42313

ভারতফেরত: ইমিগ্রেশন-কোয়ারেন্টাইন ব্যবস্থাপনা, টর্চার সেল

ভারতফেরত: ইমিগ্রেশন-কোয়ারেন্টাইন ব্যবস্থাপনা, টর্চার সেল

2021-05-15 23:56:31

যশোর লাইভ: যশোরের বেনাপোল সীমান্তের ইমিগ্রেশন ও হোটেলে কোয়ারেন্টাইনে থাকা ভারতফেরতদের মাঝে নানান অসন্তুষ বিরাজ করছে। তারা বিভিন্ন অভিযোগ করছেন ইমিগ্রেশন ও হোটেলে কোয়ারেন্টাইন থাকা নিয়ে । তাদের সামলাতে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছেন হোটেলে দায়িত্বে থাকা পুলিশ ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা। এদিকে ভারত থেকে দেশে আসা নাগরিকদের জন্য প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন নিয়ে নতুন নির্দেশনা জারি করেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। নতুন নির্দেশনা বাস্তবায়নের ফলে কোয়ারেন্টাইনের মেয়াদ বাড়ছে।

জানা গেছে, ভারতফেরতদের জন্য নতুন নির্দেশনায় করোনা টেস্ট বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনের পর ১৫তম দিনে তাদের নমুনা নেয়া হবে। নমুনা টেস্টের রিপোর্ট আসার পর তাদের বাড়ি ফেরার অনুমতি দেয়া হবে। ফলে তাদেরকে ১৪ দিনের বেশি হোটেলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হচ্ছে। যা নিয়ে ক্ষোভ জানাচ্ছেন ভারতফেরত যাত্রীরা। বলছেন এটা একটা রীতিমত মানসিক টর্চার সেল। এদের নজরদারি আওতায় আনতে পরামর্শ দিয়েছেন ভারত ফেরত যাত্রীরা। এটা কেবল ইমেগ্রেশন নয় হোটেলেও।  

প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন

 

তারা বলছেন এখানের সার্ভিস অনেক খারাপ। এরা আমাদের মানুষই মনে করছে না। মনে হয় আমরা অন্য এদেমের। গুরুতর অপরাধ করে এখানে এসেছি। খাবার দাবার প্রয়েজনীয় জিনিষ পত্র সবই তাদের দয়ায় হচ্ছে। এই ধারণা এখন নিত্যমিত্তিক ব্যাপার। ইমেগ্রেশন, কাস্টসের ব্যাপারে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন ভারত ফেরত জানালেন, আমরা আসার পর ইমেগ্রেশনের ভেতরে দুই কপি ফটো কপি করতে দেড়শ টাকা নিয়েছে।

পুলিশ-ইমেগ্রেশন ও কাষ্টমস মিলে একটি চক্র তৈরী করেছে। এরা যাত্রীদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়ে নানান বাহানায় টাকা পয়সা। এই অভিযোগ দেয়ার মত কেউ সেখানে নেই। কেউ ভয়ে মুখ খুলতে পারছেন না। তারা আরো জানান, এখানে নানান ভাবে শাসানো হচ্ছে। অনেকটাই জেলখানার মতো।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ভারতে করোনার প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়া সরকার গত ২৬ এপ্রিল থেকে ভারতের সঙ্গে দেশের সব সীমান্ত বন্ধ করে দেয়। তবে ওইদিন থেকে দূতাবাসের বিশেষ অনুমতি নিয়ে দেশে ফেরার সুযোগও দেয়া হয়। ওইদিন থেকে যারা দেশে ফিরেছেন এবং যাদের করোনা নেগেটিভ সনদ আছে, তাদের নিজ খরচে বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হচ্ছে।

আর যারা করোনা পজেটিভ তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হচ্ছে। গত ২৬ এপ্রিল থেকে ১৪ মে পর্যন্ত যশোরের বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে দেশে ফিরেছেন দুই হাজার ৭৭৮ জন। তাদেরকে যশোরসহ পার্শ্ববর্তী পাঁচ জেলায় প্রাতিষ্ঠনিক কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। ফিরে আসাদের মধ্যে যশোরে ছিলেন এক হাজার ২৬৫ জন।

তাদের মধ্যে বাড়ি ফিরে গেছেন ৬৩১ জন। এখনো এই জেলায় প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে আছেন ৬৩৪ জন। আগের নির্দেশনা অনুযায়ী, শুক্রবার (১৪ মে) পর্যন্ত ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন শেষে ভারতফেরতরা করোনা পরীক্ষা ছাড়াই বাড়ি ফিরেছেন। কিন্তু নতুন নির্দেশনার পর সেটি আর সম্ভব হচ্ছে না।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের নতুন নির্দেশনা অনুযায়ী কোয়ারেন্টাইনে থাকাদের ১৫তম দিনে নমুনা নেয়া হবে এবং রিপোর্ট আসার পর তাদের ছাড়া হবে। শনিবার এ সংক্রান্ত নির্দেশনা প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন সেন্টারগুলোতে টানিয়ে দেয়া হয়। এদিকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে এই নোটিশ জারির পর ক্ষোভে ফুঁসছেন যশোরের বিভিন্ন হোটেলে কোয়ারেন্টাইনে থাকা ভারতফেরত যাত্রীরা।

যেসব পাসপোর্টধারী যাত্রী ভারত থেকে ফেরত আসছেন তাদের কাগজপত্র পরীক্ষা-নিরীক্ষাসহ কোয়ারেন্টাইনে স্থানান্তর করার প্রক্রিয়ায় দীর্ঘ সময় ব্যয় হচ্ছে। আর সেই সময়টুকুতে এসব যাত্রীদের ইমিগ্রেশনের অভ্যন্তরে জড়ো করে রাখা হচ্ছে। সেখানে আদৌও স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না।

এদিকে যেসব যাত্রী ভারত থেকে ফিরে আসছে তাদেরকে গত কয়েকদিনে বেনাপোলে সকল আবাসিক হোটেলে ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। বেনাপোলে স্থান সংকুলান না হওয়ায় যাত্রীদের বেনাপোল-যশোর মহাসড়কের লাউজানির গাজির দরগাহ মাদরাসা যশোর শহরের বিভিন্ন আবাসিক হোটেল, এমনকি নড়াইল ও সাতক্ষীরা জেলা সদরেও পাঠানো হয়েছে।

যেসব পাসপোর্টধারী যাত্রী ফেরত এসেছেন তাদের মধ্যে একজনের করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে। তাকে যশোর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। দায়িত্বপ্রাপ্ত শার্শার নাভারণ হাসপাতালের উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ইউসুফ আলী বলেন, ‘ইমিগ্রেশনের ওখানে জায়গা কম থাকায় স্বাস্থ্যবিধি মানা কঠিন হয়ে পড়ছে।’

ঢাকা, ১৫ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

 

প্রধান সম্পাদক: আজহার মাহমুদ
যোগাযোগ: হাসেম ম্যানসন, লেভেল-১; ৪৮, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, তেজগাঁ, ঢাকা-১২১৫
মোবাইল: ০১৬৮২-৫৬১০২৮; ০১৬১১-০২৯৯৩৩
ইমেইল:[email protected]