জাবিতে ‘শিবির’ বলে ৩ হিন্দু ছাত্রকে পিটিয়েছে ছাত্রলীগ


Published: 2019-11-07 11:32:25 BdST, Updated: 2019-11-22 15:57:02 BdST

জাবি লাইভ: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি) ভিসির অপসারণ দাবিতে চলমান আন্দোলনে ‘শিবির’ বলে ৩ হিন্দু ছাত্রকে পিটিয়েছে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। এ ঘটনায় তিনজন হিন্দু ও দুই মুক্তিযোদ্ধার সন্তানকেও পিটিয়ে আহত করে তারা। ছাত্রলীগে ওই হামলায় মারিয়াম রশিদ ছন্দা নামের এক ছাত্রী গুরুতর আহত হন।

‘শিবির’ বলে মারধরের শিকার তিন হিন্দু শিক্ষার্থী হলেন, প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের ৪৭তম ব্যাচের সুদীপ্ত দে, একই ব্যাচের নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের অমর্ত্য রায় ও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের ৪৫তম ব্যাচের শৌমিক বাগচী।

হামলার সময় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাদের তিনজনকে ‘শিবির’ বলে মারধর করেছেন বলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ভুক্তভোগীরা।

জানা গেছে, হামলায় আহত ওই তিনজন হিন্দু ধর্মাবলম্বী এবং চলমান ভিসিবিরোধী আন্দোলনের সক্রিয় সদস্য। এদের মধ্যে সুদীপ্ত দে শাখা ছাত্র ফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক এবং শৌমিক বাগচী জাহাঙ্গীরনগর থিয়েটারের সাধারণ সম্পাদক। আর অর্মত্য রায় শাখা ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।

হামলার বর্ণনা দিতে গিয়ে সুদীপ্ত দে ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, আমাকেও ‘শিবির’ বলে পিটিয়ে আহত করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। ছাত্রফ্রন্টের জাবি শাখার সভাপতি মাহাথির মোহাম্মদের ওপর হামলা করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। তাকে বাঁচাতে এগিয়ে গেলে ‘শিবির-শিবির’ বলে আমাকেও মারধর শুরু করে তারা। আমাদের শান্তিপূর্ণ ও যৌক্তিক আন্দোলনকে বন্ধ করার অপচেষ্টা হিসেবে উপাচার্যের মদদে এই হামলা করেছে ছাত্রলীগ।

হামলায় আহত অমর্ত্য রায় ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, ‘ও শিবির, ওরে মার’ এই কথা বলেই আমার ওপর হামলা চালায় ছাত্রলীগ। তাদের একজন আমার শার্টের কলার ধরেছিল, তখনই আরেকজন আমাকে ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয়। তখন আমি একজন শিক্ষকের গায়ের ওপর গিয়ে পড়ি। একই ভাবে শৌমিক বাগচীকেও ‘শিবির’ বলে লাঞ্ছিত করেছে ছাত্রলীগ।

আন্দোলনের সমন্বয়ক প্রফেসর রায়হান রাইন ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, যৌক্তিক এই আন্দোলন দমাতে প্রশাসন ও ছাত্রলীগ আন্দোলনকারীদেরকে ‘শিবির’ আখ্যা দিয়ে মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযোগ করছেন। এখানে শিবিরের কেউ নেই।

উল্লেখ্য, দুর্নীতির অভিযোগে ভিসিবিরোধী আন্দোলনে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির বাসভবনের সামনে আন্দোলনকারীদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। ছাত্রলীগের ওই হামলায় পাঁচ নারী শিক্ষার্থীসহ অন্তত ৩৫ আহত হন। আহতদের বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টার ও এনাম মেডিকেলে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হয়।


ঢাকা, ০৭ নভেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।