সকলের মন্তব্য এর হেতু কি? নেপথ্যে কারা!জাবির সেই ভিসির বিরুদ্ধে মন্ত্রনালয়ে এন্তার অভিযোগ!!


Published: 2019-09-16 22:30:03 BdST, Updated: 2019-11-12 13:44:17 BdST

জাবি লাইভঃ এবার আরেক তারকার পতনের বাতাস বইছে। তিনি দাপিয়ে বেড়াতেন বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। কাউকেই পাত্তাও দিতেন না তিনি। চলতেন বাহারী স্টাইলে। তিনি আর কেউ নন। তিনি হলেন ছাত্রলীগের দুই নেতার অপকর্ম ও চাঁদাবাজির নালিশ কারী সেই ভিসি প্রফেসর ফারজানা ইসলাম। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ভিসি।

সূত্র জানায়, অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের বিরুদ্ধে নানান অভিযোগ খতিয়ে দেখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। অভিযোগ তদন্ত করতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনকে (ইউজিসি) দায়িত্ব দেয়া হবে। এজন্য চার সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়।

চাঁদাবাজি ও কমিশন বাণিজ্যের অপরাধে ছাত্রলীগের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদককে পদত্যাগ করতে হয়েছে। একই অভিযোগে উঠেছে জাবির ভিসির বিরুদ্ধে। সম্প্রতি এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের একটি পক্ষ থেকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে।

ভিসির পদত্যাগের দাবিতে গত কয়েকদিন ধরে শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নেমেছেন। এসব বিষয় গুরুত্ব দিয়ে ভিসির বিরুদ্ধে অভিযোগ খতিয়ে দেখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। অপরাধ প্রমাণিত হলে ভিসিকে পদ থেকে সরিয়ে দেয়া হতে পারে বলেও সংশ্লিস্টরা জানিয়েছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানান, জাবি ভিসি অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের কমিশন বাণিজ্যের প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়া গেছে। তার বিরুদ্ধে শিক্ষকদের দেয়া লিখিত অভিযোগ তদন্ত করে দেখা হবে।

এ কারণে ইউজিসির সদস্য অধ্যাপক ড. দিল আফরোজা বেগমকে আহ্বায়ক করে চার সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হতে পারে। তারা পুরো বিষয়টি দেখভাল ও তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দিবেন মন্ত্রনালয়ে।

ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, দ্রুত এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে মন্ত্রণালয় থেকে ইউজিসিকে চিঠি দেয়া হবে। তদন্ত শেষে কমিটি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন পাঠাতে বলা হবে। অপরাধের প্রমাণ মিললে ভিসির পদ থেকে তাকে অব্যাহতি দেয়া হতে পারে বলেও তারা জানান।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, কমিশন কেলেঙ্কারির ঘটনায় জাবি ভিসি দায় এড়াতে পারেন না। একজন ভিসির কাছে ছাত্রনেতারা কীভাবে কমিশন দাবির সাহস পায়, এ বিষয় নিয়ে ছাত্রলীগের সঙ্গেইবা ভিসি কীভাবে বৈঠক করে। তাও খতিয়ে দেখা হবে।

তার কর্মকান্ড নিয়ে বিভিন্ন মহলে গুঞ্জন শুরু হয়েছে। এ অপরাধে জন্য জাবি ভিসির পদত্যাগ দাবি করছেন। তবে ওই গ্রুপের সঙ্গে শোভন- রব্বানীর যোগসাজশ আছে কি না তাও খতিয়ে দেখতে বলা হবে তদন্ত কমিটিকে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. আব্দুল্লাহ আল হাসান চৌধুরী জানান, জাবির ভিসির বিরুদ্ধে আমরা লিখিত অভিযোগ পেয়েছি, বিষয়টি গোপনভাবে খোঁজ-খবর নেয়া হচ্ছে। এতে অভিযোগের কিছুটা সত্যতা পাওয়া গেছে।

বিষয়টি নিবিড়ভাবে খতিয়ে দেখতে ইউজিসিকে দায়িত্ব দেয়া হবে। এজন্য একটি কমিটি গঠন করাও হতে পারে।

তিনি আরও বলেন, অভিযোগ খুবই গুরুতর, তবে বিষয়টি এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে। অভিযোগের সত্যতা মিললে দ্রুত এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জাবির প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আমির হোসেন জানান, কমিশন আদায়ের বিষয়টি নিয়ে পুরো বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মধ্যে গুঞ্জন শুরু হয়েছে। কেউ কেউ ভিসির এমন ঘটনা মেনে নিতে পারছে না। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানাচ্ছেন অনেকেই। তবে শেষ মেষ কি হয় বিষয়টি নিয়ে সতর্কতার সঙ্গে এগুচ্ছেন সকলেই।

তবে অনেকেই বলেছেন, তিনি ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে ভুল করেছেন। নালিশ না করে চলাকেউ শ্রেয় মনে করছেন। তবে কেউ কেউ বলেছেন সত্য আর সাহসী ভূমিকা রাখলে বিপদতো আসবেই।

ঢাকা, ১৬ সেপ্টেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

 

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।