হাবিপ্রবিতে ৭ শিক্ষক প্রশাসনিক দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ


Published: 2019-07-25 13:23:29 BdST, Updated: 2019-08-19 19:46:39 BdST

হাবিপ্রবি লাইভ: দিনাজপুরে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) প্রশাসনিক দায়িত্বে থাকা ৭ জন শিক্ষক প্রশাসনিক দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ করেছেন। সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে পদত্যাগের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

পদত্যাগপত্র জমাদানকারীর ৪ শিক্ষকরা হচ্ছেন, সহাকরী প্রক্টর সৌরভ পাল চৌধুরী, ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের সহাকারী পরিচালক সাইফুল ইসলাম, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের সহকারী হল সুপার মো. ফরিদুল্লাহ, ডরমেটরি-২ এর সহকারী হল সুপার শক্তি চন্দ্র মন্ডল, ও ডরমেটরী-১ এর সহকারী হল সুপার মো.জিয়াউল হাসান, সহকারী প্রক্টর ডা. মো. মাহমুদুল হাসান, ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের সহকারী পরিচালক ডা. মো. হায়দার আলী ও ডা. মোসা. মিসরাত মাসুমা পারভেজ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের সহকারী পরিচালক সাইফুল ইসলামের প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি কর্তৃক সহকারী পরিচালক (ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা) পদে নিয়োগ পেয়ে দায়িত্বশীলতার সাথে উক্ত দায়িত্ব পালন করেন। কিন্তু কিছুদিন যাবৎ লক্ষ্য করা যাচ্ছে যে, বর্তমান প্রশাসন বিভিন্নভাবে পক্ষপাতদুষ্ট কর্মকাণ্ড করে যাচ্ছে। যার কারণে উক্ত পদে আমি দায়িত্ব পালনে বিব্রতবোধ করছি।

এমতাবস্থায় আমি পদত্যাগ করতে আগ্রহী। এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষকে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানান তিনি। একই অভিযোগে পদত্যাগপত্র রেজিস্ট্রার বরাবর অন্যান্য শিক্ষকরাও দিয়েছেন।

পদত্যাগের বিষয়ে জানতে চাইলে হাবিপ্রবির সহাকরি প্রক্টর সৌরভ পাল চৌধুরী জানান, প্রফেসর ড. মু. আবুল কাসেম হাবিপ্রবিতে ভিসি হিসেবে যোগদানের পর আমরা কতিপয় আওয়ামীপন্থী শিক্ষকবৃন্দ সরকার কর্তৃক নিয়োগকৃত ভিসিকে সহযোগিতা করার জন্য সার্বিকভাবে এগিয়ে আসি এবং বিভিন্ন প্রশাসনিক কাজে সহযোগিতা করি। তবে পরবর্তীতে বিভিন্ন নিয়োগে আঞ্চলিকতা মূলক সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ করি।

তিনি আরও বলেন, প্রশাসনে জামায়াতীকরণ বিশ্ববিদ্যালয়ে সকল স্তরে জামায়াতপন্থীদের নির্দেশনা বাস্তবায়ন এবং প্রকৃত আওয়ামীপন্থীদের নিগৃহ ও নিস্পেষিত করায় আমরা বারংবার প্রতিবাদ করি। ভিসি এগুলো কর্ণপাত না করে একটি বিশেষ এলাকার বিশেষ করে বৃহত্তর রংপুর অঞ্চলের স্বার্থ বিবেচনা করে জামায়াত বিএনপির নির্দেশনায় বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা করছেন। মূলত এসব কারণেই আমরা পদত্যাগ করছি।

সহকারী হল সুপার শক্তি চন্দ্র মন্ডল বলেন, বিগত ভর্তি পরীক্ষার কমিটিতে অনেক জামায়াত-বিএনপির লোকজন কমিটিতে ছিল। সেখানে আওয়ামীপন্থী কাউকে রাখা হয়নি। ভিসি জামায়াত বিএনপির বিভিন্ন লোকদের প্রশাসনিক জায়গায় বসিয়েছেন। তিনি বলেন, যদি কেউ দেশ বিরোধী কার্যক্রম করেন তাহলে আমরা তার প্রতিরোধ করব।

পদত্যাগের বিষয়ে জানতে চাইলে হাবিপ্রবির রেজিস্ট্রার বীরমুক্তিযোদ্ধা ডা. মো. ফজলুল হক বলেন, আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা। দেশের প্রতি আমার জীবনের থেকেও বেশি টান। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কাজে অতিরিক্ত দায়িত্ব থেকে ঐ ৭জন শিক্ষক পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। তাদের সবার লেখার ধরণও একই। প্রশাসনিক দায়িত্বে থাকাকালীন সময়েও তারা প্রশাসনকে তেমন কোন সহযোগিতা করিনি, বরং বিভিন্ন সময়ে তারা প্রশাসনকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলেছে।

রেজিস্ট্রার বীরমুক্তিযোদ্ধা ডা. মো. ফজলুল হক আরো বলেন, ওই সব শিক্ষককের অভিযোগগুলো কিসের ভিত্তিতে তা আমার বোধগম্য নয়। সাবেক প্রশাসনের আমলে যে ৫৭ জন শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়েছে তার মধ্যে ৪৩ জনের বাসাই হলো বৃহত্তর দিনাজপুরের (দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও,পঞ্চগড়)। আর এই প্রশাসনের আমলে ২০১৮ সালে ১৪ জন গাড়ি চালক নিয়োগ দেয়া হয়েছে যার মধ্যে ১৩ জন দিনাজপুরের ১ জন গাইবান্ধার। ২০১৯ সালের শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ যাদের দেয়া হয়েছে তাদের মধ্যে বৃহত্তর দিনাজপুর থেকে শিক্ষক পদে ৮ জন, কর্মকর্তা পদে ১২ জন, কর্মচারী পদে ১৭ জন। বৃহত্তর রংপুর (রংপুর, নীলফামারী, গাইবান্ধা, লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রাম) থেকে শিক্ষক পদে ১২ জন, কর্মকর্তা পদে ৯ জন কর্মচারী পদে ১ জন। অন্যান্য জেলা থেকে শিক্ষক পদে ১২ জন, কর্মকর্তা পদে ১ জন, কর্মচারী পদে ১ জন।

উল্লেখ্য যে, এবারের শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়ার ৪টি ধাপ অনুসরণ করে নিয়োগের জন্য মনোনীত করা হয়েছে। ধাপ ৪ টি হলো (লিখিত পরীক্ষা, ডেমো ক্লাস, মৌখিক পরীক্ষা ও একাডেমিক রেজাল্ট)।

ভর্তি পরীক্ষার অভিযোগ নিয়ে হাবিপ্রবির রেজিস্ট্রার বীরমুক্তিযোদ্ধা ডা. মো. ফজলুল হক বলেন, যিনি অভিযোগ করেছেন ওই শিক্ষককে ওএমআর শিটের দায়িত্ব দিতে চাইলে তিনি নিজে থেকে প্রশ্নপত্রের দায়িত্ব নিতে চান। ভর্তি পরীক্ষা কমিটির অন্যান্য সদস্যগণ তাকে সেটির দায়িত্ব দেননি বলেই তাদের এই অভিযোগ। আবার চাকরি ক্ষেত্রেও হয়ত তাদের নিজস্ব কোন ব্যক্তির চাকরি না হওয়ায় তারা এসব অভিযোগ করে প্রশাসনকে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করছেন। তারা দায়িত্বে থেকে প্রশাসনকে যেমন সহযোগিতা করেননি তাদের অনুপস্থিতেও প্রশাসনিক কাজে কোন ব্যাঘাত ঘটবে না বলে তিনি মন্তব্য করেন।

ঢাকা, ২৫ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।