ঢাবির অভিশাপ যখন আবাসন সংকট!


Published: 2020-07-01 11:01:16 BdST, Updated: 2020-08-12 06:20:47 BdST

আমজাদ হোসেন হৃদয়: প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত বলা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে। বেশকিছু উদ্দেশ্য ও আকাক্সক্ষা চিন্তায় রেখে অক্সফোর্ডের মডেল নিয়ে ১৯২১ সালে প্রতিষ্ঠা করা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। যা আজ শতবর্ষে পা দিয়েছে।

বলা হয়েছিল অক্সফোর্ডের ন্যায় প্রতিটি শিক্ষার্থীর আবাসিকের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে এবং নির্দিষ্ট পরিমাণ শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হবে। হয়েছিলও তা কিন্তু সে ভারসাম্য ধরে রাখতে পারেনি ঢাবি কর্তৃপক্ষ। যার ফলে আবাসন সমস্যাটি শতবর্ষী এই বিদ্যাপীঠের অভিশাপ হয়ে রইল।

প্রাচ্যের অক্সফোর্ড’ শব্দবন্ধনীটি বর্তমানে একটি বাহুল্য, বিলাসিতাও বটে। হল আছে, মানুষ থাকছে বটে, চারজনের রুম গণরুম হয়ে বিশ জন থাকার ব্যবস্থা আছে বটে, সেটা কোনোরকমে মাথা গুঁজে চোখ বুজে থাকার ব্যাপার। এর বেশি কিছুই না।

তাছাড়া, আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয়ের বৈশিষ্ট্য এমনিতেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হারিয়েছে হলের সিটের চেয়ে অনেক গুণ বেশি ছাত্র ভর্তি করিয়ে, নতুন নতুন বিভাগ হয়, প্রতিবছরই ছাত্র বাড়ে। থাকার জায়গা বাড়ে না। আরো কমে। আবাসিক হল বাড়ানোর বা ভারসাম্য বজায় রেখে ছাত্র ভর্তি করানোর কোনো দৃশ্যমান ভূমিকাও দেখা যাচ্ছে না।

আমজাদ হোসেন হৃদয়

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় অর্ধেক শিক্ষার্থী হলের বাইরে থাকা শর্তেও আবাসন সংকট তুঙ্গে। প্রত্যেকটি হলে সৃষ্টি হয়েছে গণরুম। যেখানে প্রত্যেকটি গণরুমে থাকতে হয় ২০-৩০ জন শিক্ষার্থীকে। ২০১৯ সালের এক প্রতিবেদনে দেখা যায়, ঢাবির ১৮টি আবাসিক হলের মধ্যে এমন গণরুম আছে প্রায় ৮০টি। যাতে শিক্ষার্থী বাস করে প্রায় ৫০০০ জন।

গণরুম নামক বস্তি থেকে মুক্তির দাবি জোরদার হয় দীর্ঘ ২৮ বছর পর ডাকসু নির্বাচনের মাধ্যমে। যদিও ডাকসুর এ কমিটির মেয়াদ শেষেও দৃশ্যমান কোনো সমাধানের উদ্যোগ দেখতে পায়নি শিক্ষার্থীরা।

আমজাদ হোসেন হৃদয়, সলিমুল্লাহ মুসলিম হল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

[email protected]

ঢাকা, ০১ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।