স্থায়ী বাঁধ নির্মাণের দাবিতে কমলনগরে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ


Published: 2020-07-14 22:53:00 BdST, Updated: 2020-08-14 17:01:57 BdST

লক্ষ্মীপুর লাইভ: করোনাকালে সবাই যখন নিজেকে বাঁচাতে ব্যস্ত। তখন মেঘনার ভাঙন কবলিত এলাকার মানুষগুলো মরিয়া হয়ে উঠেছে নিজিদের ভিটেমাটি রক্ষায়। উপকূলীয় জেলা লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে নদী ভাঙন রোধে স্থায়ী বাঁধ নির্মানের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করা হয়েছে। সোমবার উপজেলার পাটারিরহাট মেঘনা তীরে পাটারীরহাট বাঁচাও মঞ্চের ব্যানারে এ মানববন্ধনের আয়োজন করে এলাকাবাসী। মানববন্ধন শেষে নদীভাঙন রোধে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে আহবান জানিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করেন স্থানীয়রা। এতে অংশ নেন মেঘনার ভাঙন কবলিত কয়েক হাজার মানুষ।

মানববন্ধনে বলা হয়, দীর্ঘ তিন যুগ ধরে নদীরভাঙনে কমলনগরের বিস্তীর্ণ জনপদ বিলীন হতে চললেও নদীভাঙন রোধে স্থায়ী কোন প্রদক্ষেপ নেয়া হয়নি। ফলে মানুষের বাড়ি-ঘর, ভিটে-মাটি, সরকারি-বেসরকারি বহু গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা নদীগর্ভে বিলীন হচ্ছে প্রতিনিয়ত। হুমকির মুখে অনেক বাড়ি ঘর, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। অচিরেই তারা এর স্থায়ী সমাধান চান।

এই সময় বক্তব্য রাখেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ জেলা শাখার সহ-সেক্রেটারী আ. হ. ম নোমান সিরাজী, উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মো. রাকিব হোসেন সোহেল, পাটারিরহাট ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি রাকিব হোসেন লোটাস।

মানববন্ধনে আরো উপস্থিত ছিলেন, ইউনিয়ন আ’লীগের সহ-সাধারণ সম্পাদক হাজী জামাল উদ্দিন, জেলা ফারিয়ার সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির বিপ্লব, সাবেক ইউপি সদস্য মোশাররফ হোসেন, আবুল বাসার বাকি, কমলনগর স্টার ক্লাবের সহ-সভাপতি মাকছুদুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক ইছমাইল হোসেন। ক্রীড়া সম্পাদক আক্তার পাটোয়ারী, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক সবুজ হোসেন, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা আক্তার পাটোয়ারী, নিউ তারুণ্য তরঙ্গ সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক আলম রাজা প্রমুখ।

মানববন্ধন ও বিক্ষোভে একাত্মতা জানিয়ে অংশ নেয় কমলনগর স্টার ক্লাব, নিউ তারুণ্য তরঙ্গ সংসদ, পাটারিরহাট জুনিয়র একতা সংঘ, পপুলার ফোকাস খায়েরহাট, স্টুডেন্ট একাদশ, পাটারীরহাট স্পোটিং ক্লাব।

মানব বন্ধনের একাংশ

 

স্থানীয়দের সূত্রে জানা যায়, লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগরের মেঘনাতীরের সীমান্তবর্তী এলাকা ১৭কিলোমিটার। এর মধ্যে মাত্র এক কিলোমিটার বেড়িবাঁধ নির্মাণ হয়েছে। বাকি ১৬কিলোমিটার এলাকা নদীতে বিলীন হচ্ছে ৩৬বছর ধরে। মেঘনার ভাঙ্গন থেকে রক্ষার দাবিতে বহু বার এ জনপদের মানুষ আওয়াজ তুলেছে।

মানববন্ধন, বিক্ষোভ, স্বারকলিপি সহ উদ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন জানানো হয়েছে। কিন্তু কার্যকরি কোন পদক্ষেপ এখনও নেওয়া হয় নি। এতে করে ভিটে মাটি হারিয়েছে বহু মানুষ। এখনো নদী ভাঙ্গনের পথে বাড়ি ঘর, ফসলি জমি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন সরকারি দপ্তর।

কমলনগরের মেঘনার ভাঙন কবলিত এলাকাগুলোর মধ্যে পাটারিরহাট এলাকায় মেঘনার ভাঙন প্রবল। সময় উপযোগী সিদ্ধান্ত না নিলে অচিরেই পুরো কমলনগর উপজেলা গ্রাস করে নিবে ভয়ংকর রাক্ষসী মেঘনা। তাই দ্রুত মেঘনাতীরের এ বিশাল এলাকায় সেনাবাহিনীর মাধ্যমে ব্লক বাঁধের দাবি জানিয়েছেন তারা।

ঢাকা, ১৪ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)/এআইটি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।