এগ্রোভেট বায়ো সলিউশনের উদ্যোগে চামড়ার বিকল্প ব্যবহার শীর্ষক ওয়েবিনার


Published: 2021-07-25 18:48:49 BdST, Updated: 2021-09-19 10:14:08 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য প্রাণিসম্পদের গুরুত্বপূর্ণ উপজাত পণ্য। বাংলাদেশের মোট চামড়া উৎপাদনের প্রায় অর্ধেক আসে ঈদুল আজহার সময়। বিগত বছর সমূহে ১ কোটির বেশি কোরবানির পশু জবাই হলেও এবার হয়েছে প্রায় ৯০লক্ষ। যার বাজার মূল্য প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা! কিন্তু বাজারে কাঁচা চামড়া বিক্রি হচ্ছে নাম মাত্র মূল্যে, কোথাও অবিক্রিত থেকে যাচ্ছে। ইসলামের পরিভাষায় কোরবানির চামড়ার টাকা গরীব দুঃখীদের হক।

আমাদের দেশে চামড়া বিক্রি করে সে টাকা সাধারণত গরীব দুঃখী কিংবা এতিমখানায় প্রদান করা হয়। কিন্তু কিছু বছর যাবত অসাধু ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের দরুণ চামড়ার সঠিক মূল্য প্রদান করা হচ্ছে না এবং সেই সাথে গরীব দুঃখীরাও এ কারণে তাদের ন্যায্য টাকা পাচ্ছে না। অসাধু ব্যবসায়ীদের এ সিন্ডিকেট রুখতে বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে চামড়াকে খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করা যেতে পারে।

সম্প্রতি বেশ কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি বিভাগের ছাত্ররা চামড়াকে খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করেছে। তাদের নিয়ে 'চামড়ার বিকল্প ব্যবহার: খাদ্য হিসেবে চামড়া' শীর্ষক লাইভ প্রোগ্রামের আয়োজন করতে যাচ্ছে এগ্রোভেট বায়ো সলিউশন। লাইভ প্রোগ্রামটি আগামী ২৭ জুলাই মঙ্গলবার রাত ৯ টায় এগ্রোভেট বায়ো সলিউশন এর ফেসবুক পেইজ থেকে সম্প্রচারিত হবে।

উক্ত প্রোগ্রামে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন ডা. মো: নূরে আলম (ইউএলও, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর), খাদ্য হিসেবে চামড়া প্রক্রিয়াজাত করণের নিজেদের অভিজ্ঞতা বিনিময় করবেন ডা. জিয়া উদ্দিন ইব্রাহিম (এরিয়া এক্সিকিটিভ, এসিআই গোদরেজ এগ্রোভেট লিঃ), মালিক মোঃ ওমর (এমডি, হোমল্যান্ড ডেইরি, চট্টগ্রাম)।

এছাড়া বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি বিভাগের শিক্ষার্থী ইউসুফ আলী, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি বিভাগের শিক্ষার্থী সাদ রাফি ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি বিভাগের শিক্ষার্থী ফরিদুল ইসলাম খাদ্য হিসেবে চামড়া প্রক্রিয়াজাত করণের নিজেদের অভিজ্ঞতা শেয়ার করবেন। উক্ত প্রোগ্রামটি উপস্থাপনা করবেন ডা. মো: মোছাব্বির হোসেন।

এগ্রোভেট বায়ো সসলিউশন এর কোরটিম মেম্বার মোস্তাফিজুর রহমান এই লাইভ প্রোগ্রাম সম্পর্কে বলেন, "সাধারণত চামড়ার ওজন একটি গরুর মোট ওজনের ৭% হয়ে থাকে। এর মানে ৩০০ কেজির গরুতে চামড়ার ওজন প্রায় ২০কেজি! প্রতি কেজি ৫০০টাকা হিসেবে ১৫ কেজি মাংস পেলেও দাম হবে ৭৫০০টাকা। ন্যায্য মূল্য নির্ধারন করে গরীবদের দিয়ে দেই, নিজেরা মাংস হিসেবে খেতে পারি।

অতএব স্বাস্থ্যকর প্রোটিনের উৎস হিসেবে চামড়া হতে পারে দারুন বিকল্প। আমরা ডাস্টবিনে চামড়া ফেলে দেবার দৃশ্য কিংবা চামড়া মাটি চাপা দেবার দৃশ্যের পুনঃমঞ্চায়ন চাইনা। আমরা নিজেরাই সে চামড়া প্রসেসিং করার মাধ্যমে তৈরি করতে পারি অতি সুস্বাদু চামড়ার রেসিপি। আশা করি এই প্রোগ্রামের মাধ্যমে চামড়া খাওয়া না খাওয়া নিয়ে ভ্রান্ত ধারণা দূর হবে।"

ঢাকা, ২৫ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমএইচ//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।