''টিকার মিশ্র ডোজ নেওয়া বিপজ্জনক''


Published: 2021-07-13 17:10:59 BdST, Updated: 2021-09-19 16:52:44 BdST

লাইভ ডেস্ক: বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে থাইল্যান্ড করোনাভাইরাসের গণটিকাদান কর্মসূচির নীতি পরিবর্তন করে মিশ্র টিকা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। চীনের সিনোভ্যাকের পূর্ণ ডোজ টিকা নেওয়ার পরেও কয়েকশ স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর টিকা নীতিতে পরিবর্তন এনেছে দেশটি। খবর বিবিসি।

অপর দিকে করোনার টিকার এ মিশ্র ডোজ বা বিভিন্ন কোম্পানির টিকা নেওয়াকে বিপজ্জনক হিসেবে উল্লেখ করেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বিজ্ঞানী সৌম্য স্বামীনাথন। তবে করোনার টিকার মিশ্র ডোজ প্রয়োগের ফলাফল সম্পর্কে কোনো গবেষণা বা তথ্য-প্রমাণ না থাকার কথা উল্লেখ করেছেন তিনি। রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

সোমবার (১২ জুলাই) এক অনলাইন প্রেস ব্রিফিংয়ে সৌম্য স্বামীনাথন জানান, করোনার টিকার মিশ্র ডোজে কিছুটা বিপজ্জনক প্রবণতা রয়েছে। কারণ হিসেবে টিকার মিশ্র ডোজ নিয়ে এখনো সংস্থার কাছে কোনো তথ্য-প্রমাণ নেই বলে জানান এই বিজ্ঞানী।

এদিকে থাইল্যান্ডের স্বাস্থ্যমন্ত্রী অনুতিন চার্নভিরাকুল সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, প্রথমে চীনের সিনোভ্যাক টিকার একটি ডোজ দেওয়ার পর পরবর্তী ডোজে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেওয়া হবে এবং সিনোভ্যাকের দুই ডোজ টিকা নেওয়া স্বাস্থ্যকর্মীদের বুস্টার ডোজ হিসেবে অ্যাস্ট্রাজেনেকা বা ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকা দেওয়া হবে। এসব স্বাস্থ্যকর্মীকে দ্বিতীয় সিনোভ্যাক ডোজ দেওয়ার তিন থেকে চার সপ্তাহ পর তৃতীয় ডোজটি দেওয়া হবে।

থাইল্যান্ড এই ঘোষণা দেওয়ার পর টিকার মিশ্র ডোজ নিয়ে সতর্ক করে সৌম্য স্বামীনাথন বলেন, নাগরিকেরা যদি টিকার দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ ডোজ হিসেবে কোন টিকা কখন নেবেন সেই সিদ্ধান্ত নেন, তাহলে দেশে দেশে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে।
এদিকে থাইল্যান্ডে করোনাভাইরাস নতুন করে সংক্রমণ বৃদ্ধি শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার (১৩ জুলাই) দেশটিতে ৮ হাজার ৬৫৬ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে আর মারা গেছে ৮০ জন। দেশটিতে এ পর্যন্ত তিন লাখ ৪৫ হাজার ২৭ জন কভিড রোগী শনাক্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ৭৯১ জনের।

ঢাকা, ১৩ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।