২০২০-এ প্রাপ্তি, ২০২১-এ প্রত্যাশা'বিশের বিষ কেটে একুশে আসুক বসন্ত'


Published: 2020-12-28 19:50:36 BdST, Updated: 2021-01-19 21:06:59 BdST

প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি মিলিয়ে বিদায় নিল আরো একটি বছর। ২০২০ এর বিষক্রিয়ায় অতিষ্ঠ গোটা বিশ্বের মানুষ। লাভ-ক্ষতির হিসেবে এ বছরে পাওয়ার চেয়ে হারানোর মাত্রা বেশি। তবে ২০২১ সালকে নতুনভাবে দেখতে চায় বিশ্ববাসী। ২০২০ সালের প্রাপ্তি, ২০২১ সালের প্রত্যাশা নিয়ে কী ভাবছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮ অনুষদের শিক্ষার্থীদের মতামত তুলে ধরেছেন ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম এর ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি আজাহার ইসলাম


সারমন সানোয়ার জিনান, ল’ অ্যান্ড ল্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিভাগ, আইন অনুষদ
সুস্থতা, সুখ ও সমৃদ্ধিতে পরিপূর্ণ হোক ২০২১: ২০২০ সাল যতটা না প্রাপ্তির তার চেয়ে বেশি হারানোর। করোনাকালীন যতটা সামাজিক দূরত্ব তৈরি করেছে, ঠিক ততটাই পরিবারের সাথে ঘনিষ্ঠ সময় কাটানোর সুযোগ হয়েছে। লকডাউনের সমগুয়লোয় উপলদ্ধি করেছি জীবনের মূল্য।

সারমন সানোয়ার জিনান

 

তৃপ্তি পেয়েছি পৃথিবীতে নিঃস্বার্থ কিছু মানুষের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে দেখে। তাদের সংস্পর্শে গিয়ে মনে হয়েছে, প্রযুক্তির এই যুগেও মানবতাবোধ মেশিনের চাকায় পুরোপুরি পিষ্ট হয়নি। নতুন বছর আগমনী বার্তা নিয়ে দরজায় কড়াঘাত করছে। সবকিছু ফের নবরূপে সাজবে এই কামনা করি। পৃথিবীর সর্বস্তরে সুস্থতা, সুখ ও সমৃদ্ধিতে পরিপূর্ণ হোক ২০২১। সম্মিলিত কণ্ঠ ধ্বনিত হোক সকল প্রতিক‚লতার বিরুদ্ধে।

শ্যামলী তানজিন অনু, বাংলা বিভাগ, কলা অনুষদ
শিক্ষাক্ষেত্রে ঘাটতি যেন ২০২১শে পূর্ণ হয়: ‘দুই হাজার বিশ’ এ যেনো বিষে বিষাক্ত বছর। থমকে গিয়েছে পৃথিবী। কোভিড-১৯ থেকে শুরু করে ধর্ষণ, খুন, গুম, কি হয়নি এ বছরে? বিগত সব রেকর্ড অতিক্রম করেছে এই বিষাক্ত বছর। বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে শিক্ষার্থীরা। দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রায় ১০ মাস বন্ধ। ২০২১ সালেও করোনার ভয়াল থাবা থেকে বাঁচবো কিনা নিশ্চয়তা নেই।

শ্যামলী তানজিন অনু

 

শিক্ষাক্ষেত্রে যে ঘাটতি তৈরি হয়েছে তা যেনো ২০২১ সালে পূর্ণ হয়। পাশাপাশি দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার পরিবর্তন ও এবছর যে বেকারত্ব সৃষ্টি হয়েছে তা ২১শে হ্রাসকরণের ব্যবস্থা চাই। অতঃপর দুর্নীতিমুক্ত, ধর্ষণমুক্ত, সুস্থ মানবিক, বাক স্বাধীনতা নিশ্চিত করে একটি মনের মতো দেশ চাই। সরকার যথাযথ ব্যবস্থা নিবে সেই প্রত্যাশা।

নুর উদ্দীন, ফলিত রসায়ন ও কেমিকৌশল বিভাগ, প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদ
দেশের শিক্ষাঙ্গন যেন পড়ে গেছে ব্ল্যাক হোলে: করোনায় বন্ধ দেশের সকল শিক্ষাঙ্গন। যেন পড়ে গেছে ব্ল্যাক হোলে। একদিকে করোনা যুদ্ধে ব্যস্ত মানুষ, অন্যদিকে সীমান্ত হত্যায় ন্যস্ত বিএসএফ। বেড়ে গেছে নারী ও শিশু নির্যাতন। আর বাল্যবিবাহ সে তো নিত্যদিনের ঘটনা। এত কিছুর পরও আশা জাগিয়েছে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, পদ্মা সেতু, রেমিটেন্স রিজার্ভের মত কিছু ঘটনা। ২০২১শে সবার আগে চাওয়া করোনা ভ্যাকসিন।

নুর উদ্দীন

 

এছাড়াও প্রত্যাশা করি স্বাস্থ্যখাতকে নতুন করে সাজিয়ে সুচিকিৎসা নিশ্চিত, সকলের জন্য আইন সমান, অপরাধীর অপরাধ বিবেচনায় শাস্তির ব্যবস্থা, নারী নির্যাতন ও ধর্ষণ বিনাশ, রাজনীতির কালো ছায়া থেকে আইন আদালত মুক্ত হোক। গনতন্ত্রের পথকে মসৃণ করে এক অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে উঠবে সেটাই নতুন বছরে প্রত্যাশা।

সাদীয়া মাহমুদ মীম, বায়োটেকনোলজি অ্যান্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, জীববিজ্ঞান অনুষদ
বিশের বিষ কেটে একুশে আসুক বসন্ত: ‘বিষে বিষক্ষয়’ বলে একটা প্রবাদ আছে। এই বছরটাও যেন ‘বিশে বিষক্ষয়’। বছরের শুরুতে কোভিড-১৯ সারাবিশ্বের জন্য হয়ে উঠলো এক আতঙ্ক। মৃত স্বজনের শেষ যাত্রাও দিতে হলো কয়েকমিটার দূরে থেকে। মহামারির এই দূর্যোগেও খবরের পাতায় মোটা হেডলাইনে উঠতে থাকলো একের পর এক শিশু ও নারীধর্ষণের খবর।

সাদীয়া মাহমুদ মীম

 

দূর্ঘটনায় নিয়ত হয়ে প্রাণ হারালো কত সবুজ প্রাণ! লকডাউনে অলস সময় কাটাতে কাটাতেই মানসিকভাবে হতাশা আর অসুস্থতা বয়ে এলো ঘরে ঘরে। বছরের শেষে পদ্মাসেতু দৃশ্যমান হলো। সবার চোখে মুখে ফুটলো হাসির আলো। লেগে থাকুক এ আলো। সবারই একই চাওয়া, কেটে যাক দুঃসময়। সকলের জীবন থেকে বিষ কেটে যাক এই বিশ সালেই। একুশে আসুক বসন্ত।

সুকান্ত দাস, পরিসংখ্যান বিভাগ, বিজ্ঞান অনুষদ
গরল সরিয়ে অমৃতের সন্ধান পাক বিশ্ব: বৈশ্বিক মহামারির করোনা সারা বিশ্বকে করেছে তছনছ। তবে অনেক অপ্রাপ্তির মধ্যে কিছু প্রাপ্তিও রয়েছে। অনেকেই বিভিন্ন কারণে পরিবার থেকে দূরে থাকতেন। মুখে কেউ কিছু না বললেও অনেকটা দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছিল নিজেদের মধ্যে। করোনার কারণে লকডাউনের সময় বাড়িতে থাকতে হয়েছে।

সুকান্ত দাস

 

পরিবারের সঙ্গে থেকে সম্পর্কটা আরো অনেক ভালো হয়েছে। মানুষ আগের তুলনায় অনেক বেশি স্বাস্থ্য সচেতন হয়েছে। ২০২০ সালের বিষ বিষিয়ে দিয়েছে মানুষের জীবন। নতুন বছরে একটাই চাওয়া গত বছরের গরল সরিয়ে অমৃতের সন্ধান পাক বিশ্ব। সুস্থ পৃথিবীর আশা নতুন বছরে।

মেহেজাবিন মিমি, ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগ, ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদ
আঁধার কেটে আসুক আলোর সন্ধান: করোনা মহামারির কারণে কেউ হারিয়েছে প্রিয়জন, কেউ চাকরি, কেউ ব্যবসা। বেকার হয়ে পরেছে বহু জনগোষ্ঠী। এতো অপ্রাপ্তি যেনো এই প্রথম দেখলো বিশ্ব। আসছে নতুন বছর। নতুন বছরে একটাই চাওয়া করোনা মহামারির অবসান ঘটুক। আসুক আলোর সন্ধান।

মেহেজাবিন মিমি

 

ফিরতে চাই প্রিয় ক্যাম্পাসে, ক্লাসরুমে। চায়ের আড্ডায় মেতে থাকতে চাই প্রিয় বন্ধুদের সাথে। ছুটে বেড়াতে চাই ক্যাম্পাসের প্রতিটি চত্বর। যারা করোনার কারণে বেকার হয়ে পড়েছিলেন তারা যেনো তাদের কর্মে ফিরে যেতে পারেন। ২০২১শে যেনো আলোর সন্ধান পাই সৃষ্টিকর্তার কাছে এটাই প্রত্যাশা।

আবদিম মুনিব, আল-কোরআন অ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগ, ধর্মতত্ত্ব অনুষদ
২০২০ অনেক শিক্ষা দিয়েছে: ২০২০ কে ঘিরে রয়েছে নানা প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির হিসেব। আর ২০২১ কে ঘিরে নতুন বছরের সার্বিক প্রত্যাশা। শহরের ন্যায় প্রান্তিক অঞ্চলেও পৌঁছেছে ডিজিটাইজেশনের ছোঁয়া। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালনের অপেক্ষায় বাংলাদেশ। আর সারা বিশ্বে আজ বাংলার জয়জয়কার। ২০২০ সাল আমাদেরকে অনেক শিক্ষা দিয়েছে। বিশেষ করে ধৈর্য ধারণ করা।

আবদিম মুনিব

 

এর পাশাপাশি সুযোগ করে দিছেছে পারিবারের সাথে আনন্দঘন সময় কাটানোর, নতুন নতুন উদ্যোক্তা হওয়ার। নতুন বছরের প্রত্যাশা রয়েছে অনেক। যার মধ্যে বেকারত্ব দূরীকরণ, গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠা, দারিদ্র্যতা দূরীকরণ, নাগরিকদের অধিকার সুনিশ্চিত করা, ধর্ষণ ও হত্যা বন্ধ, আইনের সুশাসন প্রতিষ্ঠা, সড়কে মৃত্যু হ্রাস করা, বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণার মান বৃদ্ধি উল্লেখযোগ্য। পরিশেষে বাংলাদেশ তার কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছে যাক এটাই কামনা।

সুমাইয়া তাজনিন ইমা, লোকপ্রশাসন বিভাগ, সমাজবিজ্ঞান অনুষদ
নতুন বছরে ৫ চাওয়া: নতুন বছর মানেই নতুন সম্ভাবনা, অনেক বেশি চ্যালেঞ্জ। নতুন বছর প্রথমত প্রত্যাশা করোনামুক্ত সুস্থ পৃথিবী। আশা করি ভ্যাকসিন সকলের জন্য সুলভ ও সহজলভ্য হবে। দ্বিতীয়ত, নারীর প্রতি সকল বৈষ্যম্যের অবশান ঘটিয়ে সর্বক্ষেত্রে নিরাপত্তা নিশ্চিত চাই।

সুমাইয়া তাজনিন ইমা

 

তৃতীয়ত, নতুন বছরে শিক্ষাব্যবস্থার যুগপযোগী পরিবর্তন এবং মেধা পাচার বন্ধ দেখতে চাই। চতুর্থত, সকল প্রকার দুর্নীতি, ধর্মীয় গোড়ামি ও কুসংস্কারের মুলোৎটপান এবং সবক্ষেত্রে সমান অধিকার প্রতিষ্ঠিত হবে বলে আশাবাদী। সর্বোপরি, দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যহত থাকবে এবং দেশ আরও সমৃদ্ধশালী হবে এই প্রত্যাশায়।

ঢাকা, ২৮ ডিসেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।