ইবি শিক্ষার্থী : পিতার গাড়ি চাপায় ছেলের নির্মম মৃত্যু


Published: 2020-03-26 10:24:09 BdST, Updated: 2020-03-28 20:04:39 BdST

ইবি লাইভঃ গাড়ি চাপায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) আইন বিভাগের ৩০তম ব্যাচের (১৭-১৮ সেশন) শিক্ষার্থী শিহাব আহমেদ (২২) মারা গেছেন। বুধবার দিবাগত রাতে কুষ্টিয়ার মীরপুর উপজেলার পূর্ব টুনিয়াপাড়া গ্রামের চেয়ারম্যান মোড় নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

তার চাচতো ভাই বিদ্যুৎ ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, শিহাবের বাবা কাঠের গুড়ার ব্যবসা করত। নিজেদের গাড়িতে করে কাঠের গুড়া নিয়ে মধ্যরাতে বাড়ি ফিরছিলেন শিহাব, ছোট ভাই সজিব, তার বাবা এবং আরেক চাচতো ভাই।

শিহাব আর ওর ছোট ভাই গাড়ির সামনে বসে ছিলেন। প্রতিমধ্যে নিজ গ্রাম পূর্ব টুনিয়াপাড়ার চেয়ারম্যান মোড়ে আসলে সামনে বিড়াল দেখে গাড়ি ব্রেক করে শিহাবের বাবা। তাৎক্ষনিক গাড়ি উল্টে গেলে ওরা দুই ভাই গাড়ির নিচে চাপা পড়ে। নিজ সন্তানদের এমন অবস্থা দেখে তার বাবা সড়কে বেহুশ হয়ে পড়ে থাকে। রাত গভীর হওয়ায় তাদের সাহায্য করার মতো আশেপাশে কোন লোক ছিল না। দীর্ঘ সময় পর আশেপাশের কিছু লোক তাদের এ অবস্থা দেখে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে। পরে সেখান থেকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া সদরে নিতে নিতে মশানবাজার পার হলেই শিহাব মারা যায়। তবে তার ছোট ভাই সজিব এখন সুস্থ আছে বলে জানায় সে।

এদিকে শিহাবের জানাযার নামাজ আজ বেলা ১১ টায় তার গ্রাম পূর্ব টুনিয়াপাড়া জামের মসজিদে অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন তার পরিবার। জানাযা শেষে তাকে পূর্বটুনিয়াপাড়া কেন্দ্রীয় কবরস্থানে দাফন করা হবে।

এদিকে শিহাবের মৃত্যুতে তার পরিবার, এলাকাবাসী এবংবিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের বন্ধুদের মাঝে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। কোন ভাবেই বন্ধুর অকাল প্রয়াণকে মেনে নিতে পারছেন না বন্ধু শাহরিয়ার। তিনি ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, আমাদের খুব ভালো ও মেধাবী বন্ধু ছিল শিহাব। আমি এখন আমার কাছের বন্ধুকে হারালাম।

ময়নাতদন্ত হবে কিনা জানতে চাইলে মীরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ( ওসি) আবুল কালাম বলেন, আমরা ঐ শিক্ষার্থীকে দেখেছি। সে নিজেদের গাড়ি চাপা পড়ে মারা গেছেন, এজন্য ময়নাতদন্তের প্রয়োজন পড়ছে না।

ঢাকা, ২৬ মার্চ (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//আরএম//টিআর

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।