বেরোবিতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন


Published: 2019-07-24 20:01:31 BdST, Updated: 2019-08-19 20:26:14 BdST

বেরোবি লাইভ: বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবি) শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত করা, ক্যাম্পাস অস্থিতিশীল রাখা ও শৃঙ্খলা বিনষ্টের প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ। বুধবার দুপুর ১২ ঘটিকায় একাডেমিক ভবনের সংযোগ সড়কে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

গত ১৭ জুন থেকে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের একটি অংশ পদোন্নতি ও আপগ্রেডেশন বিষয়ক যে দুটি দাবিতে আন্দোলন শুরু করেছে, সে দুটি দাবি গত ১১ জুলাই ৬২তম সিন্ডিকেট সভায় অনুমোদন এবং ৫৮ জনের ৪৪ মাসের বকেয়া বেতন পরিশোধের নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে।

উল্লেখ্য যে, বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর কর্মচারীদের পদোন্নতি নীতিমালা সিন্ডিকেট কর্তৃক অনুমোদিত হয়েছে। প্রফেসর ড. আব্দুল জলিল মিয়া ভিসি থাকাকালে অবৈধভাবে কর্মচারীদের নিয়োগ দেয়ায় তাদের ৪৪ মাসের বেতন বকেয়া ছিল, যার সাথে বর্তমান প্রশাসনের সংশ্লিষ্টতা নেই।

মানববন্ধনে লোকপ্রশাসন বিভাগের প্রধান জুবায়ের ইবনে তাহের বলেন, আপনারা যদি অনতিবিলম্বে প্রশাসনিক ভবনের তালা খুলে না দেন, তাহলে আমরা জানি কিভাবে শিক্ষার্থীদের নিয়ে তালা খুলতে হয় এবং ক্যাম্পাসকে গতিশীল করা যায়। আমরা চাই, আপনারা শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি বিবেচনায় নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে সুষ্ঠু সমাধান করবেন।

একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর আপেল মাহমুদ বলেন, কর্মচারীদের যৌক্তিক দাবি অন্য উপায়ে পূরণ করা যায়। এভাবে প্রশাসনিক ভবন তালা দিয়ে ক্যাম্পাসের একাডেমিক কার্যক্রম ব্যাহত করার অধিকার কারো নাই। আমরা ক্লাসরুমে শিক্ষার্থীদের নিয়ে যেতে চাই, শিক্ষার্থীদের কোন প্রকার ক্ষতি আমরা মেনে নিতে পারিনা।

মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীরা বলেন, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে একাডেমিক কার্যক্রম পিছিয়ে দিতে কেউ কেউ ষড়যন্ত্র করছে, সেশনজটের কবলে পড়ে শিক্ষার্থীরা বিপদে পড়ছে। আলোচনার মাধ্যমে এ বিষয়ের সমাধান করা সম্ভব। প্রশাসনিক ভবন অবরুদ্ধ করে এভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম চলতে পারে না।

ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর মোহাম্মদ রফিউল আজম খানের সঞ্চালনায় এতে বক্তব্য দেন অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান মন্ডল, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী কর্মকর্তাদের সংগঠন স্বাধীনতা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মোঃ হাফিজ আল আসাদ, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ দপ্তরের উপ-পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মোঃ সামসুল হক, বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারী ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

মানববন্ধনে উপস্তিত ছিলেন কলা অনষদের ডিন প্রফেসর ড. পরিমল চন্দ্র বর্মণ, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মো: আতিউর রহমান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল প্রভোস্ট তাবিউর রহমান প্রধান, গণিত বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. আর এম হাফিজুর রহমান, বাংলা বিভাগের প্রফেসর ড. মো. নাজমুল হক, ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের বিভাগীয় প্রধান মোঃ মাসুদ রানা, ইতিহাস ও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের বিভাগীয় প্রধান আরা তানজিয়া, জেন্ডার এন্ড ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের বিভাগীয় প্রধান মোঃ দেলোয়ার হোসেন, ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. সুমন কুমার দেবনাথ সহকারী প্রক্টর মোঃ মাসুদ-উল-হাসান, মোঃ আব্দুল্লাহ্-আল-মাহবুব, ইংরেজি বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর মোঃ আলী রায়হান সরকার, গণিত বিভাগের অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর ড. মোঃ রুহুল আমিন, কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর প্রদীপ কুমার সরকার।

এছাড়াও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের লেকচারার মোঃ আমিনুল ইসলাম, মো: সানজিদ ইসলাম খান, মেহনাজ আব্বাসী বাঁধন, ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর মোঃ শরীফ উদ্দীন, মার্কেটিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান মোঃ শাহজালাল, অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর শেখ মাজেদুল হক, পরিসংখ্যান বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর চার্লস ডারউইন, লেকচারার সঞ্জয় কুমার সাহা, লেকচারার মোঃ ফায়সাল-ই-আলম, লেকচারার তানিয়া নুসরাত, লেকচারার মোঃ রহমতুল্লাহ্, লেকচারার জেসমিন নাহার ঝুমুর, লেকচারার কাজী নেওয়াজ মোস্তফা, লেকচারার রাম প্রসাদ বর্মণ, এ. বি. এম. নুরুল্লাহ্, লেকচারার মুহাম্মদ মুজাহিদুল ইসলাম, লেকচারার ফারজানা জান্নাত তসিসহ বিভিন্ন বিভাগের আরও শিক্ষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকা, ২৪ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।