গমেক শিক্ষার্থীদের আন্দোলন সাময়িক স্থগিত


Published: 2019-08-04 22:53:08 BdST, Updated: 2019-08-19 19:48:41 BdST

গবি প্রতিনিধি: সাভারের গণস্বাস্থ্য সমাজ ভিত্তিক মেডিকেল কলেজ (গমেক) কে গণ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিভুক্তির জন্য আবেদন জমা দেয়া হয়েছে- কর্তৃপক্ষের এমন আশ্বাসের ভিত্তিতে টানা ১৫ দিনের আন্দোলন সাময়িক স্থগিত করেছে গমেকের শিক্ষার্থী, ইন্টার্ণ চিকিৎসক ও জুনিয়র মেডিকেল অফিসাররা।

জানা যায়, ঢাবি অধিভুক্তি সহ ১০ দফা দাবিতে ১০ দিনের আল্টিমেটাম শেষে গত ২০ জুলাই, ২০১৯ ইং তারিখে সকল শিক্ষার্থী ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে লাগাতার আন্দোলনের ঘোষণা দেয়। ২৫ জুলাই আন্দোলনে একাত্মতা প্রকাশ করে অনির্দিষ্টকালের জন্যে কর্মবিরতি ঘোষণা করে ইন্টার্ণ চিকিৎসক ও জুনিয়র মেডিকেল অফিসারবৃন্দ।

গতকাল (৩ আগস্ট, ২০১৯ ইং) আন্দোলনের ১৫তম দিনে শিক্ষার্থী-ইন্টার্ণ চিকিৎসক-জেএমও’দের প্রতিনিধিদলের সাথে আলোচনায় বসে দাবিপূরণের অগ্রগতি সম্পর্কে বিস্তারিত জানান ঢাবি অধিভুক্তি কার্যক্রম পরিচালনার জন্যে গঠিত পাঁচ (০৫) সদস্যের কমিটি।

কমিটির আহ্বায়ক ও গণস্বাস্থ্য সমাজ ভিত্তিক মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ফরিদা আদিব খানম বলেন, “প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্র সহ আমরা গত ১লা আগস্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিভুক্তির আবেদন ফরম বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য কার্যালয়ে জমা দিয়েছি। আবেদনে গণস্বাস্থ্য সমাজ ভিত্তিক মেডিকেল কলেজের অধীনে এমবিবিএস, বিডিএস, ব্যাচেলর ও মাস্টারস অফ ফিজিওথেরাপী, ব্যাচেলর অফ নার্সিং কোর্স, মোট ৪টি কোর্স অধিভুক্তির অনুরোধ জানানো হয়েছে। আশা করছি অতিদ্রুত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আমরা পরবর্তী নির্দেশনা পাবো।”

আলোচনা শেষে কমিটির কাছে আন্দোলন স্থগিতের সর্বশেষ ঘোষণাপত্র অনুযায়ী অধিভুক্তির পরবর্তী সকল কার্যক্রমে নির্বিঘ্নে এগিয়ে নেওয়ার লিখিত প্রতিশ্রুতির দাবিতে প্রায় তিন ঘন্টা অবরুদ্ধ করে রাখা হয় গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক লায়লা পারভীন বানু, বর্তমান উপাচার্য (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক দেলওয়ার হোসেন, গণস্বাস্থ্য সমাজ ভিত্তিক মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ফরিদা আদিব খানম, শিশু বিভাগের প্রধান অধ্যাপক মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রশিক্ষণ শাখার মহাপরিচালক ডা. একেএম রেজাউল হক’কে।

পরবর্তীতে আগামী ৩ কার্যদিবসের মধ্যে সভার কার্যবিবরনীতে অধিভুক্তির কাজ নির্বিঘ্নে এগিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত লিপিবদ্ধ করার প্রতিশ্রুতি দেন কমিটির সদস্যরা। পাশাপাশি তাৎক্ষনিক লিখিত হিসাবে সকল শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফেরার ও ইন্টার্ণ চিকিৎসক-জেএমও’দের কর্তব্যে ফেরার আহ্বান জানিয়ে সকলকে সাধারন ক্ষমা ঘোষণা করে নোটিশ দেওয়া হয়।

২০তম ব্যাচের শিক্ষার্থী জয়দেব বসাক জানান, “ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্তির লক্ষ্যে গঠিত কমিটির প্রতি পূর্ণ আস্থা রয়েছে আমাদের। অতিদ্রুততার সাথে কাজ এগিয়ে নিচ্ছেন আমাদের শিক্ষকরা। খুব অল্প সময়ের মধ্যে কমিটির কার্যক্রম এবং আমাদের আন্দোলন অনেক সফলতা অর্জন করেছে। সম্মানিত শিক্ষকদের আশ্বাস ও লিখিত নোটিশের প্রেক্ষিতে আমরা আমাদের আন্দোলন সাময়িক স্থগিতের জন্যে সম্মেলিত ভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তবে, আমাদের আন্দোলন শেষ নয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিভুক্তির পরবর্তী সকল কার্যক্রম আমরা পর্যবেক্ষণ করবো এবং নিয়মিত খোজ খবর রাখবো। যদি কখনো কোনো প্রকার অসঙ্গতির প্রমাণ পাওয়া যায়, কোনো প্রকার আল্টিমেটাম ছাড়াই একযোগে আমরা সকল শিক্ষার্থী, ইন্টার্ণ চিকিৎসক-জেএমও’বৃন্দ কঠোর আন্দোলনে নামবো।”

এদিকে আন্দোলন স্থগিত করায় আজ (৪ আগস্ট) সকল ব্যাচের শিক্ষার্থীরা নিয়মিত ক্লাসে অংশ নিয়েছেন। দায়িত্বে ফিরেছেন সাভার গণস্বাস্থ্য সমাজ ভিত্তিক মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতাল ও গণস্বাস্থ্য সাবসেন্টাররে কর্তব্যরত সকল ইন্টার্ণ চিকিৎসক ও জুনিয়র মেডিকেল অফিসার। আবার কর্মচঞ্চল হয়ে উঠেছে মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল।

ঢাকা, ০৪ আগস্ট (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//আরএইচ

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।