ইবির বন্ধ হলে পাখির বাসা


Published: 2021-10-12 11:05:07 BdST, Updated: 2021-10-19 04:34:45 BdST

আজাহার ইসলাম, ইবি: দীর্ঘ ১৮ মাস ধরে বন্ধ ছিল ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) আবাসিক হলগুলো। এই দেড় বছর ধরে আলো জ্বলেনি কক্ষগুলোতে। এই সুযোগে কয়েকটি হলের কক্ষে বাসা বেঁধেছে বিভিন্ন প্রজাতির পাখি। তারা ইতোমধ্যে বসবাসও শুরু করেছে।

সেই সাথে ডিমও দিয়েছে বংশ বৃদ্ধির জন্য। নিরাপদ আশ্রয়স্থল হিসেবে হলের কক্ষকেই বেছে নিয়েছে তারা। দেড় বছর পর গত ৯ অক্টোবর আবাসিক হলগুলো খুলে দেওয়ার পর শিক্ষার্থীদের কক্ষে এসব পাখি পাওয়া যায়।

কক্ষে বাসা বেঁধেছে বিভিন্ন প্রজাতির পাখি ও কবুতর

 

শিক্ষার্থীরা জানান, লালন শাহ হলের ৪৩২ নং কক্ষের আবাসিক শিক্ষার্থী তৌফিক হোসেন কক্ষে প্রবেশ করে একজোড়া ঘুঘু দেখতে পান। বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের ৪১৩ নং কক্ষে একটি ঘুঘুর বাচ্চা পেয়েছেন আসমাউল হুসনা নামে এক আবাসিক শিক্ষার্থী।

এছাড়া শেখ রাসেল হলের ৫০৯ নং কক্ষের আবাসিক শিক্ষার্থী তন্ময় হাফিজ কক্ষে প্রবেশ করেই কবুতরের বাসা দেখতে পান। কক্ষে ঢুকেই পাখিদের উপস্থিতি টের পান শিক্ষার্থীরা। তাদের দেখে ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পাখিরা উড়তে শুরু করে।

খড়কুটো ও ডিমসহ পাখিদের বাসা

 

লালন শাহ হলের ৪৩২ নম্বর কক্ষের আবাসিক শিক্ষার্থী তৌফিক হোসেন ক্যম্পাসলাইভকে জানান, ঘুঘু যুগল কক্ষে রেখে যাওয়া রান্নার হাড়িতে বাসা বেঁধেছে। তারা পাখিদের বাসায় দুইটি ডিমসহ তা দিতে দেখেন এবং পাখিদের ধরে ফেলেন। এরপর কক্ষের জানালার উপরের দেয়ালে খড়কুটো ও পাখিদের ডিমসহ বসিয়ে দেন।

তৌফিক বলেন, ‘পাখি পোষা অনেকের কাছেই শখের। কিন্তু আমার কাছে মনে হয় পাখি ধরে খাঁচায় বন্ধ করে রাখার অর্থ স্বাধীনতা হরণ করা। সকল প্রাণীই স্বাধীনভাবে বেঁচে থাকবে এটাই প্রত্যাশা।’ নিরীহ এই পাখিগুলো মানুষের লোভের শিকার হয়ে হয়তো একদিন হারিয়েই যাবে বলে আশঙ্কা পাখি বিশেষজ্ঞদের।

ঢাকা, ১২ অক্টোবর (ক্যাম্পাসইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।