খুলনা, সাতক্ষীরায় করোনার মৃত্যুর রেকর্ড


Published: 2021-06-19 13:44:41 BdST, Updated: 2021-08-06 09:02:28 BdST

খুলনা, সাতক্ষীরা লাইভ: খুলনা ও সাতক্ষীরায় কমছে না করোনায় মৃত্যু ও শনাক্তের হার। এর থাবায় হররোজ বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল। শুক্রবার (১৮ জুন) সকাল ৯টা থেকে শনিবার (১৯ জুন) সকাল ৯টার মধ্যে করোনা এবং উপসর্গ নিয়ে খুলনা করোনা হাসপাতালে ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। অন্যদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ডেডিকেটেড সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় একদিনে সর্বোচ্চ ৯ জন মারা গেছে।

স্বাস্থ্য বিভাগের হিসাবে, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে এটিই একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড খুলনায়। শনিবার (১৯ জুন) সকালে এ তথ্য নিশ্চিত করে খুলনা করোনা হাসপাতালের ফোকাল পার্সন ও খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার বলেন, আটজন করোনা আক্রান্ত এবং তিনজন উপসর্গ নিয়ে মারা যান।

হাসপাতালে সকাল ৯টা পর্যন্ত ১৫৫ জন রোগী ভর্তি ছিল। যার মধ্যে রেডজোনে ৯৫ জন, ইয়ালোজোনে ২১ জন, এইচডিইউতে ২০ জন এবং আইসিইউতে ১৯ জন চিকিৎসাধীন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ভর্তি হয়েছেন ৪১ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৫৪ জন।

খুলনা মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ডা. মেহেদী নেওয়াজ বলেন, খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর মেশিনে ৪৪৮ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১৭১ জনের করোনা পজিটিভ এসেছে। যার মধ্যে খুলনার ৩৮৭ জনের নমুনা পরীক্ষায় নতুন করে ১৪৯ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছেন।

এছাড়া বাগেরহাটের আটজন, যশোরের পাঁচজন, সাতক্ষীরার দুইজন, নড়াইলের একজন, পিরোজপুরের একজন, গোপালগঞ্জ তিনজন, মাগুরার একজন ও ফরিদপুর জেলার একজন রয়েছে। বাজার, শপিং মল, এলাকার শারীরিক দূরত্ব মানছে না কেউ।

সাতক্ষীরায় রেকর্ড:

এদিকে সীমান্ত জেলা সাতক্ষীরায় করোনা সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ডেডিকেটেড সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় একদিনে সর্বোচ্চ ৯ জন মারা গেছে। করোনায় ৮ জন এবং একজন করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। যা একদিনের হিসেবে এটিই রেকর্ড মৃত্যু।

শনিবার (১৯ জুন) সাতক্ষীরা জেলা সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার জয়ন্ত সরকার এ তথ্য নিশ্চিত করেন। সরকারি তথ্য মতে, সাতক্ষীরায় করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেল ২৬৬ জন, আর করোনায় মারা গেছে ৫৬ জন। বর্তমানে ৭ শতাধিক মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছে। আর উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসা নিচ্ছে কয়েক হাজার।

আর পিসিআর ল্যাবের টেস্টের পরিসংখ্যান মতে, করোনা সংক্রমণের হার ৬১ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। চলমান লকডাউন কার্যকর না হওয়ায় ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চিকিৎসা না নেয়া, করোনা বা করোনা উপসর্গে মৃত ব্যক্তিদের দাফনে কোনো প্রকার সতর্কতা মেনে না চলায় এ সংক্রমণ থামানো যাচ্ছে না বলে মনে করে সুশীল সমাজ।

ঢাকা, ১৯ জুন (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এআইটি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।