কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে এসে দুই ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীর মৃত্যু যে কারণে


Published: 2021-09-18 10:33:00 BdST, Updated: 2021-10-22 19:13:01 BdST

চট্টগ্রাম লাইভ: তাদের মনে হাজারো স্বপ্ন ছিলো। তারা ছিলেন ধনাঢ্য ঘরের সন্তান। বাবা-মায়ের আদরের ধন। কিন্তু অজানা পথে যাত্রার শিকার হলেন তারা। অবশেষে মাদকের ছোবল ছাত্র নেতাদেরও দিয়েছে। মাদকের ছোবল ছাত্র নেতাদেরও দিয়েছে। অতিরিক্ত মদ্যপানের কারণে মারা গেছে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীসহ দুইজন। এদের মধ্যে একজন থানা পর্যায়ের ছাত্রলীগ নেতা রয়েছেন। কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে বেড়াতে গিয়ে অতিরিক্ত মদ্যপানের কারণে মারা যাওয়া কোতোয়ালি থানার ছাত্রলীগ নেতা রাফসান ইরফানের সাথে থাকা তার রাজনৈতিক ছোট ভাই মুনতাসির প্রিয়ামেরও মৃত্যু হয়েছে। এনিয়ে চলছে এলাকায় নানান আলোচনা ও সমালোচনা।

এলাকাবাসী ও পুলিশ জানিয়েছে রাফসানের মতো এই ছাত্রলীগ কর্মীরও মদের বিষক্রিয়ায় মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) রাত দুইটার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এই ছাত্রলীগ কর্মীর মৃত্যু হয়। রাফসানের আরেক সহযোগী জাহাঙ্গীর আলম আকাশ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন অতিরিক্ত মদ্যপানের কারণে তাদের মৃত্যু হয়েছে।

পুলিশ ও রাফসানের বন্ধু ও ছাত্রলীগের স্থানীয় নেতারা বলেছেন, অতিরিক্ত মদ্যপানের কারণে শুক্রবার সকালে মারা যাওয়া রাফসানের লাশের সাথে তার সহযোগী প্রিয়াম ও রায়হানকে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে বিকেলে চট্টগ্রামে নিয়ে আসা হয়।

পরে প্রিয়ামকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ভর্তি করানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। চমেক হাসপাতালে ভর্তি থাকা রাফসানের আরেক সহযোগী রায়হানের অবস্থাও আশঙ্কাজনক। ডাক্তার জানিয়েছেন এরা বেশ কয়েকজন বন্ধু সমুদ্র সৈকতে ঘুরতে গিয়ে বাংলা মদ পান করেন। তারা প্রতিযোগিতা দিয়ে অতিরিক্ত মদ পানের ফলে অসুস্থ হয়ে যান। পরে তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সাইমুন প্রিয়াম

 

এদিকে একাধিক সূত্রে জানা গেছে, গত ১৫ই সেপ্টেম্বর রাফসান তার সহযোগী প্রিয়াম ও রায়হানসহ চারজনকে নিয়ে কক্সবাজার বেড়াতে যান। সেখানে তারা ‘বে ওয়ান্ডারস’ নামে একটি হোটেলে অবস্থান করেন।

বৃহস্পতিবার (১৬ই সেপ্টেম্বর) গভীর রাত পর্যন্ত হোটেলে তারা মদ পান করেন। পরে তারা ঘুমিয়ে পড়েন। এর মধ্যে অসুস্থ হয়ে পড়ে রাফসানসহ কয়েকজন। পরে তাদেরকে কক্সবাজারের বেসরকারি একটি হাসপাতালে নিয়ে যায়। অবস্থা আরো খারাপ হলে তাদেরকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানেই রাফসান ইরফানের মৃত্যু হয়।

আর চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ২ টার দিকে প্রিয়ামও মারা যায়।
জানা যায়, নিহত রাফসান ও প্রিয়ামের বাড়ি নগরের কোতোয়ালি থানার এনায়েতবাজার বাটালি রোড এলাকায়। এদের মধ্যে রাফসানের দলের তার কোন পদ পদবী না থাকলেও এলাকায় তিনি ছাত্রলীগ নেতা হিসেবে পরিচিত ছিলেন।

একসময় সিটি মেয়র আ জ ম নাসির গ্রুপে থাকলেও সামনের কাউন্সিলে কোতোয়ালি থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদের আশ্বাসে তিনি সম্প্রতি উপমন্ত্রী নওফেল গ্রুপে যোগ দেন। মারা যাওয়া প্রিয়াম তার ঘনিষ্ঠ অনুসারী বলে পরিচিত।

এ ব্যাপারে কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মহিউদ্দিন আহমেদ জানান, চট্টগ্রাম থেকে বেড়াতে আসা ৪ বন্ধু কলাতলীর একটি হোটেল ওঠেন। তারা সকলে অতিরিক্ত মদ পান করেন।

এতে ৩ জন শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সকালে অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাদের মধ্যে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাফসানের মৃত্যু হয়। অন্য ২ জনকে চট্টগ্রামে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়। শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) রাত সোয়া ২টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় প্রিয়াম মারা যান। আমরা বিভিন্ন ভাবে এসব তথ্য সংগ্রহ করেছি। এ ব্যাপারে থানায় কোন মামলা হয়নি।

হোটেলের রেজিস্ট্রারে দেওয়া ঠিকানা অনুযায়ী, ওই তিন বন্ধুর বাড়ি চট্টগ্রাম নগরের কোতোয়ালি এলাকায়। অতিরিক্ত মদপানে মারা যাওয়া দুই বন্ধু চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের কর্মী বলে জানা গেছে।

ঢাকা, ১৮ সেপ্টেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।