সিরাজগঞ্জে লাশের জানাজা-দাফন করল ছাত্রলীগ


Published: 2020-04-25 10:52:58 BdST, Updated: 2020-05-26 18:16:07 BdST

সিরাজগঞ্জ লাইভ: হায়রে মহামারি। হায়রে কোভিড-১৯। এর কারণেই আপনজনদের শেষ বিদায়েও দেখা মেলেনি। মৃত্যুর পর কেউ আসেনি কাছে। জানাজা-দাফন সবই হলো কিন্তু আপনজন কেউ এগিয়ে আসেননি। সামনে আসেনি এলাকার কেউ। অবশেষে এলাকার উঠতি বয়সী একদল যুবক এগিয়ে এলেন। এরা এলাকারই ছাত্রলীগের নেতাকর্মী। এসময়ে এরা এগিয়ে এলেন। জীবনের ঝুকি নিয়ে সাহস আর মানব প্রেমে উদ্বুদ্ধ এরা।

এদিকে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে মহামারি করোনা সন্দেহে এক পোশাক শ্রমিকের লাশ দাফনে এলাকাবাসী বাধা দিয়েছেন বলে অভিযোগ মিলে। খবর পেয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ ওই পোশাক শ্রমিকসহ পরিবারের ১২ জনের নমুনা সংগ্রহ করে। পরে ১১ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার শর্তে বৃহস্পতিবার (২৩ এপ্রিল) দুপুরে লাশ দাফনে সম্মত হন এলাকাবাসী।

ছাত্রলীগের নেতাকর্মী

 

জানাগেছে ওই শ্রমিক ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় চাকরি করতেন। তবে নিজ এলাকা শাহজাদপুরের কেউই এগিয়ে না আসায় উপজেলা ছাত্রলীগের কর্মীরা লাশের জানাজা ও দাফন সম্পন্ন করেছেন। এতে প্রশংসায় ভাসছেন উপজেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। নিহতের পরিবার জানান এরা মানুষ রুপী ফেরেস্তা। এই সময়ে তারা এগিয়ে এসেছেন।

রোববার (২৬ এপ্রিল) রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে পাঠানো হবে নিহত ও স্বজনদের নমুনা পরীক্ষার জন্য । প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত ১১ জনকেই হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখতে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগকে নির্দেশ দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

এবিষয়ে শাহজাদপুর থানার ওসি আতাউর রহমান জানান, করোনা সন্দেহে লাশ দাফনে এলাকার লোকজন বাধা দেয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে পরদিন বৃহস্পতিবার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পুলিশ পাহারায় দুপুরে দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

ওই যুবকের ব্যাপারে সিরাজগঞ্জ সিভিল সার্জন ডা. জাহিদুল ইসলাম জানান, ময়মনসিংহের ভালুকা থেকে পোশাক শ্রমিকের মরদেহ আসে। কীভাবে মারা গেছেন, পরিবারের লোকজন স্পষ্টভাবে তেমন কিছুই বলেনি। এলাকাবাসীর আপত্তির কারণে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ নিহত ও স্বজনদের নমুনা সংগ্রহ করেছে। পরীক্ষার জন্য রোববার রামেক হাসপাতালে পাঠানো হবে। প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত ১১ জনকেই হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখতে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগকে বলা হয়েছে।

এদিকে সিরাজগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আহসান হাবিব খোকা বলেন, করোনা সন্দেহে ওই পোশাক শ্রমিকের লাশ দাফনে স্থানীয় কেউ এগিয়ে আসেননি। পরে সাহসিকতার সঙ্গে শাহজাদপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ মো. রাসেল ও তার সহযোগীরা ওই মৃত ব্যক্তির জানাজা শেষে দাফন সম্পন্ন করেন। আমরা এধরনের সব সহযোগীতা করতে প্রস্তুত আছি। আমাদের সংবাদ দিলে আমরা এগিয়ে আসবোই।

ঢাকা, ২৫ এপ্রিল (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।