''১৪০০ বছর পূর্বে কোয়ারেন্টিনের কথা বলেছেন মুহাম্মদ (সা.)''


Published: 2020-03-25 17:34:24 BdST, Updated: 2020-08-15 05:21:54 BdST

লাইভ ডেস্কঃ সারাবিশ্ব করোনা আতঙ্কে কাঁপছে। বাংলাদেশও আছে সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রাণঘাতি এই ভাইরাসের মোকাবিলায় গ্রহণ করা হয়েছে নানা উদ্যোগ। এমনই ভয়াবহ সময়ে মার্কিন একজন গবেষক জানিয়েছেন, মহামারির সময় নামাজ ও কোয়ারেন্টিনে থাকার কথা বলেছেন মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)। মার্কিন ম্যাগাজিন নিউজউইকে এক মতামতধর্মী লেখায় স্কলার ও প্রফেসর ক্রেইগ কনসিডাইন।

কেবল নামাজের মাধ্যমেই করোনাভাইরাসকে দমন করা সম্ভব কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে মার্কিন এই গবেষক লিখেন, মহামারি প্রতিরোধ ও লড়াইয়ে পরামর্শ দিয়েছেন মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)।

ইমিউনোলজিস্ট ও বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধ করতে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। তবে হাদিসের বরাত দিয়ে কনসিডাইন বলেছেন, ১৪০০ বছর পূর্বেই মুহাম্মদ (সা.) এমন পরামর্শ দিয়েছিলেন।

মুহাম্মদ (সা.) বলেছেন, যদি তুমি শুনতে পাও যে কোনও জায়গায় প্লেগ ছড়িয়ে পড়েছে, তাহলে সেখানে যাওয়া থেকে বিরত থাকো; কিন্তু তুমি যেখানে আছো সেখানে প্লেগ ছড়িয়ে পড়লে ওই স্থান ত্যাগ করো না।

মহানবী (সা.) আরও বলেছেন, যাদের সংক্রামক রোগ রয়েছে তাদের সুস্থদের থেকে দূরে থাকা উচিত। কনসিডাইন তার লেখায়, নবীজীর আরেকটি হাদিস, ‘পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা ঈমানের অঙ্গ’ সেটিরও উল্লেখ করেছেন।

সকাল বেলা ঘুম থেকে ওঠার পরেই হাত ধোয়ার উপরেও গুরুত্ব দিয়েছেন মুহাম্মদ (সা.)। তিনি বলেন, ঘুম থেকে ওঠার পর তোমাদের হাত ধৌত করো; কেননা ঘুমের সময় তোমার হাত কোথায় ছিল তা তুমি জানো না। নবীজীর আরেকটি হাদিসে বলা হয়েছে, খাবারের আগে ও পরে হাত ধোয়ার মধ্যে বরকত রয়েছে।

কিন্তু কেউ যদি অসুস্থ হয়ে যায় তাহলে তার কী করণীয়? এ বিষয়ে মুহাম্মদ (সা.) বলেন, আল্লাহ তাআলাই রোগ ও ওষুধ সৃষ্টি করেছেন এবং প্রত্যেক রোগের চিকিৎসাও তিনি সৃষ্টি করেছেন। অতএব, তোমরা চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করো।

বিশ্বাস ও যুক্তির মধ্যে কীভাবে ভারসাম্য রাখতে হবে- সে প্রসঙ্গে কনসিডাইন জানান, সম্প্রতি অনেকেই বলছেন যে সামাজিক দূরত্ব ও কোয়ারেন্টিনের বেসিক নিয়ম মেনে চলার চেয়ে নামাজ পড়াটা উত্তম হবে।

রোগের চিকিৎসায় নামাজ একমাত্র ওষুধের বিষয়ে মুহাম্মদ (সা.) কী বলতেন? এমন বিষয়ে নবীজীর আরেকটি হাদিসকে তুলে ধরেন মার্কিন এই গবেষক। আল-তিরমিজীতে বর্ণিত ওই হাদিসে বলা হয়, এক ব্যক্তি বলল, হে আল্লাহর রাসূল! আমি কি উট বেঁধে রেখে আল্লাহর ওপর ভরসা করব, না বন্ধনমুক্ত রেখে? তিনি বললেন, উট বেঁধে নাও, অতঃপর আল্লাহর ওপর ভরসা করো।

প্রসঙ্গত, এই মুহূর্তে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত অবস্থায় আছেন ২ লাখ ৯৪ হাজার ৮৬৫ জন, যাদের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় আছেন ১৩ হাজার ৯৫ জন। বাকি ২ লাখ ৮১ হাজার ৭৭০ জনের অবস্থা কিছুটা ভাল। এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত ৮৫ শতাংশ মানুষ সুস্থ হয়ে উঠেছেন। মৃত্যু হয়েছে ১৫ শতাংশের।

ঢাকা, ২৫ মার্চ (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।