্ড ট্রিটমেন্ট সেন্টারটিতে ভর্তি থাকা ক’জন কোভিড-১৯ রোগী রাতে জানিয়েছেন।

SARI আইসোলেশন এন্ড ট্রিটমেন্ট সেন্টারটিতে ভর্তি থাকা রোগীদের খাওয়ার জন্য যে রুটিগুলো দেওয়া হয়, সে গুলো UNHCR এর ত্রিপল এর চেয়েও অনেক বেশি শক্ত বলে জানা গেছে। এদিকে, RELIEF কোভিড-১৯ রোগীদের জীবন নিয়ে প্রতারণা করার বিষয়ে উখিয়ার ইউএনও মোঃ নিকারুজ্জামানকে অভিযোগ করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এনিয়ে বেকায়দায় পড়েছে প্রশাসন।

ঢাকা, ০৫ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।