ইবি ছাত্রলীগ নেতার পরিবারকে হুমকি, ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ


Published: 2019-11-02 20:18:31 BdST, Updated: 2019-11-18 22:59:51 BdST

ইবি লাইভ: ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শাখা ছাত্রলীগের সাবেক ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান লালনের বাড়িতে গিয়ে পরিবারকে হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক কর্মচারীর বিরুদ্ধে। হুমকিদাতা ওই কর্মচারী ইলিয়াস জোয়ার্দারসহ চারজনকে আটক করেছে পুলিশ।

এদিকে ওই কর্মচারীসহ এ ঘটনায় জড়িত এবং ইন্ধনদাতাদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারের দাবি জানিয়ে ক্যাম্পাসে দুই দফা বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে ছাত্রলীগকর্মীরা। এ ঘটনায় শনিবার এক ঘণ্টা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক বন্ধ করে রাখে তারা। অভিযুক্তদের রবিবার ১২টার মধ্যে শাস্তি নিশ্চিত না করলে কঠোর আন্দোলনে যাওয়ার ঘোষণা দেন ছাত্রলীগকর্মীরা।

গত শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারী ইলিয়াস জোয়ার্দ্দারসহ বেশ কয়েকজন মিজানুর রহমান লালনের বাড়িতে গিয়ে পরিবারকে হুমকি দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। লালন এবং তার পরিবারের ভাষ্যমতে, শুক্রবার বিকেল থেকেই ইলিয়াস তার সহযোগীদের নিয়ে লালনের গ্রামে মাইক্রোবাসসহ (ঢাকা মেট্রো-চ ১৪১৮৬২) ঘোরাফেরা করে।

পরে সন্ধ্যায় গ্রামের বাড়িতে যান। সেখানে লালনের পরিবারকে লালনের ব্যাপারে হুমকি দেন। তারা বলেন, লালনের সাহস অনেক বেড়ে গেছে সে ক্যাম্পাসে ভিসির বিরুদ্ধে আন্দোলন করে। তাকে এরপর থেকে এ ধরনের কর্মকাণ্ডের ব্যাপারে সতর্ক থাকতে বলবেন অন্যথায় ওর সমস্যা হবে। এ সময় তারা লালনের প্রাণনাশের হুমকিও দেয় বলে দাবি করেন লালন।

লালনের বাড়িতে হুমকি দেওয়ার খবর এলাকাবাসীর মাঝে ছড়িয়ে পড়লে তারা মোটরসাইকেল নিয়ে তাদেরকে ধাওয়া দেয়। পরে পুলিশকে জানালে মিরপুর থানার অধীন আমলা বাজার ফাঁড়ি পুলিশ গিয়ে চারজনকে গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তার হওয়া অন্যরা হলো, শেখপাড়ার বাসিন্দা উজ্জ্বল জোয়ার্দার, গাংনীর বেদবাড়ীয়া গ্রামের বাসিন্দা সবুজ ও হারুন। তারা মিরপুর থানাধীন ওই পুলিশ ফাঁড়িতে আটক রয়েছেন বলে জানা গেছে। ফাঁড়ি পুলিশ রাতেই আটককৃতদের কুষ্টিয়া ডিবির কাছে হস্তান্তর করা হয়।

কুষ্টিয়া ডিবির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, পুলিশ ইবি কর্মচারীসহ চারজনকে আমাদের কাছে হস্তান্তর করেছিল। ঘটনা যেহেতু মেহেরপুরের গাংনী থানায় তাই আমরা আটককৃতদের গাংনীতে পাঠিয়েছি।

ইবিতে ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিল

এদিকে ছাত্রলীগ নেতা লালনের বাড়ি গিয়ে পরিবারকে হুমকি দেওয়ার খবরে ক্যাম্পাসে দুই দফা বিক্ষোভ মিছিল করেছে ছাত্রলীগকর্মীরা। শুক্রবার রাতে তাৎক্ষণিক মিছিল করে তারা। পরবর্তীতে শনিবার বেলা ২টার দিকে দলীয় টেন্ট থেকে একই দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল বের করে তারা। মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে গিয়ে ফটক আটকে দেয়।

এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের দুপুর দুইটার শিফটের গাড়ি ক্যাম্পাস ছাড়তে পারেনি। প্রধান ফটক বন্ধ করে প্রশাসন ভবনের সামনে সমাবেশ করে কর্মীরা। পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সাথে দেখা করে ছাত্রলীগের প্রতিনিধিদল।

এ সময় তারা রবিবার বেলা ১২টার মধ্যে ইলিয়াসসহ এ ঘটনায় জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিত না করলে কঠোর আন্দোলনে যাওয়ার হুমকি দেয়। পরে প্রশাসনের আশ্বাসে দুপুর ৩টার সময় প্রধান ফটক খুলে দেয় তারা।

ইবি ছাত্রলীগের সাবেক ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান লালন ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, বিভিন্ন সময় ক্যাম্পাসে দূর্নীতিবিরোধী আন্দোলন করায় আমার বাড়িতে সাবেক প্রক্টর ড. মাহবুবর রহমান লোক পাঠিয়ে হুমকি দিয়েছে। আমি আমার ও পরিবারের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত। আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন।

এ বিষয়ে সাবেক প্রক্টর প্রফেসর ড. মাহবুবর রহমান ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, এটি একটি অবান্তর অভিযোগ। আমি লালনের বিরুদ্ধে মামলা করার পর থেকেই তা প্রত্যাহারের জন্য বিভিন্নভাবে তারা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এটি তারই একটি উপশম।

ভিসি প্রফেসর ড. হারুন-উর-রশিদ আসকারী ক্যাস্পাসলাইভকে বলেন, আমাদের কোনো শিক্ষক-কর্মকর্তা বা কর্মচারী আটক হলে আমাদের শৃঙ্খলাবিধি অনুযায়ী তাকে বরখাস্ত করা হবে।

 

ঢাকা, ০২ নভেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।