শহীদ লেখায় সংগ্রাম অফিসে হামলা, ভাংচুর


Published: 2019-12-14 03:00:34 BdST, Updated: 2020-04-04 03:27:56 BdST

লাইভ প্রতিবেদকঃ দৈনিক সংগ্রাম অফিসে হামলা ও ভাঙচুর চালিয়েছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ নামের একটি সংগঠন। সংগঠনটির নেতাকর্মীরা মগবাজারে পত্রিকাটির নিজস্ব কার্যালয়ের সামনে প্রথমে বিক্ষোভ দেখায়। এরপর পত্রিকা কার্যালয়ের ভেতরে ঢুকে ভাঙচুর চালায় তারা। এসময় পত্রিকাটির কয়েকটি কপি আগুনে পুড়িয়ে দেয় বিক্ষুব্ধরা।

দৈনিক সংগ্রাম অফিসে হামলা

শুক্রবার (১৩ ডিসেম্বর) সন্ধ্যার পর রাজধানীর বড় মগবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠন প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছে। শুক্রবার বিকেল সোয়া ৫টা থেকে জয়বাংলা শ্লোগান দিয়ে ৫০/৬০ জন যুবক মগবাজার ওয়ারলেস রেল গেট সংলগ্ন দৈনিক সংগ্রাম অফিস ঘেরাও করে হুমকিমূলক শ্লোগান দিতে থাকে। এর আগে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কেন্দ্রীয় কমিটির নামে সংগঠনটির সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল ও সাধারণ সম্পাদক আল-মামুনের নেতৃত্বে এ ঘেরাও কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

দৈনিক সংগ্রাম অফিসে ভাঙচুর

 

পরে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় পত্রিকার সাংবাদিকরা যখন আগামী কালের সংবাদপত্র প্রকাশের জন্য কর্মব্যস্ত ঠিক তখনই অতর্কিতে গেট ভেঙ্গে অফিসে ঢুকে একে একে সব কয়টি কক্ষে ভাংচুর চালায়। সংগ্রামের সাংবাদিকরা জানিয়েছেন, ৫৫টি কম্পিউটার, ৩টি টেলিভিশন, সকল আসবাবপত্র, দরজা-জানালা সবকিছু ভেঙ্গে তছনছ করে। আধাঘন্টা ধরে এ তান্ডব চলার সময় পুলিশ অফিসের নিচে ছিল। পরে তারা অফিসে ঢুকে সম্পাদক আবুল আসাদকে আটক করে হাতিরঝিল থানায় নিয়ে যায়।

দৈনিক সংগ্রাম অফিসে হামলা

 

সংগ্রামের প্রধান প্রতিবেক রুহুল আমিন গাজী বলেন, ‘এ ধরনের সংবাদ গত ৫ বছর থেকেই ছাপা হচ্ছে। কোনো সংবাদে কেউ সংক্ষুদ্ধ হলে তারা নিয়ম মোতাবেক প্রতিবাদ দিতে পারেন। কিন্তু তা না করে হামলা ভাংচুর ও আইন হাতে তুলে নেওয়ার অধিকার কারও নাই। এটা অন্যান্য গণমাধ্যমের জন্যও হুমকি স্বরুপ’। তিনি আরও জানান, ‘৫৮টি কম্পিউটার ও পত্রিকার ছাপানোর সব উপকরণ আসবাবপত্র ভাংচুর করেছে তারা’।

সম্পাদক আবুল আসাদ

 

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, প্রত্রিকাটি দেশের শহীদদের অবমাননা করেছে। দেশের সার্বভৌমত্বে আঘাত করেছে। আমরা চাই সরকারিভাবে পত্রিকাটি বন্ধ করে দেয়া হোক। পত্রিকার সম্পাদক আবুল আসাদকে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছি।

ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার বিপ্লব বিজয় তালুকদার বলেন, আমরা খবর পেয়ে সেখানে পুলিশের টিম পাঠিয়েছি। 

দৈনিক সংগ্রাম অফিসে হামলা

 

এ ঘটনায় বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন(বিএফইউজে) ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে)তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছে। প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দেশের প্রাচীন সংবাদপত্রগুলোর অন্যতম দৈনিক সংগ্রামের মগবাজারস্থ কার্যালয়ে সন্ত্রাসী হামলা, ভাংচুর, তছনছের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাই । একই সঙ্গে পত্রিকাটির বয়োজ্যেষ্ঠ সম্পাদক, বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী আবুল আসাদকে পুলিশ ধরে থানায় আটকে রাখায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন দুই সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

দৈনিক সংগ্রাম অফিসে ভাঙচুর

 

তাৎক্ষণিক এক বিবৃতিতে বিএফইউজে’র সভাপতি রুহুল আমিন গাজী ও মহাসচিব এম আবদুল্লাহ এবং ডিইউজে সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম বলেন, একটি সংবাদপত্র অফিসে ঢুকে কম্পিউটার, আসবাদপত্র, দরজা-জানালাসহ সবকিছু তছনছ করা ফ্যাসিবাদী আক্রমন ছাড়া কিছুই নয়। কোন সংবাদপত্র প্রকাশিত সংবাদে সংক্ষুব্ধ হলে তার প্রতিবাদ জানানো এমনকি আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ারও অধিকার রয়েছে। কিন্তু তা না করে পেশীশক্তির মহড়া কোন সভ্য সমাজে গ্রহণযোগ্য নয়।

দৈনিক সংগ্রাম অফিসে হামলা


ঢাকা, ১৩ ডিসেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।