ভিসির ক্ষমা; প্রো-ভিসি পদত্যাগ না হলে লাগাতার আন্দোলন


Published: 2019-10-01 23:42:36 BdST, Updated: 2019-10-20 22:46:49 BdST

রাবি লাইভঃ বক্তব্য শেষে ‘জয় হিন্দ’ স্লোগান দেয়ায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর এম আব্দুস সোবহানের বক্তব্য প্রত্যাহার ও নিয়োগ বাণিজ্যের ফোনালাপ ফাঁসের ঘটনায় প্রো-ভিসি প্রফেসর ড. চৌধুরী মোহাম্মদ জাকারিয়ার পদত্যাগের দাবি জানিয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচীর অংশ হিসেবে মশাল মিছিলের আয়োজন করে ৩ টি সংগঠন। সংগঠনগুলো হচ্ছে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ, রাকসু আন্দোলন মঞ্চ ও শাখা ছাত্র ফেডারেশনের। বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের পেছনে থেকে মিছিল শুরু করার প্রস্তুতি নিয়েছিল আন্দোলনকারীরা।

তবে মশাল মিছিল বের করার আগেই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডি, হল প্রাধ্যক্ষ ও প্রশাসনের ব্যক্তিবর্গ আন্দোলনকারীদের সাথে বিষয়টি নিয়ে আলোচনায় বসেন এবং ঘন্টাব্যাপী তর্কবির্তক চলে তাদের।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর প্রফেসর ড. লুৎফর রহমান আলোচিত ঘটনাগুলো নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির সাথে আগামী ৩ অক্টোবরের মধ্যে সামনাসামনি বসে কথা বলার আহ্বান জানান। এর প্রেক্ষিতে আন্দোলন স্থগিত করেন শিক্ষার্থীরা।

এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আন্দোলনকারীদের এক নেতা বলেন, আগামীকাল দুপুরের মধ্যে ভিসি স্যারের সাথে দেখা করা না গেলে বিকেল থেকে লাগাতার আন্দোলনের ডাক দিবেন তারা।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক মোরশেদুল ইসলাম বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় ভিসি বক্তব্যের মধ্যে ‘জয় হিন্দ’ উল্লেখ করায় প্রশাসন থেকে যে ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে সেটি গ্রহণযোগ্য নয় বলে দাবি করেন তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের দেয়া বক্তব্যটি ত্রুটিপূর্ণ ও অগ্রহণযোগ্য দাবি করে তিনি বলেন, "স্বার্থান্বেষী মহল সাম্প্রদায়িক বিষবাষ্প ছড়াচ্ছে এবং ক্যাম্পাস অস্থিতিশীল করতে চাচ্ছে" প্রশাসনের এমন দাবির প্রেক্ষিতে স্বার্থান্বেষী মহল কারা তার সুষ্পষ্ট ব্যাখ্যা দাবি। একই সাথে উপাচার্যকে তার জাতির কাছে ক্ষমা চেয়ে বক্তব্য দেওয়ার আহবান জানানো হয়।

আন্দোলনকারী রাকসু আন্দোলন মঞ্চের নেতা আব্দুল মজিদ অন্তর বলেন, প্রো-ভিসি প্রফেসর ড. চৌধুরী মোহম্মদ জাকারিয়ার ফোনালাপ ফাঁস বড় দুর্নীতির অংশ বলে মনে করি। আমরা তার পদত্যাগ চাই। যদি পদত্যাগ না করেন তাহলে শিক্ষার্থীদের নিয়ে বৃহত্তর আন্দোলনে যেতে বাধ্য হবে শিক্ষার্থীরা। এসময় শাখা ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি রাশেদ রিমন, সাধারণ সম্পাদক মহব্বত হোসেন মিলন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে পরে এক সংবাদ সম্মেলনে শাখা প্রগতিশীল ছাত্রজোটের পক্ষথেকেও একই দাবি জানানো হয়।
সেখানে ছাত্রজোটের মুখপাত্র শাখা ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শাকিলা খাতুন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের সভাপতি শাহরিয়ার রিদম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকা, ০১ অক্টোবর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।