উপবৃত্তি নিয়ে মাউশির জরুরি নির্দেশনা


Published: 2021-01-13 12:38:35 BdST, Updated: 2021-01-15 23:18:18 BdST

লাইভ প্রতিবেদকঃ তথ্য না পাঠানো, ভুল তথ্য পাঠানো, ডাবল এন্ট্রি, বৃত্তি পাবে না, এমন শিক্ষার্থীর তথ্য পাঠানোর ঘটনায় কোনো শিক্ষার্থী যদি উপবৃত্তির টাকা না পায়, এর দায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান ও উপজেলা/ থানা শিক্ষা অফিসারের। তাই নির্ভুল তথ্য ১৬ জানুয়ারির মধ্যে জরুরিভাবে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (১২ জানুয়ারি) মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) থেকে এ–সংক্রান্ত জরুরি নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। নির্ভুল তথ্য ১৬ জানুয়ারির মধ্যে জরুরিভাবে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আদেশে বলা হয়েছে, সমন্বিত উপবৃত্তি কর্মসূচির আওতায় ২০১৯-২০ সেশনের একাদশ ও ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীর তথ্য এন্ট্রি সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু মাধ্যমিকের ষষ্ঠ ও উচ্চমাধ্যমিকে একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের ১ লাখ ৬৫ হাজার ৮১০ জন শিক্ষার্থীর তথ্য পেন্ডিং রয়েছে প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে।

আর ৩ লাখ ৮৭ হাজার ৭১ জন শিক্ষার্থীর তথ্য উপজেলা/ থানা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে পেন্ডিং রয়েছে। এ তথ্য ১৬ জানুয়ারির মধ্যে পাঠাতে ব্যর্থ হলে শিক্ষার্থী উপবৃত্তির টাকা না পেলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান এবং উপজেলা/ থানা শিক্ষা অফিসাররা দায়ী থাকবেন।

অফিস আদেশে সংশ্লিষ্টদের উদ্দেশ্যে বলা হয়, অযোগ্য শিক্ষার্থীদের তথ্য (যদি থাকে) উপজেলা/ থানা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা–সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফেরত পাঠাবেন। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো অযোগ্য, ভুল বা ডাবল এন্ট্রি, কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ইত্যাদি কারণে অতিরিক্ত এন্ট্রি করা শিক্ষার্থীদের তথ্য এইচএসপি ও এমআইএস সার্ভার থেকে নিষ্ক্রিয় করবেন।

নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে (১৬ জানুয়ারি) কোনো যোগ্য শিক্ষার্থীর তথ্য না পাঠানোর কারণে উপবৃত্তি পাওয়া থেকে বঞ্চিত হলে সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান এবং উপজেলা/ থানা শিক্ষা কর্মকর্তা দায়ী থাকবে বলেও আদেশে উল্লেখ করা হয়েছে।

ঢাকা, ১৩ জানুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।