হাবিপ্রবিতে মানব বন্ধন যেভাবে


Published: 2020-01-30 03:43:14 BdST, Updated: 2020-04-04 17:03:56 BdST

হাবিপ্রবি লাইভঃ হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (হাবিপ্রবি) কৃষি অনুষদের শিক্ষক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ ও প্রকাশনা শাখার পরিচালক প্রফেসর ড. শ্রীপতি সিকদার'কে বিভাগের নিজ অফিস কক্ষে প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের কতিপয় শিক্ষক কর্তৃক লাঞ্ছিত করার অপচেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (২৯ জানুয়ারি) বেলা ১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে কৃষি অনুষদ পরিবারের ব্যানারে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানব্বন্ধনে বক্তব্য রাখেন, কৃষি অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. ভবেন্দ্র কুমার বিশ্বাস, প্রফেসর ড. মো. তারিকুল ইসলাম, কৃষি অনুষদীয় ছাত্র মো. রিয়াদ খান, সাজেদুর রহমান সৈকত, সৌরভ, গোলাম সরোয়ার ফরহাদ, জাহিদুল ইসলাম শিহাব, সরোয়ার জাহান, রাশিদুন্নবী রাশেদসহ আরও অনেকে।

সেদিনের ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী মো. সৌরভসহ কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, গত সোমবার (২৭ জানুয়ারি) কৃষি অনুষদ ভবনে ফসল শারীরতত্ত্ব ও পরিবেশ বিভাগের ল্যাব এ আমি উপস্থিত ছিলাম। সে সময় হঠাৎ বারান্দায় চিৎকার চেচামেচি শুনে ল্যাব থেকে বের হয়ে দেখি প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের গণিত বিভাগের শিক্ষক মামুনুর রশীদ।

পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ড. মোমিনুল ইসলাম, সোসিওলজি বিভাগের হাসান জামিল জেনিথ, মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের কৃষ্ণ চন্দ্র রায়সহ বেশ কয়েকজন শিক্ষক শ্রীপতি সিকদার স্যারকে লাঞ্ছিত করার চেষ্টা করছেন। পরে আমিসহ কয়েকজন মিলে স্যারকে ঊদ্ধার করলে তারা চলে যান।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের দুজন শিক্ষকের অতিরিক্ত অর্থ নিয়ে মিডিয়ায় একটি খবর প্রকাশিত হয়। সেই খবরটির তথ্য দিয়েছিলেন ওইদিনের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এবং জনসংযোগ ও প্রকাশনা শাখার পরিচালক প্রফেসর ড. শ্রীপতি সিকদার।

সেই তথ্য দেওয়াকে কেন্দ্র করে পরবর্তীতে প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের কয়েকজন শিক্ষক প্রফেসর ড. শ্রীপতি সিকদারের অফিস রুমে এসে কেন তথ্য দিয়েছিলেন এজন্য লাঞ্ছিত করা হয়েছে। তিনি যে তথ্য মিডিয়ায় দিয়েছিলেন তার পুরোটাই তিনি রিজেন্ট বোর্ডের সিন্ধান্তের ভিত্তিতেই দিয়েছিলেন। তিনি দায়িত্বশীল জায়গায় থেকেই যতটুকু তথ্য দেওয়ার সেটুকুই দিয়েছেন।

ঢাকা, ২৯ জানুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।