মুশতাকের মৃত্যুতে ১৩ রাষ্ট্রদূতের বিবৃতি, দাফন সম্পন্ন


Published: 2021-02-27 00:37:12 BdST, Updated: 2021-04-23 10:44:45 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর বিষয়ে দেশের গন্ডি পেরিয়ে বিদেশীদেরও ভাবিয়ে তুলেছে। তারা হচ্ছেন সোচ্চার। বিদেশীরা এখন মুখ খুলতে শুরু করেছেন। দিচ্ছেন বিবৃতি। এদিকে অর্গানাইজেশন ফর ইকোনমিক কোঅপারেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ( ওইসিডি) ভুক্ত ১৩টি দেশের ঢাকাস্থ রাষ্ট্রদূত এবং হাইকমিশনাররা যৌথ বিবৃতি দিয়ে এই মৃত্যুর ব্যাপারে প্রশ্ন তুলেছেন। 

এর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত কয়েকটি দেশের দূত রয়েছেন। তারা এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করেছেন। ওই ভিন দেশীরা বিবৃতিতে তারা এই মৃত্যু নিয়ে উস্মা জানিয়েছেন। ১৩ দেশের ঢাকাস্থ মিশন প্রধানরা আইনি হেফাজতে মুশতাক আহমেদের মৃত্যুতে গভীর উদ্বেগ জানান। বলেছেন এটা মেনে নেয়া যায় না।

ওই বিবৃতিতে বলা হয়, মুশতাক আহমেদ গত বছর ৫ মে থেকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে বিচারপূর্ব আটক অবস্থায় কারাড়ারে ছিলেন। আমরা জেনেছি যে বেশ কয়েকবার তাকে জামিন দিতে অস্বীকৃতি জানানো হয়েছে এবং আটকাধীন অবস্থায় তার প্রতি যে আচরণ করা হয়েছে তা নিয়ে উদ্বেগ আছে।

মিশন প্রধানরা আরো জানান, আমরা তার পরিবার ও বন্ধুদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাই । তার পরিবারের সঙ্গে আমরাও আহুত। সরকারকে মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর একটি দ্রুত, স্বচ্ছ, স্বাধীন এবং পূর্ণাঙ্গ তদন্ত করতেও আহ্বান জানিয়েছেন সংশ্লিস্টরা।

এত আরো জানানো হয় সরকারের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ধারাসমূহ ও এর প্রয়োগে ব্যাপারে ১৩ দেশের সরকারের ব্যাপক উদ্বেগ রয়েছে । এবিষয়টি আরো গভীরভাবে ভেবে দেখা দরকার।

Caption

 

সাথে সাথে বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইন ও মানের প্রতি বাধ্যবাধকতার সাথে এই আইনের সামঞ্জস্য সংক্রান্ত প্রশ্নগুলোর ব্যাপারে আমরা বাংলাদেশ সরকারের সাথে অব্যাহতভাবে আলোচনা চালিয়ে যাবো। 

বিবৃতিতে স্বাক্ষরকারীরা হলেন- মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার, ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট চ্যাটার্টন ডিকসন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত রেন্সজে তেরিঙ্ক, কানাডিয়ান হাইকমিশনার বেনওয়ে প্রিফন্টেইনার, ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত উইনি স্ট্রাপ পিটারসন, ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত জিন ম্যারিন স্কো, জার্মানির রাষ্ট্রদূত পিটার ফারেন হল্টজ, ইতালির রাষ্ট্রদূত এনরিকো নুনজিয়াতা, নেদারল্যান্ডসের রাষ্ট্রদূত হ্যারি ভারওয়েজি, নরওয়ের রাষ্ট্রদূত ইস্পেন রিকটার ভেনডেনসেন, স্পেনের রাষ্ট্রদূত ফ্রানসিসকো ডি আসিস ভেনিতেজ সালাস, সুইডেনের রাষ্ট্রদূত আলেকজেন্দ্রা বার্গ ভন লিন্ডে এবং সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নাথালি চুয়ার্ড।

দাফন সম্পন্ন:

এদিকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গাজীপুরের কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারে মারা যাওয়া লেখক মুশতাক আহমেদের (৫৩) দাফন সম্পন্ন হয়েছে। শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) রাত ১০টার দিকে রাজধানীর আজিমপুর কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।
এর আগে লালমাটিয়ার মিনার মসজিদে তার জানাজা হয়।

জানাজায় তার পরিবারের সদস্য, আত্মীয়স্বজন এবং স্থানীয় এলাকাবাসী অংশ নেন। পরে আজিমপুর কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) রাত ৮টার দিকে গাজীপুরের কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মুশতাক আহমেদকে মৃত ঘোষণা করেন।

প্রসঙ্গত, গত বছরের মে মাসে লেখক মুশতাক আহমেদ, কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোর, রাষ্ট্রচিন্তার সদস্য দিদারুল ইসলাম ও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের পরিচালক মিনহাজ মান্নানকে র‌্যাব গ্রেফতার করে। তাদের ব্যাপারে মামলা চলছে আদালতে।

প্রসঙ্গত, ঢাকা মেট্রোপলিটনের রমনা মডেল থানার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গত বছরের ৬ মে ঢাকা জেলে এবং পরে ২৪ আগস্ট থেকে কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী ছিলেন লেখক মুশতাক আহমদ। বৃহস্পতিবার রাতে তিনি কারাগারে অসুস্থ হয়ে পড়লে হাসপাতালে নেয়ার পর মারা যান। ঘটনাটি নিয়ে দেশজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

ঢাকা, ২৬ ফেব্রুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।