অসংখ্য জনপ্রিয় গানের স্রষ্টা আলাউদ্দীন আলী


Published: 2020-08-10 00:28:17 BdST, Updated: 2020-09-19 11:36:07 BdST

শোবিজ লাইভ: আলাউদ্দীন আলীর শুরুটা হয়েছিল ব্যর্থতার মধ্য দিয়ে। সাফল্যের জন্য তাঁকে অনেক দিন অপেক্ষা করতে হয়েছে। ১৯৭৮ সালে আমজাদ হোসেন তৈরি করেন ‘গোলাপী এখন ট্রেনে’। এই ছবির জন্য আলাউদ্দীন আলী তৈরি করেন ‘আছেন আমার মোক্তার’ শিরোনামে একটি গান। শ্রোতারা অবাক হয়ে শোনেন গানটি।

একই ছবির আরেকটি গান তখন দারুণ জনপ্রিয়তা পায়, ‘হায় রে কপাল মন্দ, চোখ থাকিতে অন্ধ’। এই গানের গীতিকার আমজাদ হোসেন। দুটি গানই আলাউদ্দীন আলীকে নিয়ে যায় অন্য জায়গায়।

‘ফকির মজনু শাহ’ নামের ছবিতে ‘প্রেমের আগুনে’, ‘সবাই বলে বয়স বাড়ে’ আর ‘চোখের নজর এমনি কইরা’ গানগুলো আলাউদ্দীন আলীর ব্যাপারে সবাইকে আগ্রহী করে তোলে।

১৯৭৮ সাল থেকে আলাউদ্দীন আলীর কর্মযজ্ঞ শুরু। চার দশকের বেশি সময়ের ক্যারিয়ারে প্রতিবছর গড়ে ১০টি ছবির গানের সুর ও সংগীত পরিচালনা করেছেন। সুরকার হিসেবে সাতবার এবং গীতিকার হিসেবে একবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন তিনি।

তাঁর সৃষ্টি কালজয়ী গানগুলোর মধ্যে আছে, ‘সুখে থাকো,/ ও আমার নন্দিনী/ হয়ে কারও ঘরনি’, ‘সূর্যোদয়ে তুমি,/ সূর্যাস্তেও তুমি,/ ও আমার বাংলাদেশ’, ‘বন্ধু তিন দিন তোর বাড়িত গেলাম দেখা পাইলাম না’, ‘যেটুকু সময় তুমি থাকো কাছে,/ মনে হয় এ দেহে প্রাণ আছে’, ‘প্রথম বাংলাদেশ আমার শেষ বাংলাদেশ’, ‘এমনও তো প্রেম হয়,/ চোখের জলে কথা কয়’, ‘সবাই বলে বয়স বাড়ে, আমি বলি কমে রে’, ‘আমায় গেঁথে দাও না মাগো,/ একটা পলাশ ফুলের মালা’, ‘আছেন আমার মোক্তার,/ আছেন আমার বারিস্টার’, ‘শত জনমের স্বপ্ন তুমি আমার জীবনে এলে’, ‘কেউ কোনো দিন আমারে তো কথা দিল না’, ‘পারি না ভুলে যেতে,/ স্মৃতিরা মালা গেঁথে’, ‘জন্ম থেকে জ্বলছি মাগো’, ‘আমার মনের ভেতর অনেক জ্বালা আগুন হইয়া জ্বলে’, ‘যে ছিল দৃষ্টির সীমানায়’, ‘ভালোবাসা যত বড় জীবন তত বড় নয়’ ইত্যাদি।

রবিবার বিকেলে চলে গেলেন বাংলা গানের সুরকার ও সংগীত পরিচালক। তিনি চলে গেলেও তাঁর জনপ্রিয় গানগুলোর মধ্য দিয়ে এ দেশের মানুষের মনে বেঁচে থাকবেন আজীবন।

ঢাকা, ১০ আগস্ট (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।