পর্দা কেলেঙ্কারির ঘটনায় ৩ ডাক্তার এখন কারাগারে


Published: 2020-01-13 17:54:49 BdST, Updated: 2020-08-08 09:12:44 BdST

লাইভ প্রতিবেদকঃ ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বহুল আলোচিত ‘পর্দা কেলেঙ্কারির’ ঘটনায় দুর্নীতি দমন কমিশনের মামলায় ৩ চিকিৎসককে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

কারাগারে পাঠানো ৩ চিকিৎসক হচ্ছেন- ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সাবেক তত্ত্বাবধায়ক ডা. গণপতি বিশ্বাস শুভ, হাসপাতালের সাবেক কনসালটেন্ট ডা. মিনাক্ষী চাকমা, হাসপাতালের সাবেক প্যাথলজিস্ট ডা. এএইচএম নুরুল ইসলাম।

তাদের বিরুদ্ধে পরস্পর যোগসাজশে প্রাক্কলন ছাড়াই উচ্চমূল্যে হাসপাতালের যন্ত্রপাতি ক্রয় করার মাধ্যমে সরকারের ১০ কোটি টাকা আত্মসাতের চেষ্টার অভিযোগ আনা হয়েছে।

জানা যায়, হাইকোর্ট থেকে ৬ সপ্তাহের অন্তর্বর্তী জামিনের মেয়াদ শেষ হবার পরে রবিবার সকালে তারা অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ কামরুন্নাহার বেগমের আদালতে হাজির হয়ে জামিনের জন্য আবেদন জানান। আদালত জামিনের আবেদন না মঞ্জুর করে তাদের জেলা কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

প্রসঙ্গত, ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১০ কোটি টাকার পর্দা ও যন্ত্রপাতি ক্রয়ের ক্ষেত্রে ব্যাপক দুর্নীতি হয়। পরে দুদকের প্রধান কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মামুনুর রশীদ চৌধুরী ২০১৯ সালের ২৭ নভেম্বর ফরিদপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মামলা দায়ের করেন।

এ ঘটনায় আসামি করা হয়েছে- সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার মেসার্স অনিক ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী আবদুল্লাহ আল মামুন, ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সাবেক তত্ত্বাবধায়ক ডা. গণপতি বিশ্বাস শুভ, মেসার্স আহমেদ এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী মুন্সী ফররুখ আহমেদ, জাতীয় বক্ষব্যাধি হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মুন্সী সাজ্জাদ হোসেন।

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কনসালটেন্ট ডা. মিনাক্ষী চাকমা এবং ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সাবেক প্যাথলজিস্ট ডা. এএইচএম নুরুল ইসলাম। দুদকের মামলায় ৬ আসামির মধ্যে ৩জন আসামি উচ্চ আদালত হতে জামিনে আছেন।

ঢাকা, ১৩ জানুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।