‘তৈরি এজাহারে স্বাক্ষর দিয়েছি, অমিতকে বাদ দিয়েছে পুলিশ’


Published: 2019-10-10 04:38:51 BdST, Updated: 2019-10-22 19:25:01 BdST

কুষ্টিয়া লাইভ : বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যার অন্যতম অভিযুক্ত অমিত সাহাকে পুলিশ এজহার থেকে বাদ দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। খোদ আবরারের বাবা এমন অভিযোগ করেছেন। তিনি জানিয়েছেন পুলিশের তৈরি এজহারে তিনি কেবল স্বাক্ষর করেছেন। অমিত সাহাকে বাদ দিয়েছে পুলিশ। এবিষয়ে তিনি কিছু জানেন না। যদিও অমিত সাহাকে তিনি অন্যতম ঘাতক বলে মনে করেন। কারণ তার কক্ষেই আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। খুনিদের কাছে আবরারের বিষয়ে তথ্য অমিতই দিয়েছে। অথচ এজাহারে নাম নেই অমিত সাহার।

জানা গেছে, চকবাজার থানায় আবরারের বাবা বরকতুল্লাহ’র দায়ের করা মামলায় রহস্যজনকভাবে ১৯ জনের তালিকায় বাদ পড়ে অমিত সাহা। অমিত সাহা ছাত্রলীগের বুয়েট শাখার আইন বিষয়ক উপসম্পাদক। মূল অভিযুক্ত ছাত্রকে বাদ দেয়ায় ক্ষুদ্ধ মামলার বাদি ও আবরারের বাবা বরকতউল্লাহ ও পরিবারের সদস্যরা।

মামলার বাদি আবরার বাবা বকতুল্লাহ বলেন, সিসি ফুটেজে যাদের দেখা গেছে মামলায় তাদের অনেকেই বাদ দেয়া হয়েছে। যার নেতৃত্বে টর্চার করা হয়েছে তাকেই মামলায় আসামি করা হয়নি। তিনি অমিত সাহার নাম মামলায় অন্তর্ভূক্ত করার জোর দাবি জানান।

বরকতুল্লাহ বলেন, ফাহাদের মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে আমি তাৎক্ষণিক ছেলের লাশ আনতে ঢাকা যাই। সন্তানের লাশ সামনে নিয়ে একজন পিতা কি অবস্থায় থাকতে পারে? পুলিশ আমাকে যেভাবে বলেছে আমি সেভাবে মামলা করেছি। পুলিশ নিজেরাই আসামি সনাক্ত করে আগে থেকেই মামলার এজাহার তৈরি করে রেখেছিল। আমি শুধু মামলার কপিতে স্বাক্ষর করেছি। এখন দেখছি মামলায় ছেলে হত্যার মূল হোতা অমিত সাহার নাম নেই। ওর নাম পুলিশই বাদ দিয়েছে।

বরকতুল্লাহ জানান, আমিতো কাউকে চিনি না পুলিশ যাদের নাম লিখেছে শুধু তাদের নাম দেয়া হয়েছে। পুলিশ অমিত সাহার নাম বাদ রেখেছে। ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, মামলায় অবশ্যই অমিত সাহাকে আসামি করে তাকে আইনের আওতায় আনতে হবে। ডিবি পুলিশ গতকাল (মঙ্গলবার) আমাকে ফোন করেছিল। আমি তাদের জিঙ্গাসা করেছি মামলায় অমিত সাহার নাম আসল না কেন। তারা বলেন অতিম সাহা নামে কেউ ছিল না। আমি ডিবি পুলিশকে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছি অমিত সাহার রুমে আবরারকে হত্যা করা হয়েছে এবং তার সহপাঠীরা জানিয়েছেন হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে আমিত সাহা সরাসরি সম্পৃক্ত, অবশ্যই মামলায় তাকে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। জীবনের যত ঝুঁকি আসুক আমি ছেলে হত্যার মামলা চালিয়ে যাব এবং আসামিদের উপযুক্ত শাস্তির আওতায় আনব।

ঢাকা, ১০ অক্টোবর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.ম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।