তরিকুল সিন্ডিকেটে বড় বড় ব্যক্তিরা আছেন, কিস্তি-১ নর্থ সাউথে জালিয়াতি ও ভর্তি বাণিজ্যের হোতা ছাত্রলীগ নেতার কান্ড


Published: 2020-05-09 14:53:04 BdST, Updated: 2020-06-04 01:15:52 BdST

এনএসইউ্ লাইভ: প্রধানমন্ত্রীর নথি জালিয়াতির মাধ্যমে সিদ্ধান্ত বদলে দেওয়ার অভিযোগের মামলায় ছাত্রলীগের একজন নেতাকে নিয়ে তোলপাড় চলছে। তিনি কিভাবে কাদের সহায়তায় ও কত টাকার বিনিময়ে এই সিদ্ধান্ত পাল্টে দিতে চাইলেন এনিয়ে চলছে তদন্ত। পুলিশের কয়েকটি টিম মাঠে নেমেছে এই নেতার জালজালিয়াতি ও ভর্তি বাণিজ্যেে তথ্য অনুসন্ধানের ব্যাপারে।

ছাত্রলীগের ওই নেতার নাম তরিকুল ইসলাম মুমিন। তিনি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি। বাড়ি ভোলা জেলায়। তিনি নিজেতে বর্ষিয়ান নেতা সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমদের ভাগিনা পরিচয় দিতেন। যদিও ওই নেতার সঙ্গে তার কোন সম্পর্ক নেই। কিন্তু তরিকুল ছাত্রলীগের নাম ব্যবহার করে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি বাণিজ্য ও প্রবেইশান বাণিজ্য করেছে তরিকুল।

এদিকে গত শুক্রবার তেজগাঁও থানায় দায়ের করা প্রধানমন্ত্রীর নথি জালিয়াতির মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চার দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছে তরিকুলসহ তিনজনকে। তেজগাঁও জোনের অতিরিক্ত উপকমিশনার রুবাইয়াত জামান বলেন, জালিয়াতির এই ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক-৭ মোহাম্মদ রফিকুল আলম বাদী হয়ে ৫ মে তরিকুল, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অফিস সহকারী ফাতেমা ও ফরহাদ নামে তিনজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় তরিকুলকে ভোলা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মামলায় বলা হয়, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে কোষাধ্যক্ষ পদে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এম এনামুল হক, বুয়েটের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক মো. আব্দুর রউফ এবং বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালের সাবেক কোষাধ্যক্ষ অবসরপ্রাপ্ত এয়ার কমোডর এম আবদুস সালাম আজাদের নাম প্রস্তাব করে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে নথি পাঠানো হয়। বিষয়টি ছিলো অত্যন্ত গোপনীয়।

এদিকে এই নথি প্রধানমন্ত্রীর সামনে উপস্থাপন করার পর তিনি অধ্যাপক ড. এম এনামুল হকের নামের পাশে টিক চিহ্ন দেন। পরে চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য নথিটি রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানোর প্রস্তুতি পর্বে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অফিস সহকারী ফাতেমার কাছে এলে তিনি এম আবদুস সালাম আজাদ অনুমোদন পাননি বলে ফোনে জানিয়ে দেন তরিকুলকে।

এ খবর জানার পর তরিকুল নানান কৌশল খুঁজেতে থাকেন। তার পরিকল্পনা অনুযায়ী, নথিটি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে কৌশলে বের করে ফরহাদ নামে একজনের হাতে তুলে দেন ফাতেমা। ওই ফরহাদ তরিকুলের সিন্ডিকেটের সদস্য।

ওই মামলায় আরো উল্লেখ করা হয়, সেই নথিতে তরিকুল ড. এম এনামুল হকের নামের পাশে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া টিক চিহ্নটি ‘টেম্পারিং’ করে সেখানে ক্রস চিহ্ন দেন। একইভাবে অধ্যাপক মো. আব্দুর রউফের নামের পাশে ক্রস চিহ্ন দিয়ে এয়ার কমোডর এম আবদুস সালাম আজাদের নামের পাশে টিক চিহ্ন দেন। প্রায় এক মাস আগে নথিটি রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছিল।

প্রসঙ্গত এই নথি হস্তান্তরের আগে ফাতেমা ১০ হাজার টাকা বিকাশের মাধ্যমে গ্রহণ করেন এবং হস্তান্তরের পরে আরেক দফায় ১০ হাজার টাকা তার ছেলের বিকাশ একাউন্টের মাধ্যমে নেন বলে মামলায় বলা হয়। প্রায় এক মাস আগের ঘটনা হলেও করোনাভাইরাসের কারণে মামলা দিতে দেরি হয়েছে বলে বাদী এজাহারে উল্লেখ করেছেন।

ওই মামলায় শুক্রবার তরিকুলের সঙ্গে ফরহাদ ও নাজিম উদ্দিন নামে দুজনকে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে সাত দিনের রিমান্ডে চায় পুলিশ। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম মঈনুল ইসলাম তাদের জামিন আবেদন নাকচ করে প্রত্যেকের চারদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। নাজিম উদ্দিনের নাম মামলার এজাহারে না থাকলেও তদন্তে তার সংশ্লিষ্টতা বেরিয়ে এসেছে বলে আদালত পুলিশের কর্মকর্তা এসআই ফরিদ মিয়া জানিয়েছেন।

সংশ্লিস্ট সূত্রে জানা গেছে তরিকুল নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অপকর্মের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। প্রায় ৩/৪ বছর ধরে একজন ট্রাস্ট্রিজের হাত ধরে তিনি নর্থ সাউথে গিয়ে একটি সিন্ডিকেট গড়ে তোলেন। এর সঙ্গে আরো অনেকেই জড়িত রয়েছে। বাণিজ্য হয়েছে কয়েক কোটি টাকা।

এ ব্যাপারে তেজগাঁও থানার ওসি শামিম অর রশিদ ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, আমরা বাকী আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা করছি। এটি একটি স্পর্শকাতর মামলা। আমরা এর নেপথ্যে কারা আছে, কে কে তরিকুলের সহযোগী সব কিছুই তদন্ত করছি। তদন্ত শেষে মুল রহস্য বলা যাবে। 

বহিস্কার:

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নথি বের করে জালিয়াতির মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত বদলে দেওয়ার ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি তরিকুল ইসলাম মুমিনকে সংগঠন থেকে স্থায়ী বহিষ্কার করা হয়েছে। আজ শনিবার সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় এবং সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সংগঠনের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের জরুরি সিদ্ধান্ত মোতাবেক জানানো যাচ্ছে যে, সংগঠনের গঠনতন্ত্র পরিপন্থী কার্যকলাপের জড়িত থাকার কারণে তরিকুল ইসলাম মুমিনকে ছাত্রলীগ থেকে স্থায়ী বহিষ্কার করা হয়।

ঢাকা, ০৯ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)/এআইটি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।