যদি ‘জয় বাংলা’ হয় তাহলে 'জয় হিন্দ' কীভাবে? রাবি শিক্ষার্থী


Published: 2019-10-04 20:35:34 BdST, Updated: 2019-10-18 15:43:58 BdST

রাবি লাইভঃ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষক নিয়োগে কেলেঙ্কারির ঘটনায় দুদক ও ইউজিসিকে তদন্তের দাবি জানিয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

শুক্রবার বিকেলে পদযাত্রা কর্মসূচি পরবর্তী সমাবেশ থেকে এ দাবি জানানো হয়। 'অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়' এই সংগঠনের ব্যানারে নিয়োগ বাণিজ্যের প্রতিবাদে এ পদযাত্রা কর্মসূচি পালন করা হয়।

এসময় আন্দোলনকারীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে পদযাত্রা শুরু করে প্রশাসন ভবনের সামনে দিয়ে ঘুরে জোহা চত্তরে গিয়ে অবস্থান নেন। সেখানে শহীদ ড. শামসুজ্জোহার স্মরণে ১ মিনিট নীরবতা পালন করেন তারা।

নীরবতা পালন শেষে ১৫ মিনিট নিরবে বসে থেকে প্রতিবাদ জানানো শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেন তারা। এসময় রাবি ছাত্র মোহাব্বত হোসেন মিলনের সঞ্চালনা করেন।

ভিসি ‘জয় হিন্দ’ স্লোগানের বিষয়ে অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী রাশেদ রিমন বলেন, ''একটা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি তিনি কেন অন্য রাষ্ট্রের অখন্ডতার স্লোগান দিবেন? যদি 'জয় বাংলা' হয় তাহলে 'জয় হিন্দ' কীভাবে হয়? বাংলাদেশ একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশ।

আপনি একই মনে বাংলাদেশকেও লালন করবেন আবার ভারতকেও লালন করবেন। বাংলার মাটিতে এসব ভণ্ডামি চলবে না। বাংলার মাটিতে থাকতে হলে আপনার বুকের ভিতর শুধু বাংলাদেশকেই ধারণ করতে হবে।

আমরা যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব ও মুক্তিযুদ্ধের পবিত্রতায় বিশ্বাস করি আমরা সকল ভণ্ডামির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবো।''

পদযাত্রায় আন্দোলনকারীরা, 'জোহা স্যারের মাটিতে ভারত তোষণ চলবে না, এসো ভাই এসো বোন গড়ে তুলি আন্দোলন, ছাত্র-শিক্ষক জনতা গড়ে তোল একতা, চিন-রাশিয়ার দালালেরা হুশিয়ার সাবধান, ভারতের দালালেরা হুশিয়ার সাবধান, উপরে আল্লাহ নিচে আমি কত দিতে রাজি তুমি, দুর্নীতিবাজ প্রো-ভিসি পদত্যাগ করো করতে হবে' ইত্যাদি স্লোগান দিতে দেখা যায়।

ইসলামের ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী মোন্নাফ বলেন, দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা যখন উন্নতির দিকে ধাবিত হচ্ছে তখনি শহীদ জোহা স্যারের আদর্শের অনুসারী বিশ্ববিদ্যালয় দুর্নীতিতে ভারাক্রান্ত, রোগাক্রান্ত। এই বিশ্ববিদ্যালয়কে বাঁচাতে সবাইকে একযোগে এগিয়ে আসতে হবে।

সিনেট ভবনের মতো জায়গা বসে ভিসি 'জয় হিন্দ' স্লোগান দিয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতার অবমাননা করেছেন। জোহা স্যারের মাটিতে দুর্নীতিবাজ ও দালালের স্থান হবে।

এসময় নিয়োগ সংক্রান্ত যেসব ফোনালাপ ফাঁস হয়েছে সেসবের তদন্তের পাশাপাশি বর্তমান ভিসির শুরু থেকে যত নিয়োগ হয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন কে এসব তদন্তের দাবি জানান তিনি।

পরে আগামীকাল শনিবার সন্ধ্যা ৬ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের পেছনে থেকে মশাল মিছিল কর্মসুচি ঘোষণা করা হয়।

ঢাকা, ০৪ (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।