জ্বর-শ্বাসকষ্টে দেশে ৪৮ ঘন্টায় ১৮ জনের মৃত্যু, লকডাউন-কোয়ারেন্টিন


Published: 2020-04-01 13:47:50 BdST, Updated: 2020-12-05 20:32:37 BdST

লাইভ প্রতিবেদক : দেশে গত ৪৮ ঘন্টার ব্যবধানে মঙ্গলবার পর্যন্ত শ্বাসকষ্ট, সর্দি ও গলাব্যথাসহ নানা উপসর্গে অন্তত ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। ওই মৃতের সংখ্যা নিয়ে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। করোনাভাইরাসে মৃত্যু হয়েছে, এমন সন্দেহে কয়েকজনের বাড়িসহ আশপাশের বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে। স্বজনসহ অনেককে নেয়া হয়েছে কোয়ারেন্টিনে। করোনাভাইরাসে মারা গেছেন কিনা তা নিশ্চিত হতে মৃত ব্যক্তিদের শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগে পাঠানো হয়েছে।

কুষ্টিয়া : শ্বাসকষ্ট, সর্দি ও গলাব্যথায় সোমবার ইজিবাইক চালকের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার সকালে তাকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যান পরিবারের সদস্যরা। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। চিকিৎসকদের ধারণা, তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন। এ ঘটনায় কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের দুই চিকিৎসকসহ ৭ স্টাফকে কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। একইসঙ্গে মৃত ব্যক্তির বাড়িসহ আশপাশের ৮-১০টি বাড়ি লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।

চাঁদপুর : হাজীগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ী মো. জাহাঙ্গীর হোসেন (৫০) সোমবার সকালে ঢাকার কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে মারা গেছেন। তিনি জ্বর ও সর্দি, গলাব্যথায় আক্রান্ত ছিলেন। তার বাড়ি নোয়াখালী বলে জানা গেছে।

মৌলভীবাজার : শ্রীমঙ্গলে উপজেলার কালাপুর ইউনিয়নের মাজদিহী চা বাগানের ৭ নম্বার লাইনের মন্টু বাউড়ীর ছেলে দুলাল বাউড়ী (৩৫) সোমবার দুপুরে নিজ বাড়িতে মারা গেছেন। তিনি সর্দি, জ্বর, কাশি ও শ্বাস কষ্টে ভুগছিলেন।

শেরপুর : নালিতাবাড়ীতে রোববার রাতে শ্বাসকষ্টে একজনের মৃত্যু হয়েছে। তার বয়স ৫৫ বছর। তিনি খুলনা বাগেরহাট জেলার রামপালে পাইলিং শ্রমিকের কাজ করতেন। সেখানে কাজ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বৃহস্পতিবার তিনি উপজেলার দক্ষিণ পলাশিকুড়া গ্রামে নিজ বাড়িতে আসেন। ওই ব্যক্তি স্থানীয় একটি ফার্মেসি থেকে শ্বাসকষ্টের ওষুধ ব্যবহার করেছিলেন। তারপরও তার শ্বাসকষ্ট বন্ধ হয়নি। রাতে তার মৃত্যু হয়।

দিনাজপুর : বিরামপুরে জ্বর সর্দি-কাশি ও শ্বাসকষ্টে ফরহাদ হোসেন (৪০) নামের এক ব্যক্তি মারা গেছেন। সোমবার ভোরে উপজেলার জোতবানী ইউনিয়নে আঁচলকোল তফসীগ্রামে তার মৃত্যু হয়। করোনাভাইরাস সন্দেহে মৃত ব্যক্তির বাড়িসহ ৩০টি বাড়ির দেড়শ’ মানুষকে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখার নির্দেশ দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।

সুনামগঞ্জ : জ্বর, শ্বাসকষ্ট, কাশিতে আক্রান্ত ৫৫ বছর বয়সী এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। সোমবার ভোরে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে ওই নারীর মৃত্যু হয়। তিনি পৌর শহরের পূর্ব নতুনপাড়ায় আবাসিক এলাকার বাসিন্দা। তার পরিবারের অন্য সদস্যদের হোম কোয়রেন্টিনে রাখা হয়েছে।

যশোর : ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে আইসোলেশন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। সোমবার ভোরে সে মারা যায়। তার নাম কাকলি (১২)। সোমবার সকালে শিশুর নমুনা সংগ্রহ করার কথা ছিল। তবে তার আগেই সে মারা যায়। এদিকে যশোরে হোম কোয়ারেন্টিন শেষে গোলাম মোস্তফা (৬০) নামে মালয়েশিয়া ফেরত এক ব্যক্তি স্ট্রোকে মারা গেছেন। সোমবার সকালে ঝিকরগাছা উপজেলার উজ্জ্বলপুর গ্রামে নিজ বাড়িতে তিনি মারা যান। মালয়েশিয়ায় জনশক্তি রফতানির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন তিনি। এতে তার করোনা সংক্রমিত হয়েছে কিনা এনিয়ে সন্দেহ দেখা দেয়।

মুন্সীগঞ্জ : গজারিয়ায় সোহরাব হোসেন (১২) শিশুর মৃত্যু হয়েছে। সোমবার ভোরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তার মৃত্যু হয়। সোহরাব জ্বর ও ম্যানিনজাইটিসে আক্রান্ত ছিল বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। সে মনাইরকান্দি গ্রামের শহীদুল ইসলামের ছেলে। এদিকে রোববার রাতে মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ীতে রোকসানা (৪৫) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। তিনি দীর্ঘদিন কিডনি ও লিভার ক্যান্সারে ভুগছিলেন। মৃত্যুর আগে রোকসানার জ্বর ও কাশি ছিল।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ : গোমস্তাপুরের রাধানগর ইউনিয়নের বসনইল আদিবাসী পল্লীতে এক নারীর মৃত্যু হওয়ায় এলাকায় আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে। জ্বরে আক্রান্ত হয়ে সোমবার সকালে ওই নারী মারা যায় বলে গ্রামবাসী জানিয়েছেন। মৃত্যুর পর ওই নারীর পরিবারের সদস্যদের ১৪ দিন কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ঠাকুরগাঁও : আধুনিক সদর হাসপাতালে এক মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যু হয়েছে। রোববার রাতে আইসোলেশন ইউনিটে তার মৃত্যু হয়। শ্বাসকষ্ট ও হৃদযন্ত্রের জটিলতার কারণে তাকে ভর্তি করা হয়েছিল। ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. নাদিরুল ইসলাম আজিজ চপল জানান, শ্বাসকষ্ট ও হৃদযন্ত্রের জটিলতার কারণে পরিবারের সদস্যরা মুক্তিযোদ্ধা শরিফুল ইসলামকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে মেডিসিন ওয়ার্ডে আইসোলেটেড করে রাখতে বলা হয়েছিল। কিন্তু তা না মেনে তার ছেলে মাসুদ করোনাভাইরাসের আইসোলেশন ইউনিটে নিয়ে যায়। সেখানে মুক্তিযোদ্ধা শরিফুল ইসলামের মৃত্যু হয়।

সিলেট : শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালের আইসোলেশন সেন্টারে চিকিৎসাধীন এক কিশোরী মারা গেছে। জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে মঙ্গলবার বেলা ১১টায় হাসপাতালে ভর্তি হয় সে। সেখানে দুপুর দেড়টায় তার মৃত্যু হয়। আর আইসোলেশনে থাকা বাকি ৫ জনের তিনজনের করোনা পরীক্ষায় নেগেটিভ এসেছে। অন্য দু’জনের অবস্থাও ভালো। হাসপাতালের অধীক্ষক ও ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. ইউনুছুর রহমান বলেন, কিশোরী ভর্তি হওয়ার পরপরই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা তাকে দেখে অক্সিজেন ও অন্যান্য সাপোর্ট দেন। তার শরীরে করোনাভাইরাসের কোনো উপসর্গ নেই। দুই মাস আগে থেকেই সে ফুসফুস ও হার্টের সমস্যায় ভুগছিল।

পিরোজপুর : ভান্ডারিয়ায় সবুজ হাওলাদার (১৬) নামে এক স্কুলছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। উপজেলার দক্ষিণ ধাওয়া গ্রামে মঙ্গলবার দুপুরে নিজ বাড়িতে সে মারা যায়। ছাত্রটি জ্বর ও সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত ছিল। সে ওই গ্রামের দিনমজুর আবদুল আজিজ হাওলাদারের ছেলে। করোনা সন্দেহে প্রশাসন ওই ছাত্রের বাড়ি ও আশপাশের কায়েকটি বাড়ি লকডাউন ঘোষণা করেছে। সে করোনা আক্রান্ত কিনা তা নিশ্চিত হতে নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআরে পাঠানো হয়েছে।

ঝালকাঠি : নলছিটি পৌর এলাকার অনুরাগ গ্রামের শ্বশুরবাড়িতে ভারত থেকে আসা এক ব্যক্তি জ্বর, সর্দি ও কাশিতে আক্রান্ত হওয়ায় আশপাশের তিনটি বাড়িতে লাল পতাকা টানিয়ে দিয়েছে প্রশাসন। আর আক্রান্ত ব্যক্তির বাড়ির ২২ সদস্যকে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এদিকে রাজাপুরে জ্বরে আক্রান্ত হয়ে আবদুল হাকিম হাওলাদার (৬৫) নামে ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার উত্তর সাউথপুর গ্রামে তিনি তার শ্বশুরবাড়িতে মারা যান। তিনি উপজেলার সাতুরিয়া ইউনিয়নের রোলা গ্রামের মৃত সইজউদ্দিন হাওলাদারের ছেলে। পরিবারের সদস্যরা জানান, আবদুল হাকিম ১০ দিন ধরে জ্বরে ভুগছিলেন। বরিশাল থেকে চিকিৎসা দিয়ে তাকে বাড়িতে রাখা হয়েছিল। মঙ্গলবার সকালে তার মৃত্যু হয়। রাজাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার আবুল খায়ের মাহামুদ জানান, ওই ব্যক্তি করোনায় মারা গেছেন কিনা তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।

ঢাকা : রাজধানীর কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকার নবাবগঞ্জে উপজেলার এক ব্যক্তি মারা গেছেন। ওই ব্যক্তি নবাবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশনে ভর্তি ছিলেন। পরে তাকে ঢাকায় পাঠানো হয়। মঙ্গলবার ভোরে তার মৃত্যু হয় বলে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. শহীদুল ইসলাম নিশ্চিত করেছেন। তার শরীরে করোনা ছিল কিনা তা নমুনা পরীক্ষার পর জানা যাবে। মৃত ব্যক্তির বাড়ি শোল্লা ইউনিয়নের খতিয়া গ্রামে। তার বাড়িসহ আশপাশের কয়েকটি বাড়িতে লাল নিশান উড়িয়ে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। স্বজনরা জানান, লাশ ঢাকাতে দাফন করা হয়েছে। এদিকে শ্বাসকষ্ট নিয়ে এক বৃদ্ধ নবাবগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশনে ভর্তি আছেন।

টাঙ্গাইল : মধুপুরে হবিবুর রহমান হবি (৩৫) নামে এক ব্যক্তি মারা গেছেন। মঙ্গলবার দুপুরে তার মৃত্যু হয়। হবি উপজেলার মহিষমারা ইউনিয়নের মহিষমারা গ্রামের টেক্কার বাজার এলাকার হাসান আলীর ছেলে। তিনি ঢাকায় গার্মেন্টে কাজ করতেন। ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ’লীগের সহসভাপতি কাজী মোতালেব হোসেন জানান, হবি ঢাকায় থাকত। কয়েক দিন আগে জ্বর নিয়ে বাড়িতে এসেছিল। বিষয়টি তারা গোপন রেখেছিল। সোমবার পাতলা পায়খানা হয়। মঙ্গলবার রক্তবমি হয়। এরপরই তার মৃত্যু হয়। তার বাড়িসহ আশপাশের বেশকিছু বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে বলে জানিয়েছে প্রশাসন।

ঢাকা, ০১ এপ্রিল (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।